শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
spot_img
Homeরাজনীতিনির্দলীয় সরকারপ্রধান নিয়ে আলোচনা হতে পারে: খালেদা

নির্দলীয় সরকারপ্রধান নিয়ে আলোচনা হতে পারে: খালেদা

বিএনপির চেয়ারপারসন ও বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, “শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখে কোনো নির্বাচন হবে না। নির্বাচন হলে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হবে। নির্দলীয় সরকারের প্রধান কে হবেন সেটা নিয়ে আলোচনা আলোচনা হতে পারে।”

রোববার বিকেলে রংপুর জেলা স্কুল মাঠে ১৮ দলের সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। ১৮ দলের বাইরে যেসব দল রয়েছে তত্ত্বাবধায়কের দাবিতে তাদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনে শরিক হওয়ার আহ্বান জানিয়ে খালেদা জিয়া বলেন, “ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারে গিয়ে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করব। যেখানে কোনো দুর্নীতি, অন্যায়, অনাচার থাকবে না। কেউ দুর্নীতি করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

তিনি বলেন, “তত্ত্বাবধায়ক আসলে ১৮ দল জনগণের ভোটে ক্ষমতায় যাবে এবং পরিবর্তনের রাজনীতি শুরু করবে। দেশ রক্ষার জন্য, জনগণের কল্যানের জন্য সন্তানদের ভবিষ্যৎ রক্ষায় আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। আমি ভোট চাইতে আসি নাই। আমি আপনাদের বলতে চাই, আপনারা এই দুর্নীতিবাজ সরকারের ভোট রুখে দেবেন।”

সরকারকে উদ্দেশ করে খালেদা জিয়া বলেন, “আপনারা বহু রাজনৈতিক নেতাদের অন্যায়ভাবে জেলে রেখেছেন। আমি সব রাজবন্দির মুক্তি চাই। সবাইকে নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। ইলিয়াস আলী ও চৌধুরী আলমকে আপনারা গুম করেছেন। জামায়াতে ইসলামীর নেতাদের ওপর নির্যাতন করছেন। শিবিরের তরুণ সভাপতির ওপর যে নির্যাতন করা হয়েছে তা মেনে যায় না।”

তিনি বলেন, “১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগের বন্ধু ছিল জামায়াতে ইসলামী। কারণ সেদিন তারা আওয়ামী লীগের জোটে ছিল। আজ তাদের জোটে নেই বলে জামায়াত এখন তাদের শত্রু।”

নির্বাচন কমিশনের উদ্দেশে বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, “আপনারা যদি জনগণের বাইরে গিয়ে কাজ করেন, সরকারের সঙ্গে তাল মিলান, সরকারি দলের সঙ্গে কথা বলতে মিনমিন করেন। তাহলে সরকারের সঙ্গে আপনাদেরও বিদায় নিতে হবে।”

খালেদা জিয়া জনসভার শুরুতেই বলেন, “আজকে আমার জনসভায় আসতে খুব ভালো লেগেছে। বগুড়া থেকে আসতে দেখেছি মানুষ জেগে উঠেছে।”

তিনি অভিযোগ করেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে কোনো কাজ করেনি। বিএনপি ক্ষমতায় এলে রংপুরের উন্নয়ন হবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

খালেদা বলেন, “আওয়ামী লীগ ভোট চাচ্ছে, তাদের ভোট দিলে নাকি উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্টি হবে। তারা উন্নয়ন করবে না, তারা ক্ষমতায় এলে জুলুম বাড়বে, জিনিসপত্রের দাম বাড়বে। ’৭৪ সালের দুর্ভিক্ষের কথা রংপুরের জনগণ ভুলেনি। তখন ডাস্টবিনের খাবার কুকুর আর মানুষ টানাটানি করে খেয়েছে। সেটা ছিল আওয়ামী লীগের সময়।”

তিনি বলেন, “আওয়ামী লীগ মানেই দুর্ভিক্ষ, মা-বোনদের ওপর নির্যাতন। এদেশের মানুষ আর তাদের ক্ষমতায় দেখতে চায় না। তারা মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করেছে। ১০ টাকা চাল দেয়ার কথা বলেছেন, কিন্তু ওয়াদা রাখেন নাই। ঘরে ঘরে চাকরি দেয় নাই, বিনামূল্যে সার দেয় নাই উল্টো কৃষক ভাইদের যন্ত্রনার মাত্র বাড়িয়ে দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ মিথ্যাবাদী। এদের বিশ্বাস করা যায় না।”

খালেদা বলেন, “গণবিরোধী আইন পাস করলে আমরা রাস্তায় নামব। হরতাল ডাকলে দলের প্রধানের পাঁচ বছরের জেল হবে- এটা গণবিরোধী আইন। এসবের ভয় করি না। জেল কেটেছি, নির্যাতন সহ্য করেছি। সুতরাং এ আইনের বিরুদ্ধে রাজপথে নামব। এখন যে আইন করবেন তা আপনাদের ওপরেই বর্তাবে।”


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments