বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর 2, 2021
বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর 2, 2021
বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর 2, 2021
spot_img
Homeরাজনীতিসিপিবি ও বাসদের সমাবেশে ছাত্রলীগের হামলা সেলিমসহ আহত ২৫, কাল সিলেটে...

সিপিবি ও বাসদের সমাবেশে ছাত্রলীগের হামলা সেলিমসহ আহত ২৫, কাল সিলেটে হরতাল

সিলেটে ছাত্রলীগের হামলায় সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম ও বাসদের সাধারণ সম্পাদক খালেকুজ্জামানসহ অন্তত ২০জন আহত হয়েছেন। এ সময় ছাত্রলীগ কর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ অন্তত ১০ রাউন্ড ফাঁকাগুলি ও আট রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে। রোববার বিকেল পাঁচটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

বিকেল চারটা থেকে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী জনসভা আয়োজনের লক্ষ্যে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) নগরীর কোর্ট পয়েন্টে অবস্থান নেয়। বিকেল সাড়ে চারটার দিকে সংগঠনের জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট বেদানন্দ ভট্টাচার্যের সভাপতিত্বে জনসভার কার্যক্রম শুরু হয়।

জনসভায় সিপিবির কেন্দ্রীয় সভাপতি কমরেড মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম, কেন্দ্রীয় নেতা খালেকুজ্জামানসহ বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা উপস্থিত ছিলেন। বিকেল পাঁচটার দিকে নগরীর জিন্দাবাজার থেকে ছাত্রলীগের একটি মিছিল কোর্ট পয়েন্ট অতিক্রম করে বন্দরবাজারে জেলা পরিষদ মিলনায়তনের দিকে যাবার চেষ্টা করে।

আগামী ১৭ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সিলেট আগমনকে স্বাগত জানিয়ে বের করা ওই মিছিলটি এ সময় কোর্ট পয়েন্টের কাছে পুলিশের বাধার মুখে পড়ে। এক পর্যায়ে পুলিশ মিছিলকারীদের কোর্ট পয়েন্টের দিকে না গিয়ে হকার্স পয়েন্ট অভিমুখ হয়ে যাবার অনুরোধ জানায়। এতে পুলিশের সঙ্গে মিছিলকারী ছাত্রলীগ কর্মীদের কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে মিছিলকারীরা সিপিবির সমাবেশে হামলা চালায়। তারা মঞ্চের সামনে রাখা চেয়ার ও মঞ্চ ভাঙচুর শুরু করে।

ছাত্রলীগ কর্মীরা সিপিবি নেতা কমরেড সেলিম ও কমরেড খালেকুজ্জামানকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করতে উদ্যত হয়। এ সময় সিপিবির সিলেট জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট বেদানন্দ ভট্টাচার্য, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমনসহ অন্যান্যরা মানব প্রাচীর তৈরি করে কেন্দ্রীয় নেতাদের রক্ষা করেন। এ সময় হামলাকারী ছাত্রলীগ কর্মীদের লাঠির আঘাতে কমরেড খালেকুজ্জামান পিঠে আঘাত পান ও  অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমনের বাম হাতের আঙুল ভেঙে যায়।

পুরো কোর্ট পয়েন্ট জুড়ে তখন আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে মঞ্চ থেকে নামার সময় পড়ে গিয়ে কমরেড সেলিম আহত হন। সিপিবি কর্মীদের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মীদের মুখোমুখী সংঘর্ষ চলে ১৫-২০ মিনিট। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হন। পরে ছাত্রলীগ কর্মীরা সভা পণ্ড করে সেখান থেকে চলে যায়।

এর কিছুক্ষণ পর তালতলা থেকে ছাত্রলীগের আরেকটি মিছিল কোর্ট পয়েন্টের দিকে যাবার চেষ্টা করলে সিটি পয়েন্টে পুলিশ মিছিলটির গতিরোধ করে। এ সময় সেখানে উপস্থিত র্যা ব ও পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে ছাত্রলীগ কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টাধাওয়া হয়। মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ অন্তত ১০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও আট রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে।

এ সময় ইট পাটকেলের আঘতে আরো অন্তত ৩০ জন আহত হন। প্রায় আধা ঘণ্টা সংঘর্ষের পর ছাত্রলীগ কর্মীরা পার্শ্ববর্তী জেলা পরিষদ মিলনায়তনে আশ্রয় নেয়।

ঘটনার পরপরই সিপিবি নেতাকর্মীরা বেলা হরতালের ঘোষণা দিয়ে কোর্ট পয়েন্ট ত্যাগ করে ও নগরীতে তাৎক্ষণিক বিক্ষোভ মিছিল বের করে। আহতরা স্থানীয় ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

সিলেট জেলা সিপিবির সভাপতি অ্যাডভোকেট আনোয়ার হোসেন সুমন হরতাল আহ সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আখতার হোসেন বলেন, “ঘটনাস্থলে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। তবে কারা মঞ্চ ভাঙচুরের ঘটনা ও হামলা করেছে তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।”

 

সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments