সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
spot_img
Homeজেলা৮৮ লক্ষ টাকা ব্যায়ে নির্মিত হচ্ছে হেসাখাল ইউপি কমপ্লেক্স

৮৮ লক্ষ টাকা ব্যায়ে নির্মিত হচ্ছে হেসাখাল ইউপি কমপ্লেক্স

বর্তমান সরকারের মেয়াদ কালে নাঙ্গলকোটে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের অংশ হিসেবে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে ৮৮ লক্ষ ব্যায়ে নির্মিত হচ্ছে আধুনিক মানের নাঙ্গলকোটে নবগঠিত হেসাখাল ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পরিষদ ভবনের কাজ বিরামহীনভাবে চলছে। স্থানীয় উপজেলা প্রকৌশলীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে নির্মাণ কাজ হচেছ। প্রকৌশলী ফজলুল হক বলেন আমরা নিয়মিত কাজ তদারকি করছি। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই ভবন নির্মাণের কাজ সমাপ্ত হবে ইনশাল্লাহ। হেসাখাল গ্রামের বাসিন্দা মোঃ আবদুল আলীমের দানকৃত ৩০ শতাংশ সম্পত্তির উপর নির্মিত ভবনটির চলমান কাজ সর্ম্পকে আলীম নিজেই বলেন, কাজের গুণগতমান সন্তোষজনক। কাজটি যে গতিতে চলছে আশা করি প্রকল্পকালীন মেয়াদেই সমাপ্ত হবে।

নির্মাণ কাজ ও ইউনিয়ন পরিষদের উন্নয়ন ও সার্বিক কার্যক্রম সর্ম্পকে হেসাখাল ইউনিয়ন পরিষদের প্রথম নির্বাচিত চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক মোল্লা বলেন, ২০০৪ সালে নাঙ্গলকোট সদর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামকে নিয়ে পৌরসভা গঠিত হওয়ায় পৌরসভা বহির্ভূত গ্রামগুলোকে নিয়ে মক্রবপুর ও হেসাখাল ইউনিয়ন গঠিত হয়। ইউনিয়ন গঠনের কিছুদিন পরেই মক্রবপুর ইউনিয়নের কার্যক্রম তাদের নিজস্ব ভবনে চলে। কিন্তু হেসাখাল ইউনিয়ন পরিষদের ছিল না কোন নিজস্ব ভবন। বর্তমান সরকারের আমলে স্থানীয় সংসদ সদস্য আ হ ম মোস্তফা কামাল (লোটাস) এফসি এর সুদৃষ্টি ও আন্তরিকতায় হেসাখাল বাজার দাখিল মাদ্রাসার দক্ষিণ পাশে সুনিভিড় ও কোলাহলমূক্ত পরিবেশে আবদুল আলীমের দানকৃত ৩০ শতক জমির উপর ইউনিয়ন পরিষদ কমপ্লেক্স নির্মিত হচ্ছে। নির্মাণ কাজ যে গতিতে চলছে এ সরকারের মেয়াদকালেই কাজ সমাপ্ত হবে বলে তিনি আশা করেন।

চেয়ারম্যান মাহফুজুল হক মোল্লা আরো বলেন, ২৫ হাজার লোকের বসতি এলাকায় ৯টি গ্রাম নিয়ে উক্ত ইউনিয়ন গঠিত। ২০১১ সালের নির্বাচনে আমি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে প্রথমে হেসাখাল কলেজ ভবনের দ্বিতীয় তলার ১টি কক্ষে কিছুদিন পরিষদের কার্যক্রম চলে। এখন হেসাখাল বাজারে ভাড়া করা একটি ঘরে চলছে ইউনিয়ন পরিষদের কার্যক্রম। গত ৩ মাস পূর্বে পরিষদের নিজস্ব ভবনের উদ্বোধন করা হয়। এছাড়াও এ এলাকায় বিদ্যুৎ, রাস্তাঘাট, পোল- কালভার্টসহ ভৌত অবকাঠামোগত উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডের জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্য আ হ ম মোস্তফা কামাল (লোটাস) কে এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানায়।

আধুনিকভাবে নির্মিত কমপ্লেক্সটির কাজ সম্পূর্ণ হলে এতে থাকবে তথ্য কেন্দ্র, কৃষি, মৎস্য, আনসার ভিডিপি, মুক্তিযোদ্ধা, প্রকৌশলী অফিসসহ নানা প্রকার অফিস। ইউনিয়নবাসী আরও বেশী পরিমান সেবা পাবে বলে আশা করি।
হেসাখাল ইউনিয়নটি বিভিন্ন দিক থেকে কৃতিত্বের দাবিদার। এখানে রয়েছে হেসাখাল কলেজ, সুহৃদ কারিগরী ও বিজ্ঞান কলেজ, পাটোয়ার ফাযিল (ডিগ্রী) মাদ্রাসা, পাটোয়ার মহিলা দাখিল মাদ্রাসা, হেসাখাল আলীম মাদ্রাসা, হেসাখাল বাজার উচ্চ বিদ্যালয়, দায়েমছাতি উচ্চ বিদ্যালয় ও ৯টি প্রাথমিক বিদ্যালয়। এছাড়াও রয়েছে প্রায় ২ শত বৎসরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী হেসাখাল বাজার। আরও রয়েছে মসজিদ, মন্দির, ক্লিনিক, ক্লাবসহ ধর্মীয় ও সামাজিক সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান। এখানে নানা ধর্ম বর্ণের মানুষ সম্প্রীতি বজায় রেখে বসবাস করছে। দেশ বরেণ্য ব্যক্তিত্ব বিজ্ঞানী কাজী জাকের, গীতিকার এস. এম হেদায়েত, সচিব আবদুল করিম, সচিব আবদুল মতিন, ডিজিএম আবদুল বারেকসহ অনেক জ্ঞানী গুণী ও মনিষি ব্যক্তির জন্মস্থান অত্র ইউনিয়নে।
সমাজ সেবক ও উরুকচাইল শহীদ জাফর স্মৃতি সংঘের সম্পাদক হারুনুর রশিদ ইউনিয়নের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকান্ডের বর্ণনার সাথে নানা সমস্যার কথাও তুলে ধরেন। তিনি বলেন এখনও প্রত্যেক গ্রাম বিদ্যুতায়িত হয় নাই। সংস্কার ও পাকা সড়ক না থাকায় গ্রামের সড়কগুলোতে বর্ষাকালে জনগণের ভোগান্তির  শেষ নেই। এলাকাবাসীর দাবী ১টি ব্যাংক, ১টি ভূমি অফিস, ১টি ডিগ্রী কলেজ স্থাপন করা সহ ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন করলে নাগরিক সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি পাবে। তাহলে বঙ্গবন্ধু কণ্যার ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments