সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
সোমবার, অক্টোবর 18, 2021
spot_img
Homeজেলাসোনাগাজীতে জাল টাকার ছড়াছড়ি

সোনাগাজীতে জাল টাকার ছড়াছড়ি

পবিত্র ঈদুল আযহা কে কেন্দ্র করে সোনাগাজীর ব্যাংক গুলোতে জাল টাকার ছড়াছড়ি চলছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিভিন্ন ধরনের নতুন নোট বের হওয়ায় আসল ও জাল টাকা চিনতে মানুষ দ্বন্দে পড়ছে।
সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, ঈদ কে সামনে রেখে ব্যাংক গুলো থেকে বেশি টাকা উত্তোলনের সময় প্রতি বান্ডেলে পাওয়া যাচ্ছে কয়েকটি জাল নোট। এছাড়া উপজেলার সর্বত্র অবৈধ হুন্ডি ব্যবসায়ীরাও সক্রিয় ভাবে তাদের কাজ চালিায়ে যাচেছ। সাধারন মানুষ জাল টাকা চিনতে না পারায় ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে চলে যায়।  সেই টাকা দিয়ে কিছু ক্রয় করতে গেলে তখন ব্যবসায়ীদের হাতে জাল টাকা ধরা পড়ে। ওই টাকা নিয়ে পূনরায় ব্যাংকে আসলে কর্মকর্তারা এ টাকা তারা দেননি বলে অস্বীকার করেন। এমনকি অনেক সময় গ্রাহকদেরকে জাল টাকার বিষয় নিয়ে ব্যাংক কর্মকর্তারা অপমানিও করে থাকেন।

ইসলামী ব্যাংক সোনাগাজী শাখা থেকে টাকা উত্তোলনকারী মোশারফ হোসেন জানান, তিনি  ৫০ হাজার টাকা উত্তোলন করে সুতা দিয়ে বাধা বান্ডেল নিয়ে চলে আসেন। পরে তিনি ওই টাকা থেকে এক ব্যক্তিকে কিছু টাকা দিতে গেলে সেখানে একটি ৫শত টাকার ২টি নোট জাল প্রমানিত হয়। ওই টাকা নিয়ে তিনি ব্যাংকে পূনরায় গেলে কর্মকর্তারা উক্ত টাকা তাকে দেয়নি বলে জানায় এবং তারা আরো বলে, ব্যাংক থেকে  টাকা নিয়ে যাওয়ার পূর্বেই জাল কিংবা ভালো টাকা যাচাই করে নিতে হবে।অপর এক গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন ইসলামী ব্যাংকে মহিলা গ্রাহক বেশি হওয়াই একশ্রেনী অসাধু ব্যাংক কর্মকর্তাগনটাকার লোভে জালিয়াতি চক্রে সাথে হাত মিলিয়ে গ্রামের সহজ সরল মহিলা ও অন্যান্য গ্রাহকদেরকে ভাল টাকার সাথে জাল টাকা দিয়ে হয়রানি করে থাকে। এছাড়াও গ্রাহকগণ তাদের ব্যাংক থেকে উত্তোলনকৃত টাকার মধ্যে জাল টাকাগুলো চিহ্নিত করে পরবর্তীতে ব্যাংকে আসলে ব্যাংক কর্মকর্তাগণ তাদের সাথে অসৎ আচরণকরে পুলিশে ধরিয়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে তাড়িয়ে দেয়। তবে সর্বোপরি দেখা গেছে সোনাগাজীতে ইসলামী ব্যাংক থেকেই বেশি জাল টাকার নোটের ছড়াছড়ি দেখা গেছে। এছাড়াও সম্প্রতি ইসলামী ব্যাংক থেকে গ্রাহকের ৫ লাখ টাকা ছিনতাই পূর্বেই এ রকম বহু ঘটনা ঘটলেও অদ্যাবধি ইসলামী ব্যাংক কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ না করে গ্রাহকদের সাথে ব্যাংকের ব্যবস্থাপক দুব্যবহার করে থাকেন। এ ব্যাপারে ইসলামী ব্যাংক সোনাগাজী শাখার ব্যবস্থাপক আনোয়ার হোসেনের মোবাইলে কথা বলতে বার বার চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। আরো বেশ কয়েকজন গ্রাহক অভিযোগ করেন,  সোনাগাজীর সোনালী ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, জনতা ব্যাংক, কৃষি ব্যাংক,অগ্রণী ব্যাংক,ন্যাশনাল ব্যাংকসহ আরো বেশ কয়েকটি ব্যাংক থেকে  টাকা উত্তোলনের সময় একাধিক ৫শ’ টাকা ও ১ হাজার টাকার নোট জাল পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে সোনাগাজী সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজার রহিম উল্যাহ খোন্দকার জানান, আমাদের এখানে কোন জাল টাকার নোট থাকে না। অনেক সময় কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে টাকা পাঠানোর েেত্র অসাধু জাল-জালিয়াতি চক্রের সাথে হাত মিলিয়ে কিছু ব্যাংক কর্মকর্তা এ কাজ করে বান্ডেলগুলোতে জাল টাকা ঢুকিয়ে  দিয়ে ব্যাংক গুলোর তি করে থাকে।

অপর দিকে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সোনাগাজীর এক ব্যাংক কর্মকর্তা জানান, সোনাগাজীতে হুন্ডি ব্যবসার সাথে জড়িত মহিলার সংখ্যাই সবচেয়ে বেশি। যে সব মহিলার স্বামী বিদেশ থাকে তাদের মাঝে অনেক মহিলাই স্বামীদের প্ররোচনায় পড়ে টাকার লোভে হুন্ডি ব্যবসার সাথে মিলে অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে সরকারকে রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত করছে। ঐ মহিলাদের সাথেও ব্যাংক কর্মকর্তাদের যোগসাজসে বিভিন্ন স্থানে জাল টাকা ছড়িয়ে ছিটিয়ে যায়।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments