বিএনপি নেত্রী জামায়াতের আমির হলে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় পার্টির নেত্রী

বিএনপি নেত্রী জামায়াতের আমির হলে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় পার্টির নেত্রী। বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন জামায়াতের আমির-প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান রিপন।

জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির জোট ভোটের রাজনীতির বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শুক্রবার দুপুরে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও বর্তমান মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপন এসব কথা বলেন।

প্রসঙ্গত, বৃহস্পতিবার যশোরের মালোপাড়ায় এক জনসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, “এখন মনে হয় খালেদা জিয়া যেন জামায়াতের নেতা হয়ে গেছেন। তিনি জামায়াতের আমির। তাদের সঙ্গেই ওনার ওঠাবসা।”

‘খালেদা জিয়া জামায়াতের আমির’ প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের সমালোচনা করে রিপন বলেন, “জামায়াতের সঙ্গে বিএনপির আদর্শগত বিস্তর ফারাক। তাদের নিজস্ব কর্মপদ্ধতি আছে। তাদের সঙ্গে আমাদের জোট হলো ভোটের রাজনীতির। তাতে যদি বিএনপি নেত্রী জামায়াতের আমির হন তাহলে প্রধানমন্ত্রী জাতীয় পার্টির (জাপা) নেত্রী। কারণ এরশাদ নির্বাচনে না যাওয়ার ঘোষণা দেয়ার পরও তার দলকে নির্বাচনে বাধ্য করা, সিএমএইচে নিয়ে গলফ খেলার সুযোগ করে দিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী।”
এক প্রশ্নের জবাবে রিপন বলেন, “আজ নবম সংসদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। সংবিধান অনুযায়ী ২৫ জানুয়ারি দশম সংসদের এমপিদের শপথ নেয়ার কথা, কিন্তু আগেই তাদের শপথ নিয়ে যে গেজেট প্রকাশ করা হয়েছে তা অবৈধ। আমরা এটাকে বৈধ প্রক্রিয়া বলে মনে করি না। এছাড়া দশম সংসদ নির্বাচনকে জনগণ স্বীকৃতি দেয়নি। তাই এ নিয়ে কথা বলতে চাই না।”
বিএনপি নির্বাচনের ট্রেন ফেল করেছে- প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে জবাবে তিনি বলেন, “ট্রেন একটি চলেছে ঠিকই, তবে এর যাত্রী ছিল অবৈধ। আমরা অবৈধ যাত্রী হতে চাই না। কারণ যেকোনো সময় মোবাইল কোর্টের সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা আছে। তাই সরকারকে বলবো, পাঁচ বছর ক্ষমতায় থাকবেন এমন হুঙ্কার না দিয়ে ভয় নিয়ে চলুন। অবৈধ যাত্রী হিসেবে নরম সুরে কথা বলুন। অন্যথায় পতন হবে পাশাপাশি জরিমানাও দিতে হতে পারে।”
বিএনপির নির্বাচনে না যাওয়া ভুল ছিল কি-না তা যথাসময়ে প্রমাণ হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
অবিলম্বে সংলাপ ও সমঝোতার মাধ্যমে নির্বাচন দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান বিএনপির এই নেতা।
দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘু নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানিয়ে অবিলম্বে এর জন্য দায়ীদের খুঁজে বের করে শাস্তি দাবি করেন রিপন। একই সঙ্গে প্রয়োজনে জাতিসংঘ ও আন্তর্জাতিক সংস্থার মাধ্যমে তদন্ত কমিশনও গঠনের দাবি করেন তিনি।
সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহীন, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদক শিরিন সুলতানা, বিএনপি নেতা রফিক শিকদার, যুবদল নেতা আবদুস সালাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।