আবারও সেই আফ্রিদি-ঝড়, কাঁদাল বাংলাদেশ

আবারও সেই আফ্রিদি-ঝড়। তার মাঠে নামার আগে ম্যাচের কাঁটা বেশ ভালোই হেলে ছিল বাংলাদেশের দিকে। এরপর নেমেই ছক্কা দিয়ে বাংলাদেশের সমর্থকদের হৃদয়ে যে কম্পন জাগালেন, তা একসময় কান্নায় রূপ নিল। তার একেকটা ছক্কা আর চারে বিধ্বস্ত হতে থাকে গ্যালারিসহ টিভির সামনে বসে থাকা কোটি কোটি বাংলাদেশ-প্রেমী। নিজেদের রেকর্ড ৩২৬ রান করেও বুম বুম শহীদ আফ্রিদি ঝড়ে জেতা হলো না টাইগারদের। ইনিংসের মাত্র ১ বল বাকি থাকতে ৩ উইকেটের পরাজয় হজম করতে হয়েছে স্বাগতিকদের।

জয়ের জন্য ৩২৭ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে মাত্র ১ বল বাকি থাকতে ৭ উইকেটে ৩২৯ তুলে নেয় পাকিস্তান।
আবারো এক শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচ দেখ বিশ্ব।   ৩২৭ রানের টার্গেট। শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচের শেষ ৬ বলে ৩ রান দরকার। পেসার আল আমিন পর পর দুই বল ডট দিলেন। ৪ বলে ৩ রান! আর ৩ বলে ২। রান হয়ে গেলেন ফাওয়াদ ৭৪ রানে। শেষ দুই বলে ২ রান। আবার যেন সেই ২০১২ সালে এশিয়া কাপের ফাইনাল সামনে উপস্থিত। ৫ম বলে চার মেরে জয় নিশ্চিত করলেন ওমর আকমল। শেষ অবদি পাকিস্তানই জয়ী। বাংলাদেশ ৫০ ওভারে ৩২৬/৩ আর পাকিস্তান ৪৯.৫ ওভারে ৩২৭/৭। ৩ উইকেটে জয়ী।

আগের ম্যাচে ভারতকে বধ করা আফ্রিদি বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ২৫ বলে ৭ ছক্কা আর ২ চারে ৫৯ রান করেন। টাইগারদের হাতের মুঠো থেকে জয় ছিনিয়ে নেয়া ব্যাটিংয়ের জন্য ম্যাচ সেরাও হন তিনি।

আর ২২৬ রান তাড়া করে জয় পাকিস্তানের ইতিহাসে এই প্রথম। রুদ্ধশ্বাস এই ম্যাচে জয় তুলে নিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠে গেল বর্তমান শিরোপাধারীরা। ফাইনালে লঙ্কানদের বিরুদ্ধে লড়বে তারা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।