চকরিয়ায় বিভিন্ন পয়েন্টে ইভটিজার চক্র সক্রিয় ॥ শংকিত অভিভাবক মহল

চকরিয়া পৌর শহরসহ উপজেলার বিভিন্ন টিজিং পয়েন্টে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর চোখকে ফাঁকি দিয়ে সক্রিয় হয়ে উঠেছে ইভটিজার চক্র। ব্যাহত হচ্ছে শিক্ষার্থীদের স্বাভাবিক যাতায়াত। স্কুলে যাওয়া বন্ধ করে দেয়ার উপক্রম দেখা দিয়েছে অনেকের। এনিয়ে শংকায় পড়েছে অভিভাবক মহল।

 

সূত্রে জানা গেছে, চিহ্নিত সংশ্লিষ্ট এলাকাগুলো অত্যন্ত স্পর্শকাতর ও আইন শৃংখলা বাহিনীর নজরদারির আওয়াধীন নয়। ফলে চক্রটি গা ঢাকা দেয়ার সাথে হয়ে উঠছে বেপরোয়া। এসব ইভটিজার সিন্ডিকেট পৌর শহরের চকরিয়া কোরক বিদ্যাপীঠ, চকরিয়া আবাসিক মহিলা কলেজ, সিটি কলেজ, শহীদ আবদুল হামিদ বাস টার্মিনাল সংলগ্ন চকরিয়া কমার্স কলেজ, চকরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় ডিগ্রী কলেজ, শাহারবিল আনোয়ারুল উলুম ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসা, আমজাদিয়া রফিকুল উলুম ফাজিল (ডিগ্রী) মাদরাসা, চকরিয়া সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, প্রি-ক্যাডেট গ্রামার স্কুল, মগবাজার মহিলা মাদরাসা, চকরিয়া কেন্দ্রীয় উচ্চ বিদ্যালয়, বায়তুশ শরফ রোডের মাথা, ওয়াপদা সড়কের পশ্চিম মাথা, ফুলতলা বিএন স্কুল এন্ড কলেজ এলাকা, বাটাখালীস্থ প্রত্যাশার আলো এবং ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে- চিরিঙ্গা, শাহারবিল, লক্ষ্যারচর, খুটাখালী, ডুলাহাজারা, ফাঁসিয়াখালী, বমুবিলছড়ি, সুরাজপুর-মানিকপুর, কাকারা, বদরখালী, কোনাখালী, ঢেমুশিয়া, পশ্চিম বড়ভেওলা, পূর্ব বড়ভেওলা, বিএমচর, হারবাং, বরইতলী ও কৈয়ারবিলের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এলাকাসহ বিভিন্ন টিজিং পয়েন্টে চায়ের দোকানে বসে বেকার আড্ডা ও টিজিং কর্মকান্ড সংঘটিত করার খবর পাওয়া গেছে। শিা প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার পূর্ব মূহুর্তে বা ছুটির পর ছাত্রীরা বাড়ি ফেরার পথে আকষ্মিক ফিমি স্টাইলে পথ আগলে রাখা ও বিভিন্ন ধরনের প্রেম নিবেদনসহ কুরুচিশীল বাক্য ছোঁড়ে দিচ্ছে এসব উঠতি বয়সের ছেলেরা। তাদের বখাটেপনায় তীব্র উচ্ছৃংখলা জুড়ে দিচ্ছে বড়ভাই দাবিদার কতিপয় যুবকরাও। ফলে দিন থেকে দিন আশংকাজনক হারে এ ধরনের অনৈতিক কর্মকান্ড বেড়ে চলছে নির্বিঘেœ। এহেন কর্মকা-ের কাছে মুরব্বীরাও অনেকটা কুপোকাত।

 

এদিকে সচেতন সমাজ সামাজিক অবক্ষয়ের কীট ইভটিজার চক্রের অপতৎপরতা রোধে টহলদানের মাধ্যমে ব্যাপক নজরদারিসহ আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনী ও উর্ধ্বতন প্রশাসনের সু-দৃষ্টি কামনা করেছেন। তারা মনে করছেন, সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের নজরদারি বাড়ানো হলে অপরাধিরা শিক্ষা পাবে এবং অপরাধ প্রবণতা অনেকাংশে কমে যাবে।

 

সম্প্রতি, চকরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের এক এইসএসসি পরীক্ষার্থীকে বখাটের দল তুলে নিয়ে অপহরণের ঘটনা সংঘটিত করার চেষ্টাকালে কলেজ প্রশাসনের সচেতনতা ও আইন শৃংখলা রক্ষাকারী বাহিনীর চৌমুখী তৎপরতায় ঠেকিয়ে দেয়া হয় সেই অপচেষ্টার ঘটনা।

 

তবে অভিযুক্ত পরিবারের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় মেয়েটির সাথে তাদের ছেলের দীর্ঘদিনের প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। বিয়ের প্রস্তাব পাঠানোতে ঈর্ষান্বিত হয়ে কোন কথা না বলে মেয়েটির যোগসাজশে মোবাইল যোগাযোগের মাধ্যমে এ ধরনের অপহরণ নাটকের আয়োজন করে। যার দরুণ, আমার ছেলে অপহরণ নাটকের মূল হোতা এবং বন্ধুরা সহযোগি হয়ে জেল খাটছে।

 

এব্যাপারে চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) প্রভাষ চন্দ্র ধর বলেন- শিক্ষার্থীদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাওয়া-আসার পথে নিরাপদ যাতায়াত নিশ্চিত করতে বখাটে ও উচ্ছৃংখলদের বিরুদ্ধে যতটুকু কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া দরকার তা করা হবে। এজন্য স্ব-স্ব অবস্থান থেকে সকলের আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করছি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।