১৮দিন পর সৌদি আরবে অগ্নিদগ্ধ কুমিল্লার চার জনসহ ছয় জনের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর

১৮দিন পর সৌদি আরবের রিয়াদে  অগ্নিকান্ডে নিহত নয় বাংলাদেশির মধ্যে ছয় জনের লাশ আজ  শুক্রবার বিকেলে ঢাকায় এসে পৌঁছেছে। এদের মধ্যে চার জনের বাড়ী কুমিল্লা জেলায়। বাকী দুই জনের মধ্যে একজন ফেনীর ও অপর জন মাদারীপুর জেলার। দেশে আসা নিহত ছয়জন হলেন কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার চাঁদেরচর গ্রামের মোঃ সেলিম মিয়া, কলাগাছিয়া গ্রামের মতিউর রহমান, তিতাস উপজেলার দুলারমপুর গ্রামের জালাল উদ্দিন, একই উপজেলার কালিপুর গ্রামের শাহ আলম, মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার শেনারবাত গ্রামের খোরশেদ ও নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার রাজারামপুর গ্রামের জাকির হোসেন। ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে নিহতদের স্বজনরা  এ তথ্য জানান।

 
জনাযায়, লাশ বহনকারি বিমানের একটি ফাইটে (বিজি০৪০) গতকাল শুক্রবার বেলা সোয়া তিনটায় নিহত ব্যক্তিদের লাশ বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। সব নিয়ম কানুন শেষ করে লাশগুলো স্বজনদের কাছে বিকাল ৪টা ২০মিনিটে বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব খন্দকার শওকত হোসেন বিমান বন্দরে হস্তান্তর করেন।

 

লাশ হস্তান্তরের সময় বিমান বন্দরে আসা স্বজনরা কাঁন্নায় ভেঙ্গে পড়েন। স্বজনদের কাঁন্না আর আর্তনাদে বিমানবন্দরের পরিবেশ ভারি হয়ে উঠে। লাশ গুলো বিমানবন্দরে পৌঁছার পর নিহতেদের পরিবারের কাছে ওয়েজ আর্নার্স কল্যাণ বন্ড এর পক্ষ থেকে লাশ বহন ও দাফনের জন্য দেয়া হয়। পরবর্তিতে প্রত্যেকের পরিবারকে তিন লাখ টাকা দেয়া হবে বলে জনানো হয়। ১২ মে রাতে সৌদির রিয়াদের শিফা সানাইয়া এলাকার তিতাস ফার্নিচারে অগ্নিকাণ্ডে ৯ বাংলাদেশিসহ ১১ শ্রমিক মারা যান। বাকি দুজন ভারতীয়। ৯ বাংলাদেশির মধ্যে ৭ জনের বাড়ি কুমিল্লায়। এ জেলার ৭ জনের মধ্যে গতকাল শুক্রবার ৪ জনের লাশ আসে। তবে নিহত বাকি তিনজন গাফফার, নাজির ওরফে মিজান এবং বাহাউদ্দিনের বৈধ কাগজপত্র না পাওয়ায় লাশ পাঠাতে বিলম্ব হচ্ছে বলে জানা গেছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।