বিএনএ একই সাথে দল এবং জোট উভয়ই-ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা

ব্যাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালায়েন্স-বিএনএ প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা বলেছেন, বিএনএ একই সাথে একটি রাজনৈতিক দল এবং রাজনৈতিক জোট। সেক্ষেত্রে বিএনএ’র দুটি ধারা। অর্থ্যাৎ এটি একটি জোট ভিত্তিক রাজনৈতিক দল।

 

বিএনএ রাজনৈতিক দল হিসেবে একটি দলের সকল দলীয় কার্যক্রম করবে এবং জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার প্রয়োজনে বিএনএ কে নিবন্ধনের জন্যও সকল প্রস্তুতি নেবে দলটি। অপরদিকে একাধিক নিবন্ধিত অথবা অনিবন্ধিত রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয় জোট অর্থের এ জোটে অংশ নিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে জোটবদ্ধভাবে সক্রিয় থাকবে বলেও তিনি মনে করেন। তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোকে বিএনএ’র পতাকাতলে আশ্রয় নেবার জন্য অচিরেই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আহবান জানাবেন বলেও জানিয়েছেন।

 

 

এছাড়া একাধিক দলীয়সুত্রে জানা গেছে, বিএনএ আগামী সম্ভাব্য মধ্যবর্তি নির্বাচনে ৩য় শক্তির ভূমিকায় ২ বৃহৎ জোটের সাথে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধিতা করবে। সে লক্ষ্যেই আগে থেকে আটঘাট বেধে এগিয়ে যাচ্ছে জোটটি। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের চেয়ারম্যানদের জন্য বিএনএ জোটের ভাইস চেয়ারম্যান পদবী দেবার কথাও উল্লেখ করেছেন ব্যারিষ্টার হুদা। আর এ জন্যে জোটে অংশগ্রহণকারী দলগুলোর বিশেষ রাজনৈতিক যোগ্যতা থাকতে হবে। যাকে তাকে জোটে অর্ন্তভূক্ত করা হবে না বলেও তিনি জানিয়েছেন।

 

 

সে লক্ষ্যে বিএনএ’র ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ জিয়া তিনি তার প্রতিষ্ঠিত ন্যাশনাল লেবার পার্টি-এনএলপি’র হয়ে জোটে থাকবেন বলে এক ইমেইল বার্তায় সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।  তিনি বলেছেন, ব্যারিষ্টার হুদা’র প্রতিষ্ঠিত জোটের একটি দল হিসেবে এনএলপির নাম ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদার নিকট প্রস্তাব করেছি। তিনি একটি রাজনৈতিক দলকে বিএনএ’র জোটে নেবার জন্যে যে যোগ্যতার বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমের মাধ্যমে জানাবেন, আমরা আশা করি সে ধরনের যোগ্যতায় এনএলপি উত্তীর্ণ হবে। কেননা এনএলপি ২০১৩ সনের ১৮ মেতে যখন বিএনএফ’এ আনুষ্ঠানিকভাবে যোগদান করে তখন ১৫ টি জেলা কমিটি এবং ৬৫ টি উপজেলা কমিটি ছিল।

 

 

আমরা আরো বেশ কিছু জেলায় আমাদের সাংগঠনিক কাঠামো জোরদার করার বিষয়ে কাজ করেছি। আশা করা যায় আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে এনএলপি ৫০ টির অধিক জেলায় নিজেদের রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার যোগ্য হবে। আর এ লক্ষ্যেই ইতিমধ্যে বেশ কিছু জেলা ও উপজেলা আহবায়ক কমিটি এসেছে এবং আসছে।

 

উল্লেখ্য, গত ৭ মে বাংলাদেশ ন্যাশনালিষ্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ এর প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক এবং চেয়ারম্যান ব্যারিষ্টার নাজমুল হুদা জাতীয় প্রেসকাবে অনুষ্টিত এক সংবাদ সম্মেলনে বিএনএফ’র নাম পরিবর্তন করে ব্যাংলাদেশ ন্যাশনাল এ্যালায়েন্স-বিএনএ ঘোষনা করেছিলেন। সেই থেকে দলটি বিএনএফ থেকে বিএনএ হয়ে সবার মাঝে পরিচিতিতে আছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।