ককটেল বিস্ফোরন ॥ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ৪৩ রাউন্ড গুলিবর্ষণ

স্কুল ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কাদৈর এলাকায় দুই পরে মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ সময় লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। এ সময় অন্তত ২০জন আহত হয়। আহতদের স্থানিয় হাসপাতাল ও কিনিকে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। আহতদের পরিচয় জানা যায়নি। এ ঘটনায় নির্বাচন পণ্ড হয়ে যায়।

 

সোমবার সকাল ১১টায় এ ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, চৌদ্দগ্রাম উপজেলার কাদৈর হাইস্কুলের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বিবদমান দুইপ বিভিন্ন স্থান থেকে বহিরাগত ক্যাডারদের ওই এলাকায় এনে জড়ো করে। সোমবার সকাল ১০টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ১১টার দিকে ক্যাডাররা ভোট কেন্দ্র দখলের চেষ্টা চালালে দুই পরে মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া শুরু হয় এবং ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

 

এতে এলাকায় আতংক ছড়িয়ে পড়ে। একপর্যায়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেবময় দেওয়ান, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উত্তম কুমার চক্রবর্তীর নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনে আনে।
এ বিষয়ে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দেবময় দেওয়ান জানান, নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটায় নির্বাচন স্থগিত করে দেয়া হয়েছে। চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) উত্তম কুমার চক্রবর্তী জানান, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ৪৩ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুড়ে। এতে নির্বাচন পণ্ড হয়ে যায়। এ ঘটনায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।