রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
spot_img
Homeজাতীয়হাসিনা লন্ডনে, খালেদা সৌদিতে আর এরশাদ ভারতে

হাসিনা লন্ডনে, খালেদা সৌদিতে আর এরশাদ ভারতে

বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এবং ইউনিসেফের উদ্যেগে লন্ডনে আয়োজিত আন্তর্জাতিক সামিট সম্মেলনে যোগ দিতে তিন দিনের সফরে সোমবার লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

 

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া শনিবার রাতে পবিত্র ওমরা পালনে যাচ্ছেন সৌদি আরবে। আর প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রোববার যাচ্ছেন ভারতে। তিন দলের প্রধানদের এই সফরকে ঘিরে দেশের রাজনীতিতে চলছে নানা আলোচনা-পর্যালোচনা। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, শীর্ষ এই তিন নেতার সফরে রাজনীতিতে ঘটতে পারে নতুন মেরুকরণ।

 

লন্ডনে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
আগামী ২১ জুলাই সোমবার সকাল ১০টায় বিমানের বিজি-০০৬ ফ্লাইটে ঢাকা ছাড়বেন প্রধানমন্ত্রী ও তার নেতৃত্বাধীন প্রতিনিধি দল। স্থানীয় সময় বিকাল সাড়ে ৩টায় লন্ডন হিথরো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা রয়েছে তার।

 

প্রতিনিধি দলে থাকছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচএম মাহমুদ আলী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মেহের আফরোজ চুমকিসহ অন্যান্য সরকারি কর্মকর্তা। সাংবাদিকদের একটি দলও প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গী হচ্ছেন।

 

মেয়েদের বিরুদ্ধে সামাজিক অপরাধ প্রতিরোধে তার নিজের ভাবনা, বাংলাদেশে নারীর ক্ষমতায়নে তার সরকারের চলমান প্রচেষ্টার কথা ওই সম্মেলনে তুলে ধরবেন প্রধানমন্ত্রী।

 

এছাড়া তিন দিনের সফরের দ্বিতীয় দিন মঙ্গলবার যেকোনো সময় বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের সঙ্গে একান্ত বৈঠকে মিলিত হওয়ারও কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার। সম্মেলন শেষে মঙ্গলবার বিকেলেই যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আয়োজিত এক ইফতার মাহফিলে যোগ দিবেন প্রধানমন্ত্রী।

 

সৌদিতে মিলিত হচ্ছে জিয়া পরিবার
পবিত্র ওমরা হজ পালনে সৌদি আরব যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। শনিবার রাতে তিনি মক্কার উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

 

চেয়ারপারসনের প্রেস উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবীর খান জানান, সৌদি আরবে ইবাদত বন্দেগির মাধ্যমে খালেদা জিয়া রমজানের দিনগুলো কাটাবেন। পবিত্র কাবা শরিফে ওমরা করার পাশাপাশি ইতেকাফ করবেন খালেদা জিয়া। আগামী ২৬ রমজান রাতে তার ঢাকা ফেরার কথা রয়েছে।

 

এদিকে, প্রায় সাত বছর পর বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের পুরো পরিবার মিলিত হতে যাচ্ছে। খালেদা জিয়া সৌদি আরব পৌঁছার দিন অথবা পরদিন বর্তমানে লন্ডনে চিকিৎসাধীন বড় ছেলে তারেক রহমান তার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে সৌদি আরব যাবেন। তার সঙ্গে থাকবেন স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান ও একমাত্র কন্যা জাইমা রহমান। এ ছাড়াও বর্তমানে মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বিএনপি প্রধানের ছোট ছেলে আরাফাত রহমান কোকো স্ত্রী শর্মিলা রহমান ও তাদের দুই কন্যা নিয়ে সৌদি আরবে মায়ের সঙ্গে মিলিত হবেন।

 

প্রসঙ্গত, ২০০৭ সালের ৭ মার্চ গ্রেফতার হন তারেক রহমান। একই বছরের ৩ সেপ্টেম্বর ভোরে সেনানিবাসের বাড়ি থেকে খালেদা জিয়ার সঙ্গে গ্রেফতার হন কোকো। ২০০৮ সালের ১৭ জুলাই জামিনে মুক্তি পাওয়ার পরদিন চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ড যান কোকো। সেই বছরেরই ১১ সেপ্টেম্বর তারেক রহমান চিকিৎসার জন্য লন্ডন যান। সেই থেকে তারেক লন্ডনে স্ত্রী ডা. জোবায়দা রহমান ও কন্যা জাইমা রহমানকে নিয়ে বসবাস করছেন। এরপর লন্ডন থেকে তিনি বেরও হয়েছেন বিভিন্ন কারণে। সেখানে তার চিকিৎসা চলছে বলে দাবি করে তার দল।

 

অন্যদিকে, একটি মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পর থাইল্যান্ড থেকে মালয়েশিয়ায় চলে আসেন কোকো। সেই থেকে এখানেই তার অবস্থান। তবে ২০১২ সালে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়া সিঙ্গাপুরে গেলে সেখানে কোকোর সঙ্গে তার দেখা হয়। পরে একই বছরে খালেদা জিয়ার সঙ্গে লন্ডনে তারেক রহমানেরও সাক্ষাত হয়। তবে ১/১১’র পর একত্রে পুরো পরিবারের আর দেখা হয়নি।

 

সবশেষ গত মাসে চিকিৎসার জন্য খালেদা জিয়া সিঙ্গাপুরে যাচ্ছেন এবং সেখানে পুরো পরিবারের সাক্ষাৎ হবে গণমাধ্যমে এমন খবর প্রকাশ হলেও তা বাস্তবে হয়নি। কারণ তিনি (খালেদা) সিঙ্গাপুরেই যাননি।

 

এরশাদ যাচ্ছেন ভারতে
ছয় দিনের সফরে হঠাৎ করেই ভারতে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। রোববার তিনি ভারতের উদ্দেশে ঢাকা ত্যাগ করবেন। ফিরবেন ২৫ জুলাই। এরশাদের ব্যক্তিগত সহকারী ও দলের কোষাধ্যক্ষ মেজর (অব.) খালেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

 

এরশাদের সঙ্গে যাচ্ছেন তার শিশু পুত্র এরিখ এরশাদ, দলের মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি ও তার ব্যক্তিগত সহকারী আবদুল ওহাব। উঠবেন ভারতের কুচবিহারে অবস্থিত পৈত্রিক আদি নিবাসে।

 

দলের ঘনিষ্ঠ সূত্র জানিয়েছে, ভারতে ব্যক্তিগত সফরের পেছনে রয়েছে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য। এ সময় জাতীয় পার্টির পক্ষে জনমত গঠন এবং ভারতের বর্তমান সরকারের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করতে পারেন এরশাদ। এছাড়া ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গেও তার দেখা সাক্ষাতের কথা রয়েছে।

 

প্রসঙ্গত, ভারতের নরেন্দ্র মোদির নতুন সরকার আমলে সাবেক রাষ্ট্রপতির এটিই প্রথম সফর।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments