রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
spot_img
Homeকক্সবাজারচকরিয়ায় রাতভর দু’গ্রুপের ভয়াবহ বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১॥ গুলীবিদ্ধ আটক ৫॥ ৩টি বন্দুক...

চকরিয়ায় রাতভর দু’গ্রুপের ভয়াবহ বন্দুকযুদ্ধে নিহত ১॥ গুলীবিদ্ধ আটক ৫॥ ৩টি বন্দুক উদ্ধার

চকরিয়া উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের মধ্যে রাতভর ভয়াবহ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থলে জাহেদুল আলম (২৪) নামের এক যুবক নিহত হয়েছে। নিহত যুবক সওদাগরঘোনার বটতলীর নুর আহমদের পুত্র। ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ ২টি দেশীয় তৈরি লম্বা বন্দুক, ১টি রাইফেল ও ৪টি কিরিচ উদ্ধার করা হয়। আটক করা হয় গুীলবিদ্ধসহ ৫জনকে।

 

স্থানীয় সূত্রের দাবি, ঘটনাটি জমির বিরোধ নিয়ে সংঘটিত হয়েছে। অপরদিকে পুলিশের দাবি, উভয় গ্রুপ সন্ত্রাসী। তারা আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা চালাতে গিয়ে বন্দুকযুদ্ধসহ হতাহতের ঘটনা ঘটায়।
সূত্রে জানা যায়, উপজেলার চিরিঙ্গা ইউনিয়নের সওদাগর ঘোনা এলাকার জাহাঙ্গীর ও একই ইউনিয়নের চরণদ্বীপ ৯১একর এলাকার আতাউল্লাহ গ্রুপের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল।

 

গত ১১ডিসেম্বর’১৪ আতাউল্লাহ গ্রুপ জাহাঙ্গীর গ্রুপকে ধাওয়া করে। পরেরদিন জাহাঙ্গীর অধিক অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে চিংড়ি ঘেরের একটি বাসায় অবস্থান নিয়ে আতাউল্লাহ বাহিনীর উপর হামলা চালায়। এতে জাহাঙ্গীর বাহিনীর প্রচন্ড গোলাগুলীর তোপের মুখে আতাউল্লাহ বহিনীর লোকজন অন্ধকারে গা ঢাকা দিয়ে পালিয়ে যায়। এসময় আতাউল্লাহ ও শফি আলমের দুইটি বসতঘর এবং একটি খড়ের গাদা পুড়িয়ে দেয়। এরপর জাহাঙ্গীরগং আতাউল্লাহর পিতা আব্দুছালাম সওদাগরের বাড়িতে এলোপাতাড়ি গুলী করে ভাংচুর ও লুটপাট চালিয়েছিল। এ তান্ডবে আব্দুছালাম সওদাগরের দুই কিশোরী কন্যা ফাতেমা (১৫) ও মোতাহেরা (১২) গুলীবিদ্ধ হয়ে মারাত্মক আহত হয়েছিল।

 
ওই ঘটনার জের ধরে বুধবার দিবাগত রাত ১২টার পর থেকে দু’গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়াসহ বন্দুকযুদ্ধ চলে। তুমুল সংঘর্ষের এক পর্যায়ে ভোররাতে জাহাঙ্গীর গ্রুপের জাহেদ নামের একজন নিহত হয়। নিহতের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে দুই পরে মধ্যে ফের গুলী বিনিময়ের ঘটনা ঘটে।

 
এদিকে সংবাদ পেয়ে এএসপি সার্কেল মোহাম্মদ মাসুদ আলম ও চকরিয়া থানার ওসি প্রভাষ চন্দ্র ধরের নেতৃত্বে একদল পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আতাউল্লাহ বাহিনীর আতাউলাহ (৪৫), আব্দুস সালাম (৩৭), আব্দুল গনি ও সিরাজুল ইসলাম (৩৮)কে গুলীবিদ্ধ অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে আটক করে। ঘটনাস্থল থেকে ২টি দেশী তৈরি লম্বা বন্দুক ও ১টি রাইফেল এবং ৪টি কিরিচ (দা) উদ্ধার করে পুলিশ।

 
অন্যদিকে লাশ ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। ঘটনাস্থল ত্যাগ করে লাশ নিয়ে থানায় ফেরার পথে পুলিশ কফিল উদ্দিন নামের আরো একজনকে আটক করে। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত দু’গ্রুপের বন্দুকযুদ্ধে হতাহতের ঘটনায় চরণদ্বীপ চিংড়ি জোনে থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে বলে জানা গেছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments