শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
spot_img
Homeজেলাবেগমগঞ্জে অবরোধকারী-পুলিশ ব্যাপক সংঘর্ষ, ব্যবসায়ীসহ নিহত ২

বেগমগঞ্জে অবরোধকারী-পুলিশ ব্যাপক সংঘর্ষ, ব্যবসায়ীসহ নিহত ২

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার চৌমুহনী শহরে পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের দফায় দফায় সংঘর্ষে  এক ব্যবসায়ীসহ দুজন নিহত হয়েছেন। এ সময় পাঁচজন গুলিবিদ্ধসহ আহত হয়েছেন কমপক্ষে ৫০ জন।
নিহত ব্যবসায়ীর নাম মিজানুর রহমান রুবেল (৩০)। তিনি সেনবাগ উপজেলার ৯ নম্বর শিবপুর ইউনিয়নের গোপালপুর গ্রামের তোফায়েলের ছেলে। অন্যজন হলেন বিএনপির কর্মী মহসিন (৩০)। তার বাড়ি বেগমগঞ্জের হাজিপুর গ্রামে। সংঘর্ষের সময় পাঁচটি মোটরসাইকেলে আগুন লাগানো ও বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর করা হয়।
স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার সন্ধ্যার আগে ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা অবরোধের সমর্থনে চৌমুহনীতে মিছিল বের করেন। মিছিলটি রেলগেটে পৌঁছালে পুলিশ তাতে বাধা দেয়। এ সময় পুলিশের সঙ্গে অবরোধকারীদের সংঘর্ষের শুরু হয়।
অবরোধকারীদের ধাওয়ার মুখে পুলিশ পিছু হটে যায়। পরে চৌমুহনী শহরে ব্যাপক তাণ্ডব চলে। এ সময় মাই টিভির নোয়াখালী প্রতিনিধি গিয়াস উদ্দিন মিঠু ও পুলিশের দুটি মোটরসাইকেলসহ পাঁচটি মোটরসাইকেলে আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়।
বড় বড় বৈদ্যুতিক খুঁটি ফেলে সড়কে অবরোধ সৃষ্টি করে একাধিক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে ভাঙচুর চালায় অবরোধকারীরা।পরে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে ফাঁকা গুলি ছুড়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। এ ঘটনার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকাল-সন্ধ্যা হরতাল ডেকেছে জেলা বিএনপি।
আহতদের মধ্যে বেগমগঞ্জ মডেল থানার ওসি (তদন্ত) জসিম উদ্দিন, চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ জিসান আহম্মদ, চৌমুহনীর টিএসআই সাইফুল সিকদারও রয়েছেন। চৌমুহনী শহরের পরিস্থিত থমথমে। শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক বাবু কামাঙ্কা চন্দ্র দাস নিহত রুবেলকে যুবদলের কর্মী বলে দাবি করেন। তিনি বৃহস্পতিবার হরতালের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, “আমাদের শান্তিপূর্ণ মিছিলে পুলিশ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা অতর্কিতে হামলা চালায়। এ সময় গুলিবিদ্ধ হয়ে যুবদলের কর্মী রুবেল নিহত ও অর্ধশত নেতাকর্মী আহত হয়।”
বেগমগঞ্জ থানার পরিদর্শক ওসি তদন্ত জসিম উদ্দিন দাবি করেন, মিছিল করে যাওয়ার সময় বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল ছোড়েন। নিরাপত্তার স্বার্থে পুলিশ নিরাপদ স্থানে অবস্থা করে। বিএনপির কর্মীরা এসপি সার্কেলকে গাড়িসহ অবরুদ্ধ করে রাখেন। তখন পুলিশ নিরাপত্তার স্বার্থে গুলি করে। সেখান থেকে ১৬ জনকে আটক করা হয়।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments