শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
spot_img
Homeকুমিল্লাচৌদ্দগ্রামে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের বাড়িতে গভীর রাতে পুলিশী তান্ডব

চৌদ্দগ্রামে জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের বাড়িতে গভীর রাতে পুলিশী তান্ডব

কুমিল্লা চৌদ্দগ্রাম উপজেলার বিভিন্ন স্থানে গভীর রাতে জামায়াত- শিবিরের নেতাকমীদের বাড়িতে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করে  তান্ডব চালিয়েছে পুলিশ  অভিযোগ জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীদের।এসময় তারা আশে পাশে ৬টি বাড়ি ভাংচুর করে। সবমিলিয়ে ২০ লক্ষ টার ক্ষয়ক্ষতি। শুক্রবার রাত প্রায় ১ টার থেকে এ ঘটনা ঘটে।

 
জানা যায়, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা বাতিসা ইউনিয়নের দূর্গাাপুর গ্রামের মীর হোসেনের ছেলে  কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রশিবিরের সেক্রেটারী আমজাদ হোসাইন রুমনের বাড়ীতে যায় পুলিশ।তাকে না পেয়ে  তার বাবা-মাকে লাঞ্জিত করে। এসময় তাদের ঘরে থাকা আসবাব পত্র ব্যপক ভাংচুর করে ও লুটপাট করে।

 

শিবির সেক্রেটারী রুমনের মা নিলুফা ইয়াছমিন জানান, রাত ১টা দিকে কোন কিছু বুঝে উঠার আগে কে বাকারা বাড়ীর ঘরের জানালার কাছ ভাংচুর করতে থাকে, এই সময় জানতে চাইলে তারা পুলিশ বলে জানায়। এর পর ঘরের দরজা খুলে দেখী পুলিশের অনেক পুলিম বাড়ীর উঠানে দাড়িয়ে আছে এবং আমাকে অসভ্যভাষায় কথা বার্তা বলে।

 

কিছু পুলিশ ঘরে প্রবেশ করে ঘরে থাকা টিভি, আলমারি শোকেজ, আমার ছেলের বই পস্তুকের আলমিরা, বাথরুমের বেসিন সহ আন্যান জিনিস পত্র ব্যাপক ভাংচুর করতে থাকে, আমি বাধাঁ দিলে আমাকে ও আমার স্বামীকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।  এতে আমার  ৫ লক্ষধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়।

এছাড়াও উপজেলার একই ইউনিয়নের কালিকসার গ্রামের জামায়াত সমর্থক হোসেন বাড়ীতে তান্ডব চালানোর অভিযোগ পাওয়া য়ায়। অভিযোগ কারী হোসেন বলেন আমার ঘরে থাকা সম¯ আসবাব পত্র ভাংচুর ও ঘরে থাকা ল্যাপটপ, স্বর্ন অলংকার লুট করে।

 
একই ইউনিয়নের পরিষদ মেম্বার মোতাহের হোসেন ও আব্দুল করিম বাদলের বাড়ীতেও ব্যপক ভাংচুরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। মোতাহের মেম্বার জানান যৌথ বাহিনী আমাকে খুজতে এসে না পেয়ে অমার বাড়ী-ঘরের আসবাব পত্র ব্যপক ভাংচুর করে।

 
উপজেলার পৌরসভা শিবির কর্মী মাহমুদুল হাসানের বাড়ী ঘর ভাংচুর করে বলে সে অভিযোগ করে। সে জানায় আমাকে খুজতে এসে না পেয়ে আমার চাচা ও তার ছেলেকে পুলিশ নিয়ে যায়।
এছাড়া বাতিসা ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামে শিবির নেতা নাজমুল ও বেলায়েতের বাড়ীতে হামলার আভিযোগ করে পাওয়া গেছে।

 
চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি উত্তম কুমার জানান, ভাংচুরের কোন অভিযোগ আমার কাছে আসেনি, অমার জানা নেই। পুলিশ কোন তান্ডব চালায়নি।

 
চৌদ্দগ্রাম উপজেলা আমীর শাহব উদ্দিন জানান, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারী হয়ে আজ পুলিশ আওয়ামী কর্মীদের ভূমিকায় দেখা যাচ্ছে, যা আজও কাম্য নয়। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই । অভিলম্বে এই তান্ডবের সুষ্ঠু তদন্তপূর্বক ব্যাবস্থা গ্রহনের জন্য প্রসাশনের প্রতি আহ্ববান জানাই।

 
এই দিকে চৌদ্দগ্রামে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা শিবির সেক্রেটারি আমজাদ হোসাইন রুমন ও বাতিসা ইউপি মেম্বার মোতালেব হোসেন ও আব্দুল কারিম বাদলসহ জামায়াত-শিবির নেতা কর্মীদের বাড়ী গভীর রাতে হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ও সাবেক কুমিল্লা-১১ চৌদ্দগ্রাম আসনের সাবেক এমপি ডা. সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ তাহের, কুমিল্লা মহানগর জামায়াতের আমীর কাজী দ্বীন মোহাম্মদ, সেক্রেটারি মাষ্টার মোসলে উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা জামায়াতের আমীর মুক্তি যুদ্ধা আব্দুস সাত্তার, সেক্রেটারি খন্দকার দেলোয়ার হোসেন, মাহানগর শিবির সভাপতি মু.শাহ আলম, সেক্রেটারি কামাল হোসেন, দক্ষিণ জেলা সভাপতি আব্দুর রব ফারুকী, উত্তর জেলা শিবির সভাপতি মনিরুজ্জামান, চৌদ্দগ্রাম উপজেলা জামায়াতের আমীর সাহাব উদ্দিন, সেক্রেটারি শাহ মু. মিজানুর রহমান।

 

নেতৃবৃন্দরা এই নেক্কার জনক ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার সম্পূর্ন অন্যায় ভাবে জনগনের গণ জোয়ার কে বাধাঁ দিতে না পেরে পেশি শক্তি ব্যবহার করে ক্ষমতায় ধরে রাখতে চায়।

 

এরই ধারা বাহিকতায় শুক্রবার রাতে চৌদ্দগ্রাম ঘুমন্ত জামায়াত শিবির নেতা কর্মীদের পরিবারের উপর জুলুম নির্যাতন চালাচ্ছে। আমরা এর শেষ দেখতে চাই। জনগনের গণজোয়ারে এই সরকারের ক্ষমতার মসনধ ভেঙ্গে গনতন্ত্রের মুক্তি পাবে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments