ধরঞ্জী আইপিএম বহুমূখী সমবায় সমিতি লিঃ কৃষক ও কৃষির কাজে এলাকায় সাড়া জাগিয়েছে

২০০৪ সালের পাঁচবিবি উপজেলা ধরঞ্জী ইউনিয়নের ধরঞ্জী গ্রামে ডিএই-ডানিডা’র প্রকল্পের আওতায় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পাঁচবিবি উপজেলার সহযোগিতায় সম্মন্বিত বালাই ব্যবস্থাপনার উপর ২০জন কৃষক কৃষাণীকে নিয়ে ১৪ সপ্তাহের এক কৃষক মাঠ স্কুলে মাধ্যমে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে।

এরপর ১লা জানুয়ারী /০৪ সালে এলাকার ২৩ জন কৃষক কৃষাণীকে নিয়ে ধরঞ্জী ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে বৈঠকে মাসিক ৫০ টাকা চাঁদা দিয়ে ধরঞ্জী আই পিএম কৃষক ক্লাব সংগঠনের যাত্রা শুরু করে।

২০০৯ সালে হঠাৎ একদিন একটি সাধারণ সভার মাধ্যমে বৈঠকে ওরা সিদ্ধান্ত নেয় যে, আর্ত মানবতার সেবায় কাজ করতে হবে। এসবের মন মানসিককা নিয়ে গ্রামীণ কৃষক ও কৃষাণীর উন্নয়ন প্রচেষ্ঠা’র “ আই,পি,এম” নাম ধারন করনের এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে ২০০৯ সালের ১৯ই নভেম্বর জয়পুরহাট জেলা সমবায় অধিদপ্তর থেকে রেজিস্ট্রেশন করে (যার নং-৯৬/২০০৯)।

এর পর এলাকায় আয় বর্ধন মূলক ছোট ছোট প্রকল্পের মাধ্যমে ধরঞ্জী আইপিএম বহুমূখী সমবায় সমিতি লিঃ নামে সমিতির  প্রসার ঘটে। কোন সরকারাী-বে-সরকারী সংস্থার সাহায্য ছাড়াই ধরঞ্জী আইপিএম বহুমূখী সমবায় সমিতি লিঃ অতি অল্প সময়ে যে সব প্রকল্প হাতে নিয়ে কাজ করছে, তার মধ্যে রয়েছে অত্র এলাকার কৃষক কৃষাণীর মাঝে বয়স্ক শিক্ষা কার্যক্রম।

যার মাধ্যমে অত্র ইউনিয়নের নিরক্ষর কৃষক কৃষাণীরা শেষ বয়সে শিক্ষা গ্রহণ করতে পেরেছে। শুধু তাই নয় ধরঞ্জী আইপিএম বহুমূখী সমবায় সমিতির মাধ্যমে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর পাঁচবিবি উপজেলার ধরঞ্জী ইউনিয়নের উপ-সহকারী কৃষি অফিসারের পাশাপাশি এলাকার কৃষকদের উদ্ধৃত্ত করে কৃষি বিষয়ক পরামর্শ যেমন, জমিতে লাইন করে ধানের চারা রোপন, পোকা দমনে জমিতে ডাল পোতা, আলোর ফাঁদ ব্যবহার, সঠিক সময়ে সঠিক পদ্ধতিতে বালাই নাশক ও সুষম সার জমিতে প্রয়োগ, বাড়ী আনাচে কানাচে পতিত জমিতে কৃষানীদের মৌসুমী শাক সবজির চাষের পরামর্শ দিচ্ছেন।

এ ছাড়াও সমিতির অতি দরিদ্র সদস্যদের মাঝে সাহায্য প্রদান, এলাকার বিভিন্ন মসজিদ ক্লাব সমিতে খেলাধুলার সামগ্রী বিতরণ এবং সামর্থ্য অনুযায়ী ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন। শুধু তাই নয়, কৃষি বিভাগের বিভিন্ন সময়ের ইদুর নিধন অভিযান সহ জাতীয় দিবস সহ অন্যান্য কার্যক্রমে সক্রিয় ভাবে অংশগ্রহন করে।

বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ, নারী নির্যাতনসহ  বিভিন্ন সামাজিক কার্যাবলীতে তারা পিছিয়ে নেই। গ্রামের সাধারণ কৃষক ও কৃষানী ছাড়াও এক ঝাক শিক্ষিত যুবক নিজের বেকারত্ব দূরীকরণের লক্ষ্যে এই সমিতিতে জীবিকার মাধ্যম হিসাবে বেছে নিয়েছে।

শুধু তাই নয় ধরঞ্জী আই পি এম সদস্য সদস্যাদের সাপ্তাহিক, মাসিক জমা কৃত সঞ্চয়ের অর্থ থেকে  নিজেরা ঋন নিয়ে সাবল্মবী হচ্ছেন। এ বিষয়ে সমিতির সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক বলেন, বর্তমানে দেশে চাকুরীর যে, অবস্থা তাতে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।