শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
spot_img
Homeজাতীয়আইসিসি সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন মুস্তফা কামাল

আইসিসি সভাপতি পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন মুস্তফা কামাল

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সভাপতি (প্রেসিডেন্ট) পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি বুধবার দুপুরে অস্ট্রেলিয়া থেকে দেশে ফিরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সংবাদ সম্মেলন করে এই ঘোষণা দেন।

 

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আজ এই মুহূর্ত থেকে আমি আর আইসিসির সভাপতি নই। আমার দেশের সম্মানের কথা বিবেচনায় রেখে আমি পদত্যাগ করলাম। এখন থেকে আমার সকল বক্তব্য সাবেক সভাপতি হিসেবে বিবেচনা করা হবে।’

 

উল্লেখ্য, গত বছর মুস্তফা কামাল দায়িত্ব গ্রহণের আগেই আইসিসি সভাপতির প্রায় সব নির্বাহী ক্ষমতা কেড়ে নেয়া হয়েছে। নির্বাহী ক্ষমতা সম্পন্ন চেয়ারম্যানের একটি পদ নতুনভাবে সৃষ্টি করা হয়েছে, যে পদে আছেন ভারতের নারায়ণস্বামী শ্রীনিবাসন।

 

এবারের একাদশ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনালে ১৯ মার্চ বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে আম্পায়ারদের তিন তিনটি সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের বিপক্ষে যায়। এতে ভারতের কাছে ১০৯ রানে হেরে টাইগারদের স্বপ্নভঙ্গ হয়। ওইদিনই আম্পায়ারের ভূমিকার কঠোর সমালোচনা করেন আইসিসি সভাপতি আ হ ম মুস্তফা কামাল। তিনি আইসিসিরও কড়া সমালোচনা করেন।

 

মুস্তফা কামালের এই এসব বক্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখান আইসিসির অন্য কর্মকর্তারা। এরপর গঠনতন্ত্র উপেক্ষা করে ফাইনালে বিজয়ী দলের হাতে ট্রফি তুলে দেন ভারতের শ্রীনিবাসন। সেদিন বিশ্বকাপের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে আইসিসি সভাপতি মুস্তফা কামালকে যেতে দেয়া হয়নি। এ ঘটনায় সংবাদ সম্মেলনে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেন মুস্তফা কামাল। তিনি শ্রীনিবাসনের বিরুদ্ধে আইসিসির গঠনতন্ত্র লঙ্ঘনের অভিযোগ করেন।

 

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচে কী হয়েছে, তা বিশ্ববাসী দেখেছেন। সেদিন আমি যা বলেছি, তা বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের বক্তব্য। আমি তা প্রত্যাহার করব না, আমি পদত্যাগ করব।’ ‘আইসিসি এবারের বিশ্বকাপের ফাইনালে যে আচরণ করেছে, তা সংগঠনের সংবিধানের পরিপন্থি। আমি সংবিধান বিরোধী কোনো সংস্থার সঙ্গে থাকতে পারি না।’

 

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আইসিসির সংবিধানের ৩.৩ নম্বর ধারা অনুযায়ী বিশ্বকাপের ফাইনালের মতো টুর্নামেন্টে বিজয়ী দলের হাতে ট্রফি দেওয়ার অধিকার কেবল সভাপতিরই আছে। কিন্তু আমাকে সেটি করতে দেয়া হয়নি।’ আইসিসির ভেতরে কী হয় তা বিশ্ববাসীকে জানাতেই তিনি এই পদত্যাগ করেছেন বলেও জানান সরকারের প্রভাবশালী এই মন্ত্রী।

 

তিনি অভিযোগ করেন, ‘বাংলাদেশ-ভারতের মধ্যকার বিশ্বকাপ কোয়ার্টার ফাইনালের ম্যাচেই প্রথম স্পাইডার ক্যামেরা ছাড়া খেলা হয়েছে। জায়ান্ট স্ক্রিনে বিতর্কিত সিদ্ধান্তগুলোর রিপ্লে পর্যন্ত দেখানো হয়নি।’

 

তিনি বলেন, ‘সেদিনের খেলায় আমি মাঠে ছিলাম। মেলবোর্নের মতো মাঠে প্রথম খেলা হলো স্পাইডার ক্যামেরা ছাড়া। জায়ান্ট স্ক্রিনে ‘জিতেগা ভাই জিতেগা/ইন্ডিয়া জিতেগা দেখানো হলো।’ আমি আইসিসির সিইও‘কে বললাম এটা বন্ধ করতে, কিন্তু তা করা হলো না।’

 

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘আমাদের অধিকার কেড়ে নেওয়া হচ্ছে। আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করেছি, এর বিচার যেন আমরা পাই।’ ‘ক্রিকেট একটি গৌরবময় খেলা। সেটিকে কলুষিত করা হয়েছে। এ ধরনের কলঙ্কের সঙ্গে আমি থাকতে পারি না। এজন্য সত্য এবং ক্রিকেটকে বিজয়ী করতে পদত্যাগ করেছি।’ ‘আইসিসির একটি আইন রয়েছে। সেখানে একজন প্রেসিডেন্টের কী দায়িত্ব তাও বলা রয়েছে। কিন্তু প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কী আচরণ করা হয়েছে, তা সবাই জানেন।’

 

২০১৫ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার ফাইনাল ম্যাচের আগে ১০ মার্চ বিশ্বকাপ উপলক্ষে অস্ট্রেলিয়ায় যান আ হ ম মুস্তফা কামাল।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments