শনিবার, ডিসেম্বর 4, 2021
শনিবার, ডিসেম্বর 4, 2021
শনিবার, ডিসেম্বর 4, 2021
spot_img
Homeফেনীআতংকে মূহুরী-কহুয়া পাড়ের মানুষ

আতংকে মূহুরী-কহুয়া পাড়ের মানুষ

আতংকে ফেনীর উত্তরাঞ্চলের মূহুরী-কহুয়া নদী পাড়ের মানুষ। চলতি মৌসুমে টানা বর্ষন ও ভারতের পাহাড়ী ঢলের পানিতে মূহুরী কহুয়া নদীর ৩টি অংশে পাড় ভেঙ্গে ফুলগাজী-পরশুরাম উপজেলার ২০ গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি কাটিয়ে উঠার পর আবারও বেড়িবাঁধের  কয়েকটি স্থানে ফাটল দেখা দেওয়ায় আতংকে দিন কাটছে মূহুরী-কহুয়া নদী পাড়ের মানুষদের।

 

জানা গেছে,পরশুরামের ভারত সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে প্রবাহিত হচ্ছে মূহুরী-কহুয়া ও সিলোনিয়া নদী। পরশুরাম ও ফুলগাজী উপজেলার প্রায় ৪০ টি গ্রামের উপর দিয়ে বয়ে গেছে  নদী ৩টি। পরশুরাম উপজেলার কোলাপাড়া, বেড়াবাড়িয়া, বাউরখুমা, খোন্দকিয়া, অলকা, নোয়াপুর,দূর্গাপুর, মালিপাথর, শালধর, রামপুর, ধনীকুন্ডা, ফুলগাজী উপজেলার পশ্চিম ঘনিয়া মোড়া, পূর্ব ঘনিয়া মোড়া,জয়পুর, সাহাপাড়া, বৈরাগপুর, বরইয়া, দক্ষিন দৌলতপুর, উত্তর দৌলতপুর, পেচিবাড়িয়া, কহুমা সহ প্রায় ৪০ গ্রামের মানুষ আবারও বন্যার আশংকায় দিন কাটাচ্ছেন।

 

ফুলগাজীর দক্ষিন দৌলতপুর, বরইয়া, জগতপুর ও পরশুরামের শালধরসহ বিভিন্ন স্থানের বেড়িবাঁধে ফাটল ও বাঁধ ভেঙ্গে ধসে পড়ায় আতংকে রয়েছেন এলাকাবাসী। দেখা দিয়েছে মূহুরী কহুয়া নদীর বেড়িবাঁধের কয়েকটি স্থানে ফাটল। যে কোন সময় ধসে পড়তে পারে এসব বেড়িবাঁধ।

 

এলাকাবাসীর অভিযোগ, বেড়িবাঁধ তৈরির সময় নদী থেকে উত্তোলিত বালু ব্যবহার করা হয়েছে। বেড়িবাঁধের গোড়া থেকে বালু উত্তোলন করে বাঁধ নির্মান করায় বৃষ্টি ও বন্যার পানিতে বাঁধ ভেঙ্গে পুনরায় গর্ত তৈরি হচ্ছে ও ফাটল দেখা দিচ্ছে। সিডিউল মত মাটি না দেওয়া ও দায়সারা ভাবে কাজ করায় বেড়িবাঁধের  বিভিন্ন অংশে ফাটল দেখা দিচ্ছে। এর জন্য এলাকাবাসী পানি উন্নয়ন বোর্ডের অসাধু কর্মকর্তা ও ঠিকাদারদের দায়ি করেছেন।

 

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, পরশুরামের শালধর, ধনীকুন্ডা, ফুলগাজীর দক্ষিন দৌলতপুর, দক্ষিন বরইয়া, জয়পুর ও কিসমত ঘনিয়ামোড়াসহ বেড়িবাঁধের বেশ কিছু অংশে ফাটল দেখা দিয়েছে। এ ফাটলগুলো ভাঙ্গনে রুপ নিলে চিথলিয়া ইউনিয়ন, ফুলগাজী উপজেলা পরিষদ, ফুলগাজী থানা, ফুলগাজী বাজার, আমন ফসল, মৎস খামারসহ পরশুরাম ফুলগাজী উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়ে ফেনী-পরশুরাম আঞ্চলিক মহসড়কে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।

 

ফেনী পানি উন্নয়ন বোর্ডেও নির্বাহী প্রকৌশলী রমজান আলি প্রামানিক জানান, মূহুরী-কহুয়া নদীর বেড়িবাঁধের ফাটল ধরা অংশগুলো শীঘ্রই মেরামত করা হবে।

 

এলাকাবাসীর দাবি, পুনরায় বন্যা আসার আগেই বেড়িবাঁধগুলো মেরামত করা হোক।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments