অত্যাধুনিক সশস্ত্র ড্রোনের মালিক হয়ে ভারতকে পিছনে ফেলল পাকিস্তান

অত্যাধুনিক সশস্ত্র ড্রোনের মালিক হল পাকিস্তান। যদিও ইসলামাবাদের দাবি, এই নতুন ড্রোন ‘বারাক’ পুরোপুরি পাক প্রযুক্তিতেই তৈরি। কিন্তু তা মানতে নারাজ পশ্চিমি দেশগুলির প্রতিরক্ষা বিশেষজ্ঞরা। তবে যে কারখানাতেই ‘বারাক’ তৈরি হয়ে থাক, তার দৌলতে কিন্তু ড্রোন সমরকৌশলের অভিজাত ক্লাবে ঢুকে পড়ল ইসলামাবাদ।

 

পাকিস্তানের তরফে জানানো হয়েছে, রবিবার আফগান সীমান্তের কাছে সশস্ত্র ড্রোন ‘বারাক’ জঙ্গি ডেরায় হামলা চালিয়েছে। বারাক থেকে ছোড়া লেসার-নিয়ন্ত্রিত ক্ষেপণাস্ত্র তিন জন জঙ্গির প্রাণও নিয়েছে। বারাকের মতো অত্যাধুনিক ড্রোন হাতে আসার কথা পাকিস্তান অবশ্যর আগেই জানিয়েছিল।

 

গত মার্চেই ইসলামাবাদ ঘোষণা করে, বারাক থেকে নিক্ষেপ করা হবে ‘বার্ক’ ক্ষেপণাস্ত্র। আঘাত হানা হবে নির্ভুল লক্ষ্যেে। আর জানানো হয়েছিল, সব ধরনের আবহাওয়াতেই কাজ করতে সক্ষম বারাক। এর বাইরে বারাকের ক্ষমতা বা প্রযুক্তিগত খুঁটিনাটি নিয়ে আর একটি শব্দও খরচ করতে চায়নি পাকিস্তান।

 

রবিবারের অভিযানে বারাকের সাফল্যেশর কথা তুলে ধরলেও, এর প্রযুক্তিগত বিষয় নিয়ে পাক সেনার মুখপাত্ররা এখনো মুখ খোলেননি।

 

চালকহীন বিমান এখন আর বিশ্বের কাছে নতুন কিছু নয়। অনেক দেশের হাতেই এই প্রযুক্তি রয়েছে। তবে নজরদারির কাজেই তা মূলত ব্যএবহৃত হয়। হাতে গোনা কয়েকটি দেশ যুদ্ধে হামলা চালানোর কাজে ড্রোন ব্যেবহার করে। সশস্ত্র ড্রোন ব্যমবহারকারীদের তালিকায় এতদিন ছিল শুধুমাত্র আমেরিকা, ইসরাইল, ব্রিটেন এবং নাইজেরিয়া। এ বার পঞ্চম দেশ হিসেবে সেই ক্লাবে যোগ দিল পাকিস্তান।

 

পাকিস্তানের তরফে বার বার দাবি করা হচ্ছে, পাক বিজ্ঞানীরাই তৈরি করেছেন বারাক। কিন্তু, বারাকের প্রযুক্তিগত বিষয় নিয়ে পাকিস্তানের নীরবতা সন্দেহ বাড়িয়ে দিয়েছে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা বিশষজ্ঞদের।

 

লন্ডনের রয়্যােল ইউনাইটেড সার্ভিসেস ইনস্টিটিউটের ডিরেক্টর এলিজাবেথ কুইন্টানা খুব আত্মবিশ্বাস নিয়ে বললেন, ‘পাকিস্তান নিশ্চিত ভাবে চীনের সাহায্যে নিয়েছে।’

 

চীন তাদের সশস্ত্র ড্রোন সিএইচ-৩ যে বিদেশে রপ্তানি করছে, তা আগেই প্রকাশ্যে  এসেছিল। গত জানুয়ারিতে নাইজেরিয়ার বোর্নো প্রদেশে একটি সিএইচ-৩ ড্রোন ভেঙে পড়ে। ওই ড্রোনটির সাহায্যেএ নাইজেরিয়ার সরকার বোকো হারাম জঙ্গিদের ঘঁটিতে আক্রমণ চালাচ্ছিল। তখনই দুর্ঘটনা ঘটে। তাতেই জানা যায়, চিন নাইজেরিয়ার কাছে সশস্ত্র ড্রোন বিক্রি করেছে।

 

গত মাসে চীনের তরফে সে দেশের সরকারি সংবাদমাধ্যোম সিনহুয়াতে জানানো হয়, কিছু উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ড্রোন রপ্তানি করা সরকার বন্ধ করবে। কারণ, তা চীনের জাতীয় নিরাপত্তার পক্ষে উদ্বেগজনক হয়ে উঠতে পারে। এর থেকেই স্পষ্ট আগস্টের আগে পর্যন্ত চীন উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ড্রোন অন্যা দেশকে বিক্রি করেছে। আর পাকিস্তান গত মার্চেই জানিয়েছিল, তাদের অস্ত্রাগারে বারাকের অন্তর্ভুক্তির কথা।

 

সূত্র: ফাইন্যান্সিয়াল টাইমস, আনন্দবাজার পত্রিকা।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।