ভারত নূর হোসেনকে ফেরত পাঠাচ্ছে

ভারতের আদালত নারায়ণগঞ্জের সাত খুন মামলার আসামি নূর হোসেনকে বাংলাদেশের হাতে তুলে দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে। ভারতীয় ফৌজদারি কার্যবিধির ৩২১ ধারায় রাষ্ট্রপক্ষ আদালতে আবেদন জানালে শুক্রবার শুনানি শেষে   ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উত্তর ২৪ পরগনা জেলার বারাসাতের মুখ্য বিচারিক হাকিমের আদালতে এ নির্দেশ আসে।
এর আগে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় নূর হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের করা সব মামলা প্রত্যাহার করে তাকে নিজ দেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে। এর ফলে দ্রুততম সময়ের মধ্যে নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে বলে সেখানকার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, নূর হোসেনকে ভারত থেকে আনার ব্যাপারে সব ধরনের আইনগত জটিলতা শেষ হয়েছে। তাকে দেশে ফিরিয়ে আনার বিষয়টি এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

নারায়ণগঞ্জের কাউন্সিলর নজরুল ইসলাম, আইনজীবী চন্দন সরকারসহ সাতজনকে ২০১৪ সালের ২৭ এপ্রিল অপহরণ করে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় করা দুটি মামলার প্রধান আসামি কাউন্সিলর নূর হোসেন ঘটনার পরপরই ভারতে পালিয়ে যান। এরপর কলকাতা শহরের অদূরে বাগুইহাটি নামের একটি আবাসনে আশ্রয় নেন। সেখান থেকে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। অবৈধভাবে ভারতে অবস্থানের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা হয়।

বারাসাত পুলিশ জানায়, গত ১৮ আগস্ট এ মামলায় নূর হোসেনসহ তার সঙ্গে গ্রেপ্তার হওয়া আরও দুজনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দিয়েছে পুলিশ। আদালত অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করে। এরপর বাংলাদেশ সরকার নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠাতে অনুরোধ করে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় ভারতের কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয় ইতিমধ্যে নূর হোসেনকে মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়ে আইন মোতাবেক ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দেয়। পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ও নূর হোসেনকে অবিলম্বে মামলার দায় থেকে অব্যাহতি দিয়ে তাকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর নির্দেশ দেয়। এসব নির্দেশ আসার পর বারাসাতের সরকারি কৌঁসুলি এই মামলা থেকে নূর হোসেনকে অব্যাহতি দিয়ে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর জন্য আদালতে আবেদন জানান। গত ২১ সেপ্টেম্বর এই মামলার শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও মুখ্য বিচারকের অনুপস্থিতিতে সেই মামলার শুনানির জন্য শুক্রবার দিন ধার্য করাহয়।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি বিকাশ রঞ্জন দে জানান, রাজ্য প্রশাসনিক পর্যায় থেকেও নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। আদালত যেদিন নির্দেশ দেবেন, সেদিনই নূর হোসেনকে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি বলেন, নূর হোসেন এর আগে আদালতে এক আবেদনে বলেছেন, বিচারকাজ শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে যেন বাংলাদেশে পাঠানো না হয়।-ওয়েবসাইট।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।