শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
শনিবার, অক্টোবর 16, 2021
spot_img
Homeকুমিল্লালাকসামে ১২শ’ গাছ কর্তনের অভিযোগ

লাকসামে ১২শ’ গাছ কর্তনের অভিযোগ

বিদ্যুতের তারে গাছ লাগার অযুহাতে কুমিল্লার লাকসামে সামাজিক বনায়নকৃত একটি বাগানের বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ১২শ’ গাছের অগ্রভাগ কর্তনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল বুধবার লাকসাম উপজেলা বন কর্মকর্তা কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪ লাকসাম সদর দপ্তরের জোনাল ম্যানেজার বরাবর ক্ষতি পুরন দাবি করে লিখিতভাবে জানিয়েছেন।

 

গাছ কর্তনের ঘটনায় উপজেলা বন বিভাগ ও উপকার ভোগী সদস্যদের প্রায় ৬ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। এতে সামাজিক বনায়নের সদস্য ও স্থানীয়দের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। কর্তনের ফলে ওই সড়কের প্রায় আড়াই কিলোমিটার বনায়নকৃত অংশ গাছ শুন্য হয়ে পড়েছে।

 

সূত্রে জানা যায়, প্রাকৃতিক পরিবেশ ও জলবায়ু রক্ষায় বিগত ২০১২-১৩ অর্থ বছরে উপজেলার গোবিন্দপুর ইউনিয়নের তারাপাইয়া ও গাজিরপাড় সড়কে সামাজিক বনায়নের আওতায় ৬কিলোমিটার সড়ক বনায়ন করা হয়।এ সড়কে বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ৬ হাজার গাছের চারা রোপন করা হয়। গত বছর ওই সড়কের পাশে কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪ বিদ্যুতায়ন করে।

 

গত কয়েক দিন আগে বিদ্যুতের তারে লাগার অযুহাতে ওই বাগানের বিভিন্ন প্রজাতির প্রায় ১২শ’ গাছের মাথা কর্তন করায় বাগানটি প্রায় গাছ শুন্য হয়ে পড়ে। এতে বন বিভাগ ও উপকার ভোগীদের প্রায় ৬ লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বন বিভাগ কিংবা উপকার ভোগীদের না জানিয়ে গাছগুলোর অগ্রভাগ কর্তন করায় উপকার ভোগী সদস্য জাহাঙ্গীর আলম ও আবুল হোসেন পল্লী বিদ্যুতের অদূরদর্শিতাকে দায়ী করছেন।

 

এছাড়াও গত বছর উপজেলার লাকসাম-মুদাফরগঞ্জ সড়কের আউশপাড়ায় ১০টি শিশুগাছ, লাকসাম-হরিশ্চর সড়কে ৩ দফায় ১৪টি একাশি, লাকসাম-কান্দিরপাড় সড়কের পেয়ারাপুর থেকে ৫টি একাশি, লাকসাম-নোয়াখালী রেলওয়ে সড়কের বাটিয়াভিটায় কয়েক দফায় ১৯টি একাশি ও মেহগিনি গাছসহ প্রায় ৫০টি গাছ কেটে ফেলায় প্রায় ৫ লাখ টাকার ক্ষতি সাধিত হয়। বনায়নের গাছ উদ্ধারকারি ইউপি সদস্য রফিজ মিয়া ও মোস্তফা জানান, আমরা সড়ক বনায়নের কর্তনকৃত গাছ উদ্ধার করে বন বিভাগ কর্মকর্তাদের নিকট হস্তান্তর করেছি। এ সময় তারা গাছ বিক্রি বা হদিস না পাওয়ায় অসৎ বন কর্মকর্তা ও কর্মচারির শাস্তি দাবি করেন।

 

উপজেলা সামাজিক বন কর্মকর্তা মোঃ আলী নোয়াজ জানান, লাকসামের তারাপাইয়া ও গাজিরপাড় সড়কে সামাজিক বনায়নের প্রায় ১২শ’ গাছের মাথা অবৈধভাবে পল্লী বিদ্যুতের লোকচন কেটে ফেলায় প্রায় ৬ লাখ টাকার ক্ষতি হয়েছে। আর আমার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক নয়।

 

কুমিল্লা সামাজিক বন বিভাগের কোটবাড়ী রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ আবদুল কাদের ভুঁইয়া বলেন, অবৈধভাবে বনায়নের গাছ টাকার দায়ে আমরা পল্লী বিদ্যুতের নিকট ক্ষতি পুরন দাবি করেছি। বন কর্মকর্তার বিরুদ্ধে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

এ বিষয়ে সদর দপ্তর কুমিল্লা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি-৪ এর ডিজিএম খান মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন বলেন, উপজেলা বন বিভাগের লিখিত অভিযোগ পেলে ঊধ্বর্তন কতৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে তদন্তপূর্বক ক্ষতি পুরনের সুপারিশ করবো।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments