শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
শুক্রবার, অক্টোবর 22, 2021
spot_img
Homeকুমিল্লাযৌতুক লোভী স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করে বিপাকে লোপা

যৌতুক লোভী স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করে বিপাকে লোপা

কুমিল্লায় যৌতুক লোভী স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের বিরুদ্ধে মামলা করে বিপাকে পড়েছেন এক গৃহবধূ। মামলা তুলে নিতে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের পক্ষ থেকে অব্যাহত হুমকিতে আতংকে দিন যাপন করছে ওই গৃহবধূ।

 

এদিকে প্রতিকার চেয়ে মামলা করা হলেও মামলার কোন দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই। অব্যাহত হুমকিতে এবং ন্যায় বিচার চেয়ে মহা-পুলিশ পরিদর্শকের (আইজি) নিকটও একটি আবেদন করেছেন মনিরা পারভিন লোপার (২৩)।

 

মামলার সূত্রে জানা যায়, কুমিল্লা নগরীর শুভপুর এলাকার আবদুল হামিদের ছেলে নাসির আহাম্মেদ সুমনের (৩৩) সাথে প্রায় দুইবছর আগে সামাজিক ভাবে লোপার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকে স্বামী ও শ্বশুর বাড়ীর লোকজনের পক্ষ থেকে যৌতুকের জন্য লোপাকে চাপ দিতে থাকে। লোপাও স্বামী সংসারের কথা চিস্তা করে তার বাড়ি থেকে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন অঙ্কে টাকা এনে দেয়। দিন দিন টাকার অঙ্কের পরিমান বাড়তে থাকে। এক পর্যায়ে শাশুড়ি, ননদ ও দেবরের প্ররোচনায় স্বামী সুমন লোপার নিকট ১০ লখ টাকা যৌতুক দাবি করে।

 

লোপা এতে অপারগতা প্রকাশ করলে সকলে তার উপর শারীরিক নির্যাতন শুরু করে। অব্যাহত শারীরিক নির্যাতনেও লোপা যৌতুক দিতে রাজি না হলে এক পর্যায়ে তার স্বামী তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার চেষ্টা করে।

 

অবশেষে অমানুষিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরে ২০ নভেম্বর ২০১৫ ইং কুমিল্লা কোতোয়ালী থানায় স্বামী সুমনসহ ৪ জনকে আসামী করে মামলা করেন লোপা। মামলা নং- ৮০। মামলার অপর আসামীরা হল: শাশুড়ি জাহানারা বেগম (৫২), ননদ মাহমুদা সুমি (৩১), দেবর খলিল আহাম্মেদ মিঠু (২৮)।

 

মামলার পর প্রতিকার পাওয়ার বিপরীতে মামলা তুলে নিতে অব্যাহত হুমকি দিতে থাকে আসামীরা। বর্তমানে মামলা করার পর দুই মাস অতিবাহিত হয়ে গেলেও মামলার কোন দৃশ্যমান অগ্রগতি নেই।

 

মামলা করেও কোন প্রতিকার না পেয়ে এবং অব্যাহত হুমকিতে ভীত লোপা মহা-পুলিশ পরিদর্শকের (আইজি) নিকট ন্যায় বিচারের জন্য একটি আবেদন করেন।

 

এ বিষয়ে নাসির আহাম্মেদ সুমন মুঠোফোনে জানান, আমাকে এবং আমার পরিবাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্যই এ মিথ্যা মামলাটি করেছে।

 

মামলার বাদী মনিরা পারভিন লোপা বলেন, আমি সকলের কাছে ন্যায় বিচার চাই।

 

এ বিষয়ে মামালার তদন্ত কর্মকর্তা কুমিল্লা কোতোয়ালী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সফিউদ্দিন মুঠোফোনে বলেন, মামলার তদন্ত চলছে, আসামিরা পলাতক রয়েছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments