রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
রবিবার, অক্টোবর 24, 2021
spot_img
Homeকুমিল্লালাকসাম বিএনপি’র দু’গ্রুপেরসৃষ্ট সংকট এখনো কাটেনি পা বাড়াচ্ছে নোংরা রাজনীতির দিকে

লাকসাম বিএনপি’র দু’গ্রুপেরসৃষ্ট সংকট এখনো কাটেনি পা বাড়াচ্ছে নোংরা রাজনীতির দিকে

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলা বিএনপি’র বিভিন্ন ইউপি কমিটি বাতিল ও পূনঃগঠন ঘিরে দু’গ্র“পের সৃষ্ট সংকট এখনও কাটেনি বরং লাকসাম-মনোহরগঞ্জের বিএনপি রাজনীতিতে শনিরঘন্টা বাজিয়ে পা বাড়াচ্ছে নোংরা রাজনীতির দিকে। এ নিয়ে গত ৬ দিন যাবত এলাকার রাজনৈতিক অঙ্গনে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

 

বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যায়, লাকসাম-মনোহরগঞ্জ বিএনপি’র বর্তমান শীর্ষ নেতাদের চর্তুদিকে চাটুকার, অতিতোষামোদকারী ও বর্ণচোরা রাজনৈতিক ব্যাক্তিরা ভর করায় অনেকটাই দেউলিয়ার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে দলটি। ধানের শীষের দূর্গ হিসাবে পরিচিত লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ উপজেলা বিএনপি যেন ভূল রাজনীতি, অযোগ্য নেতৃত্ব ও চাটুকার বেষ্টিত পকেট কমিটির রোষানলে পড়ে কোমড় ভাঙ্গা দল হিসাবে ধমকে দাড়িয়েছে। বিগত বছর গুলোতে বর্তমান সরকার বিরোধী আন্দোলনে নাটকীয় ভাবে লোক দেখানো কর্মসূচী পালন, স্থানীয় মিডিয়া কর্মীদের অবজ্ঞা করে জেলা শহর থেকে ভাড়াটিয়া তথা কথিত মিডিয়া কর্মী দিয়ে ভূয়া ফটোসেশন করে দলীয় কর্মকান্ড প্রচারে কোন গতি আনতে পারেনি। স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোতে আশাতিত বেশির ভাগ প্রার্থী জয়লাভের সম্ভাবনা থাকলেও সঠিক প্রার্থী বাছাই, অযোগ্য নেতৃত্বে দল পরিচালনা ও হামলা-মামলার ভয়ে শীর্ষ নেতাদের অনেকেই মাঠে না নামায় নানাহ অন্তরায় সৃষ্টি হয়েছে।

 

সূত্র গুলো আরো জানায়, দীর্ঘ ৩ বছর  ধরে উপজেলা বিএনপির দুই শীর্ষ নেতা সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ুন কবির পারভেজ গুমে দলীয় নেতারা ঘরোয়া ভাবে ২/১ টি কর্মসূচী ছাড়া জোরালো কোন ভূমিকা পালন করেনি। ফলে ওইসব নেতাদের রহস্যজনক কর্মকান্ড নিয়ে পকেট বানিজ্যের অভিযোগ তৃনমূল নেতাকর্মীদের মাঝে রয়েছে হাজারো বির্তক। ২০১৯ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচন এবং আগামীতে দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার আহবানে বর্তমান সরকার বিরোধী আন্দোলন চাটুকারিতা নির্ভর ওইসব নেতারা কতটুকু ভূমিকা রাখবেন তা অবশ্য বিভিন্ন কেন্দ্রীয় কর্মসূচী পালনে ব্যর্থতাই ফুটে উঠেছে। বিশেষ করে মূলদল সহ অঙ্গসংগঠনের বেশ ক’টি ইউনিট বিভিন্ন নেতার আর্শীবাদে ফ্লাওয়ার মিল, রাইস মিল ও পোষ্ট অফিস কেন্দ্রীক বিভক্ত। ফলে দলীয় সকল কর্মকান্ড অনেকটাই ঝিমিয়ে পড়েছে। অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে সোনার বাংলা গড়তে ওইসব নেতারা বর্তমানে জয়বাংলার লোক হয়ে গেছেন। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে বয়ঃজ্যেষ্ঠ ত্যাগীনেতাদের সাংগঠনিক ভাবে কোন মূল্যায়ন নেই। ঝিমিয়ে পড়া ওইসব তথাকথিত হাতুড়ে নেতাদের তৎপরতায় দলটি যেন একটি গোষ্ঠির কাছে জিম্মি হয়ে ধীরে ধীরে ভাঙ্গনের দিকে পা বাড়াচ্ছে। সাবেক ছাত্রনেতাদের অনেকেই জানায়, বর্তমানে বিএনপি’র পরিস্থিতির মতো রাজনৈতিক সংকট ১৯৯৬ সালেও দেখা দিয়েছিলো। তৎকালীন সময়ে তথাকথিত বিএনপি দু’গ্র“পের পাল্টাপাল্টি অভিযোগের প্রেক্ষিতে দলের কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড সাবেক ডাকসু নেতা রশিদ আহমেদ হোসাইনীকে সংকট নিরসনে দায়িত্ব দেয়ার ফসল হিসাবে ২০০১ সালে জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি এ আসনে ঘুরে দাড়িয়ে কর্নেল (অবঃ) আনোয়ারুল আজিম ধানেরশীষ প্রতীকে এমপি নির্বাচিত হন। তাই বর্তমানে লাকসাম উপজেলা বিএনপির সার্বিক পরিস্থিতি কেন্দ্রীয় হাইকমান্ড নিরপেক্ষ ভাবে দলীয় পুরানো ও ত্যাগী নেতাদের দায়িত্ব দিয়ে সংকট নিরসনে সাবেক কমিটিগুলো বাতিল এবং পূর্নগঠন পক্রিয়া অব্যহত রাখলে এ আসন জুড়ে তৃনমূলে পূর্বের মত বিএনপি’র জোয়ার সৃষ্টি হবে বলে অভিমত স্থানীয় রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

 

দলীয় সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে যোগ্য নেতৃত্বের অভাবে লাকসাম উপজেলার তৃণমুল পর্যায়ে বিএনপি’র রাজনীতিতে নাটকীয় ভাবে স্থবিরতা দেখা দেয়। বেশ কয়েকবছর যাবত ওইসব ইউপি বিএনপি’র কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ার পরও রহস্যজনক কারনে  কমিটি গঠন না হওয়ায় দলের নেতা-কর্মীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও হতাশা দেখা দেয়। এরই প্রেক্ষিতে বিএনপি’র জাতীয় নির্বাহী কমিটির শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও লাকসাম উপজেলা বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ আবুল কালাম লাকসাম ও মনোহরগঞ্জ বিএনপি পুনর্গঠনের দায়িত্ব নেন।

 

উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল কালাম ও যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হাজী নূর হোসেন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গত বৃহস্পতিবার লাকসাম উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন বিএনপি’র পূর্বের কমিটি বিলপ্তি ঘোষণা করে প্রবীন-নবীনদের সমন্বয়ে প্রত্যেক ইউনিয়নে ১১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন আহবায়ক কমিটি অনুমোদন দেন। এতে হতাশায় থাকা দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্যতা দেখা দেয়।

 

থানা বিএনপি’র সহ-সভাপতি হাজী মকবুল আহমদ ও সাধারন সম্পাদক ডাক্তার নুর উল্যাহ রায়হান স্বাক্ষরিত অপর এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে গত রবিবার জানায়, দীর্ঘ ৩ বছর যাবত গুম হওয়া লাকসাম উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আলহাজ্ব সাইফুল ইসলাম হিরুর গড়া বিএনপি’র কোন কমিটি উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল কালামের ভাঙ্গা কিংবা বাতিল করার কোন সাংগঠনিক ক্ষমতা নেই। উপজেলার সকল ইউনিয়নের পূনাঙ্গ কমিটি বহাল আছে এবং দল নিয়ে কেউ বিশৃংঙ্খলা সৃষ্টি করলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে ওই বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

 

এবিষয়ে মনোহরগঞ্জের বিএনপি নেতা ও সাবেক ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক সফিকুর রহমান সফিক জানায়, শহীদ জিয়ার প্রতিষ্ঠিত এবং দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে গড়া বিএনপির র্দূদিনে যারা গ্র“পিং করে তারা দলের মঙ্গল চায় না। দলের কেন্দ্রীয় হাই কমান্ড ওইসব কুলাংগার নেতাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবেন বলে আশা করছি।
দলীয় বর্তমান পরিস্থিতিতে লাকসাম পৌরসভা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুভাষ বনিক জানায়, উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবুল কালাম অত্যান্ত ভাল রাজনৈতিক নেতা। এ আসনে বিএনপি রাজনীতিতে তার যথেষ্ট ত্যাগ ও অবদান রয়েছে। আমার প্রিয় নেতা সাবেক এমপি কর্নেল আজিম ভাই কুমিল্লা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। কালাম ভাই কর্নেল আজিম ভাইয়ের সাথে পরামর্শক্রমে সাংগঠনিক কাজ করবেন বলে আশা করছি।

 

অপরদিকে এ ব্যাপারে সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আলহাজ্ব মজির আহমদসহ একাধিক বিএনপি নেতাদের মুঠোফোনে বার বার চেষ্টা করেও বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments