লক্ষ্মীপুরে ইউপি চেয়ারম্যানের ওপর সন্ত্রাসী হামলা মোটরসাইকেল ও আসবাবপত্র ভাংচুর

লক্ষ্মীপুরে সন্ত্রাসী হামলায় দালাল বাজার ইউপি চেয়ারম্যান ও বিএনপি নেতা কামরুজ্জামান সোহেলের উপর হামলা চালানোর অভিযোগ উঠেছে ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে। এসময় চেয়ারম্যানের মোটরসাইকেল ভাংচুর, পরিষদের আসবাবপত্র ও বেশকিছু চেয়ার ভাঙচুর করা হয়। বৃহস্পতিবার সন্ধার পর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়ন পরিষদের ভিতরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে পুলিশ তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

 

আহত সোহেল সদর (পশ্চিম) উপজেলা বিএনপির আহবায়ক। রাতেই তাকে অবস্থার অবনতি হওয়ায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। আহত সোহেল সদর (পশ্চিম) উপজেলা বিএনপির আহবায়ক।

 

স্থানীয় বিএনপির অভিযোগ লক্ষ্মীপুরে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি দেওয়ার পর থেকে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা বেপরোয়া হয়ে পড়ছে। তারা বিএনপিসহ ছাত্রদলে নেতাকর্মীদের ওপর অন্যায় ভাবে হামলা মারধর করে তাদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলন ধমাতে চেষ্ঠা করছে।

 

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা জানান, সদর উপজেলার দালাল বাজার ইউনিয়নের চেয়ারম্যান কামরুজ্জামান সোহেল বৃহস্পতিবার ইউনিয়ন পরিষদে নিজ কার্যালয়ে বসে কার্য সম্পাদন করছিলেন। সন্ধ্যায় হঠাৎ করে দালাল বাজার ডিগ্রি কলেজ শাখা ছাত্রলীগ নেতা অনিক, ছাত্রলীগ কর্মী বাদশা,রবিন ও অপুর নেতৃত্বে ১৫/২০জনের নেতাকর্মী ইউনিয়ন পরিষদের ভিতরে ডুকে চেয়ারম্যান সোহেলের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এলোপাতাড়ি মারধরে ইউপি চেয়ারম্যান সোহেল গুরুতর আহত হয়।এসময় পরিষদের আসবাবপত্র ও বেশকিছু চেয়ার ভাঙচুর করা হয় এবং ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ভাঙচুর করে পুকুরে পেলে দেয় হামলাকারিরা।পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে আহত সোহেল কে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন।
জেলা যুবদলে সভাপতি রেজাউল করিম লিটন বলেন,পরিকল্পিভাবে ছাত্রলীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা বিএনপি নেতা সোহেলের ওপর হামলা চালায়। এসময় তাকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করা হয়। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক দাবি জানাচ্ছি।

 

তবে হামলার সঙ্গে ছাত্রলীগের কেউ জড়িত নয় উল্লেখ করে অভিযোগ অস্বীকার করে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শরীফ।

অপরদিকে জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট হাছিবুর রহমান জানান,বিএনপি নেতা ও ইউপি চেয়াম্যান সোহেলের ওপর পরিকল্পিভাবে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা হামলা চালায়। এসময় তাকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করা হয়। এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়ে জড়িতদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক দাবি জানান তিনি।

 

সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) লোকমান হোসেন বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। এখনো কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি।অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।