মঙ্গলবার, জানুয়ারী 25, 2022
মঙ্গলবার, জানুয়ারী 25, 2022
মঙ্গলবার, জানুয়ারী 25, 2022
spot_img
Homeউপজেলালাকসামে আধিপত্য বিস্তার ঘিরে দুই পক্ষের সংঘর্ষ ২ পুলিশ সহ ৫ জন...

লাকসামে আধিপত্য বিস্তার ঘিরে দুই পক্ষের সংঘর্ষ ২ পুলিশ সহ ৫ জন আহত

কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার পূর্ব ইউনিয়নে আধিপত্য বিস্তার কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে দুই পুলিশসহ অন্তত ৫জন আহত হয়েছে। দু’পক্ষের দাওয়া-পাল্টা দাওয়া ব্যাবসা প্রতিষ্ঠানে ভাংচুরের ঘটনাও ঘটেছে।


পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রেনে আনতে গিয়ে পুলিশের এএসআই ও কনস্টেবলসহ উভয় পক্ষের ৫জন আহত হয়। ঘটনাটাটি ঘটেছে গত বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলা লাকসাম পূর্ব ইউনিয়েনে নরপাটি বাজারে।


এ ঘটনায় উত্তর নরপাটি গ্রামের মকবুল আহমেদের ছেলে সেলিম গুরুতর আহত হয়। সেলিম মিয়ার বড় ভাই স্বপন বাদী হয়ে নবী হোসেন সহ ৩জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। অপর দিকে ২পুলিশ আহত হওয়ার ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে আরেকটি মামলা দায়ের করেছে। বৃহস্পতিবার এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মোট ৫জনকে আটক করেছে থানা পুলিশ। আহত ব্যাক্তিদেরকে সরকারী-বেসরকারী হাসপাতালে এবং গুরুতর আহত অবস্থায় এস আই সাঈদুল ইসলাম মোল্লাকে ঢাকা পুঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ওই এলাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


স্থানীয় একাদিক সুত্রে জানাযায়, উপজেলার লাকসাম পূর্ব ইউনিয়নে গত কয়েকদিন পূর্বে স্থানীয় শাহ আলমের ছেলে নবী হোসেনের ছোট ভাইয়ের সাথে স্থানীয় কাদেরের সাথে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে বাক-বিতন্ড শুরু হয়। খবর শুনে নবী হোসেন বিষয়টি জানতে ছাইলে কাদের তার উপর হামলা চালায়। পরে বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় ভাবে মিমাংসা করে দিবে বলে ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দরা আশ্বাস দেন।


ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে গত বুধবার (২২ জুলাই) সন্ধায় নবী হোসেন ও কাদের সর্মথনকারীদের মধ্যে নরপাটি আমতলি এলাকায় তাদের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। সংঘর্ষে কাদেরের সমর্থনকারী সেলিম সহ কয়েক জন গুরুতর আহত হয়। এরপর নবী হোসেন ও সেলিমের দু’পক্ষের লোকজন নরপাটি বাজারে এসে লোকমান বেকারী ও তাহের মিয়ার দোকান সহ কয়েকটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা ও ভাংচুর চালায়। খবর পেয়ে লাকসাম থানা পুলিশ তাৎক্ষনিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনার চেষ্টা করলে হামলাকারীরা পুলিশের উপর হামলা চালায়। এতে পুলিশের এসআই সাঈদুর রহমান মোল্লা ও পুলিশ কনস্টেবল স্বপন মিয়া গুরুতর আহত অবস্থায় দৌড়ে গিয়ে তাহের মিয়ার ষ্টেশনারী দোকানে আশ্রয় নিলে সেখানেও নবীর লোকজন আবারো পুলিশের উপর ও তাহের মিয়ার দোকানে হামলা চালায়।


পরবর্তীতে আহত দুই পুলিশকে বাঁচাতে অপরাপর পুলিশ সহ ব্যবসায়ীরা এগিয়ে আসলে নবীর লোকজন পালিয়ে যায়। এলাকার সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ টহল জোরদার করা হয়েছে।


অপরদিকে আহত সেলিম সহ লোকজনকে পৌরশহরের বিভিন্ন হাসপাতাল ও গুরুতর আহত পুলিশের এসআই সাঈদুর রহমান মোল্লাকে ঢাকা পুঙ্গ হাসপাতালে এবং পুলিশ কনস্টেবল স্বপন মিয়াকে লাকসাম সরকারী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।


লাকসাম পূর্ব ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের সভাপতি তাজুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা নবী হোসেন ও তার সহকর্মীরা এলাকায় বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত রয়েছে। গতকালের ঘটনাটি তার বহিঃপ্রকাশ। বিভিন্ন সময়ে ঘটে যাওয়া বিষয়গুলো স্থানীয় ভাবে মিমাংসার চেষ্টা করা হলেও মানছেনা তারা। গতকালে যে ঘটনা ঘটেছিল তা অত্যান্ত দুঃখজনক।


এব্যাপরে ওই ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্জ আলী আহমেদ মুটোফোনে জানায়, সন্ত্রাসীরা কোন দলের নয়। এলাকায় মাদক, হামলা-মামলা সহ বিভিন্ন অপকর্ম প্রতিরোধে আমার পরিষদ কাজ করে যাচ্ছে। গতকালের ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তার দাবী করছি।


স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার জামাল খান জানান, তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে নবী ও সেলিমের লোকজনের সংঘর্ষ পরবর্তীতে বাজারে পুলিশ ও ব্যবসায়ীদের দোকানপাটে হামলা অত্যান্ত দুঃখ জনক।


এ ব্যাপারে লাকসাম থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নিজাম উদ্দীন জানান, এ ঘটনায় দুজন পুলিশ আহত হয়েছে এবং এ ব্যাপারে পৃথক পৃথক মামলাও হয়েছে। এ ঘটনায় ৫জনকে আটক এবং বাকী অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments