রবিবার, জানুয়ারী 23, 2022
রবিবার, জানুয়ারী 23, 2022
রবিবার, জানুয়ারী 23, 2022
spot_img
Homeজয়পুরহাটস্বামীর ঘর ও সন্তানের স্বীকৃতি পেল রোকেয়া

স্বামীর ঘর ও সন্তানের স্বীকৃতি পেল রোকেয়া

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে স্বামীর স্বীকৃতি ও অনাগত সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে অনশনরত রোকেয়া রেজা (৩০) অবশেষে স্বামীর ঘর ও অনাগত সন্তানের স্বীকৃতি পেলে। গতকাল বুধবার সকাল ৮টা থেকে আজ বৃহস্প্রতিবার পর্যন্ত স্বামীর স্বীকৃতি ও অনাগত সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে উপজেলার ধরঞ্জী ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের পুত্র জাবেদ হোসেন সজলের বাড়ীতে অনশন করেন তিনি। অবশেষে দুপুরে সজলের বাবা রোকেয়াকে পুত্রবধু হিসাবে স্বীকৃতি দিয়ে বাড়ীতে ঠাঁই দিয়েছেন।


সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার বাংলাবাজার গ্রামের রেজাউল করিমের মেয়ে রোকেয়া রেজার সঙ্গে একটি যাত্রীবাহী বাসে পরিচয় হয় জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের শহিদুল ইসলামের ছেলে জাবেদ হোসেন সজলের সঙ্গে। প্রথম পরিচয়েই মোবাইল আদান প্রদানের মাধ্যমে দুজনের মধ্যে প্রেমের সর্ম্পক গড়ে ওঠে। এরই এক পর্যায়ে তারা দুজুনে ঢাকা জেলার বাড্ডা থানার উত্তর বাড্ডা কাজী অফিসে গত ২১/০৬/২০২০ইং তারিখে ৩০ হাজার টাকা কাবিন মূলে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে ঘর সংসার করে আসছিল।


গত সেপ্টেম্বর মাসের ২৬ তারিখ জাবেদ হোসেন সজল সিরাজগঞ্জে একটি কোম্পানীতে চাকুরী করার কথা বলে তাকে রেখে চলে আসে। বেশ কিছুদিন ধরে জাবেদ ঢাকায় ফিরে না যাওয়া মোবাইল ফোনে তার সঙ্গে যোগাযোগ করলে সে বিভিন্ন ধরনের তালবাহনা করতে থাকে। উপায়ন্ত না পেয়ে রোকেয়া রেজিষ্ট্রি কাবিনের সূত্র ধরে জাবেদের বাড়ীতে আসলে জাবেদ তাকে উল্টা পাল্টা কথা বলে তাড়ানোর চেষ্টা করে। এসময় রোকেয়া স্বামী অধিকার ও তার গর্ভের অনাগত সন্তানের পিতার চাইলে সজলসহ সুযোগ বুঝে বাড়ীর সবাই দরজায় তালা লাগিয়ে পালিয়ে যায়।


পরে এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের হস্তক্ষেপে আজ বৃহস্প্রতিবার দুপুরে সজলের পিতা শহিদুল ইসলাম রোকেয়াকে পুত্র বধুর স্বীকৃতি দিয়ে বাড়ীতে তোলেন।


এবিষয়ে ধরঞ্জী ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা নিকট জানতে চাইলে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।মোঃ বাবুল হোসেন, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি

RELATED ARTICLES
- Advertisment -spot_img

Most Popular

Recent Comments