বিশ্ব ব্যাংককে জিজ্ঞেস করেন- অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের ছুটিতে পাঠিয়েছে কিনা? - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

বিশ্ব ব্যাংককে জিজ্ঞেস করেন- অভিযুক্ত কর্মকর্তাদের ছুটিতে পাঠিয়েছে কিনা?



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

ঢাকা, ২৯ নভেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)-  পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র হয়েছে বলে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান গোলাম রহমানের যে মন্তব্য করেছেন তার কঠোর সমালোচনা করেছেন সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। তিনি বলেন, তদন্ত শেষ হওয়ার আগে এই প্রকল্পে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র পাওয়া গেছে- প্রতিদিন এমন মন্তব্য করা কতটা আইন সঙ্গত। পদ্মা সেতু প্রকল্পের দুর্নীতির অভিযোগে দ্বিতীয় দফায় দুদকের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে বৃহস্পতিবার এই প্রকল্পের সাবেক সচিব সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

মোশাররফ হোসেন বলেন, ‘এই প্রকল্পে দুর্নীতির কোনো ষড়যন্ত্র হয়নি। আমি দ্বার্থ্যহীন কণ্ঠে এখনো বলছি, ভবিষ্যতেও বলবো।’

তিনি বলেন, ‘এরপরেও যদি বর্তমান দুদকের কর্মকর্তারা না বুঝে কিছু করে ফেলেন তাহলে সেটা আইন সঙ্গত হবে না।’

এ সময় প্রকল্পের সাবেক সচিব সন্দেহভাজনদের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাংকের দ্বিমুখী ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, ‘বিশ্বব্যাংকের কয়েকজন কর্মকর্তার বিরুদ্ধেও অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু তারা তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।’

মোশাররফ হোসেন ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আপনারা বিশ্ব ব্যাংককে জিজ্ঞেস করেন- ওইসব কর্মকর্তাদের ছুটিতে পাঠিয়েছে কিনা?’

তিনি বলেন, ‘বিশ্ব ব্যাংকের কোন আইনে আছে- একটি দেশের সরকারি কর্মকর্তাদের ছুটিতে পাঠানো?’

উল্লেখ্য, পদ্মাসেতু প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াসহ তিনব্যক্তির জবানবন্দি নিচ্ছে দুদক। কানাডিয়ান নাগরিক রমেশ সাহুর ডায়েরিতে ঘুষের তালিকায় যে পাঁচ ব্যক্তির নাম ছিল, সাবেক এই সচিবও তাদের একজন।

সচিব ছাড়াও সেতু বিভাগের তত্ত্বাবাধায়ক প্রকৌশলী কাজী মো. ফেরদৌস, প্রকৌশলী কামারুজ্জামানকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তারা সবাই বৃহস্পতিবার দুদকে আসেন।

সিনিয়র উপ-পরিচালক এএসএম আবদুল আল-জাহিদ, মীর মো. জয়নুল আবেদীন শিবলী, উপ-পরিচালক গোলাম শাহরিয়ার চৌধুরী ও মির্জা জাহিদুল আলম পৃথকভাবে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

এদিকে, দুদকের অনুসন্ধান টিম জানিয়েছে, রোববার ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ড. জামিলুর রেজা চৌধুরী ও বুয়েটের অধ্যাপক ড. আ ম ম সফিউল্লাহর বক্তব্য নেয়া হবে।

এছাড়া সোমবার সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনসহ সাবেক পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আবুল হাসান চৌধুরীকে ফের জিজ্ঞাসাবাদ করবে দুদক।

প্রসঙ্গত, দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের অভিযোগ তুলে ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বিষয়ক ঋণচুক্তি স্থগিত করে বিশ্বব্যাংক। ঋণ পাওয়ার জন্য চারটি শর্ত জুড়ে দেয় দাতা সংস্থাটি। আর সেই শর্ত চারটি পালন না করায় গত ২৯ জুন ঋণচুক্তি বাতিল করে পদ্মা সেতুতে অর্থায়নের অন্যতম দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক।

এরপর দুর্নীতির জন্য সন্দেহভাজন সাবেক যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের পদত্যাগ ও ড. মসিউর রহমানকে ছুটিতে পাঠানোর পর চলতি বছরের ২০ সেপ্টেম্বর পদ্মাসেতু প্রকল্পে পুনরায় সম্পৃক্ত হওয়ার ঘোষণা দেয় বিশ্বব্যাংক।

বিশ্বব্যাংকের দেয়া শর্তানুসারে এরই মধ্যে পদ্মা সেতুতে পরামর্শক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগ অনুসন্ধান করছে দুদক। আর বিশ্বব্যাংকের গঠিত তিন সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ প্যানেল শনিবার দ্বিতীয়বারের মতো বাংলাদেশ সফরে আসছে।


পূর্বের সংবাদ
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০