‘আমি আশ্চর্য হই, বিচারক নিজামুল হক নাসিম কি কারণে পদত্যাগ করলেন, তা ভেবে:মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

‘আমি আশ্চর্য হই, বিচারক নিজামুল হক নাসিম কি কারণে পদত্যাগ করলেন, তা ভেবে:মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান



(খবর তরঙ্গ ডটকম)

ঢাকা, ২৪ ডিসেম্বর (খবর তরঙ্গ ডটকম)- স্কাইপি সংলাপের জের ধরে যুদ্ধাপরাধের বিচারে গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবুনাল-১- এর চেয়ারম্যান থেকে বিচারপতি নিজামুল হক নাসিমের পদত্যাগ করা ঠিক হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান। তিনি বলেন, ‘আমি আশ্চর্য হই, বিচারক নিজামুল হক নাসিম কি কারণে পদত্যাগ করলেন, তা ভেবে। তার পদত্যাগ আমাকে হতবাক করেছে।’ মিজানুর রহমান দাবি করেন, ‘তিনি (নিজামুল হক) যদি এই কারণে পদত্যাগ করেন, তাহলে তো যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন থেকে শুরু করে পৃথিবীর সব প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীকে পদত্যাগ করতে হবে। কারণ তাদের নামে উইকিলিকস বিভিন্ন তথ্য ফাঁস করেছে।’

রোববার রাজধানীতে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর মানবাধিকার নিয়ে এক অনুষ্ঠানে মিজানুর রহমান প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ‘বিচারপতির পদত্যাগ নয় বরং যারা হ্যাকিং করেছে তাদের-ই বিচার হওয়া দরকার। কারণ হ্যাকিং একটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

মিজানুর বলেন, ‘যারা একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধ করেছে, তাদের সাথে কোন সমঝোতা নয়। তাদের প্রতি কোনো দয়া-দাক্ষিণ্য-করুণা নয়। আইন অনুসারে তাদের বিচার করতে হবে। এটি রাষ্ট্র ও সরকারের দায়িত্ব।’

অনুষ্ঠানের সভাপতি অর্থনীতিবিদ ড. আকবর আলি খান বলেন, ‘রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও ব্যক্তিগত কারণে সমাজে বৈষম্য ও মানবাধিকার লঙ্ঘন হয়ে থাকে। এজন্য দেশের সবাইকে সচেতন হতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু তার অসমাপ্ত আত্মজীবনীতে লিখেছেন- আমাদের দেশে আদালতে সত্য কথা প্রতিষ্ঠিত করতে হলে মিথ্যে কথা বলতে হয়। মিথ্যে না বললে সত্য প্রতিষ্ঠিত করা যায় না। আমাদের দেশের এই অবস্থার অবশ্যই পরিবর্তন করতে হবে।’

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আইন কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যপক ড. শাহ আলম, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউটর অ্যাডভোকেট রানা দাস গুপ্ত, আয়োজক, গবেষণা ও উন্নয়ন কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মেসবাহ কামাল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।


পূর্বের সংবাদ