বিটিভি ও এটিএন নিউজকে সতর্ক করলো ট্রাইব্যুনাল: আদালত অবমাননা

বাংলাদেশ টেলিভিশনের ডিরেক্টরসহ এক রিপোর্টার এবং বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের এক রিপোর্টারকে সর্তক করে আদালত অবমাননার আবেদনটি নিষ্পত্তি করে দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল। একই সঙ্গে কোনো পক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত হয় এমন প্রতিবেদন প্রকাশ থেকে সব গণমাধ্যমকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছে ট্রাইব্যুনাল।ট্রাইব্যুনালের আদেশে বলা হয়, বিচারাধীন বিষয় নিয়ে এমন কোনো প্রতিবেদন করা যাবে না যাতে কোনো পক্ষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়।
রোববার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বাধীন ট্রাইব্যুনাল এ আদেশ দেন।
গত ১০ জানুয়ারি আসামিপক্ষের করা আবেদনের ওপর শুনানি শেষে রোববার আদেশের দিন ধার্য করেন। ওইদিন আদালতে শুনানি করেন আবেদনের পক্ষে ব্যারিস্টার তানভীর আহমেদ আল-আমিন। তিনি এ আবেদনের পক্ষে কিছু ডকুমেন্টও ট্রাইব্যুনালে দাখিল করেন।

প্রসিকিউটর জেয়াদ আল মালুম জানান, এটিএন নিউজের রিপোর্টার মাশহুদুল হক এবং বিটিভির রিপোর্টার সুজন হালদারকে সতর্ক করে দিয়ে আবেদনটি নিষ্পত্তি করে দিয়েছে।

এর আগে গত ৭ জানুয়ারি মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক জামায়াতের নায়েবে আমির মাওলানা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আইনজীবী অ্যাডভোকেট মিজানুল ইসলাম এ অভিযোগ দায়ের করেন।

আসামিপক্ষের আইনজীবী মিজানুল ইসলাম জানান, বিচারাধীন বিষয় নিয়ে নিজেদের মতো করে বক্তব্য প্রদান এবং প্রসিকিউশনের সাক্ষীদের বক্তব্য অনুযায়ী আসামির মৃত্যুদণ্ড কামনা করায় এটিএন নিউজের রিপোর্টার মাশুদুল হক এবং বিটিভির রিপোর্টার সুজন হালদারের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

তিনি বলেন, “সাক্ষীদের দেয়া জবানবন্দি মূল্যায়ন করবে ট্রাইব্যুনাল। তারাতো মূল্যায়ন করতে পারেন না। এ ছাড়া প্রসিকিউশনের সাক্ষী দিয়ে ডিফেন্স সাক্ষীদের বিষয়ে কথা বলানো হয়েছে যা বেআইনি। একটি বিচারাধীন বিষয় নিয়ে এভাবে তারা মন্তব্য করতে পারে না।”

তিনি বলেন, “গত ২৫ ডিসেম্বর এটিএন নিউজ চ্যানেলে ‘ফলোআপ’ নামে একটি অনুষ্ঠান প্রচার করা হয়। তাতে প্রসিকিউশনের সাক্ষী মানিক পসারিকে দিয়ে ডিফেন্স সাক্ষীদের সাক্ষ্যকে মিথ্যা, অর্থের বিনিময় সাক্ষ্য পেশ করা হয়েছে এমন সব অভিযোগ করা হয়, যা আইন বহির্ভূত।”

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।