দুদকের মামলার প্রধান আসামি সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া সাময়িক বরখাস্ত

সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলার প্রধান আসামি সেতু বিভাগের সাবেক সচিব মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে অবশেষে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। এর আগে তাকে সেতু বিভাগ থেকে সরানো, ওএসডি করাসহ ছুটিতে পাঠিয়েছিল সরকার।বুধবার দুপুরে এ বিষয়ে আদেশ জারি করে সরকারের জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। এর আগে তাকে ওএসডি করা হয়।পদ্মাসেতু প্রকল্পের পরামর্শক নিয়োগে ঘুষ লেনদেনের ষড়যন্ত্রের অভিযোগে ১৭ ডিসেম্বর দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) একটি মামলা করেন। সেই মামলার প্রধান আসামি মোশররাফ। বর্তমানে তিনি কারাগারে আটক রয়েছেন।

এ মামলার অন্য আসামিরা হলেন- সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী রিয়াজ আহমেদ জাবের, ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড প্ল্যানিং কনসালটেন্ট লিমিটেডের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বাংলাদেশে কানাডীয় পরামর্শক প্রতিষ্ঠান এসএনসি-লাভালিনের স্থানীয় প্রতিনিধি মোহাম্মদ মোস্তফা, এসএনসি লাভালিনের সাবেক পরিচালক মোহাম্মদ ইসমাইল এবং সংস্থাটির আন্তর্জাতিক প্রকল্প বিভাগের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট রমেশ সাহা ও সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট কেভিন ওয়ালেস।

উল্লেখ্য, পদ্মা সেতুর দুর্নীতির ষড়যন্ত্রের মামলায় গত ২৭ ডিসেম্বর মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়াকে হাইকোর্ট থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় গ্রেপ্তার করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। দুদকের পরিচালক ও উইং কমান্ডার মো. তাহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি দল তাঁদের গ্রেপ্তার করে। পরে তাকে রিমান্ডে নেওয়া হয়।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্মাণ তদারকি কাজের পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির ষড়যন্ত্র মামলায় অভিযুক্তদের মধ্যে প্রথম সাবেক এ মামলাকেই গ্রেপ্তার করা হয়। এই মামলায় সাতজন আসামির চারজন বাংলাদেশি ও তিনজন বিদেশি। ১৭ ডিসেম্বর বনানী থানায় মামলাটি করে দুদক।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।