রাজধানীর আগারগাঁও বস্তিতে আগ্নিকান্ড

রাজধানীর শেরেবাংলানগর থানা ও জাতীয় পাসপোর্ট অফিসের  মাঝখানের আগারগাঁও বস্তিতে  দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে আগুন লাগে। ১০০’র বেশি বস্তিঘর আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। এছাড়া বেশ কিছু দোকানপাটও পুড়েছে। রোববার দুপুরে এ আগুন লাগে। দুপুর তিনটায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত কোনো হতাহতের বিবরণ পাওয়া যায়নি। শেরেবাংলানগর থানা ও জাতীয় পাসপোর্ট অফিসের মাঝখানের বস্তি এলাকায় দুপুর সাড়ে বারোটার দিকে আগুন লাগে। প্রায় এক ঘন্টা পর দুপুর দেড়টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিসের তেজগাঁও স্টেশন ও শেরেবাংলানগর থানা কর্তৃপক্ষ।

দুপুর দেড়টার দিকে থানার কর্তব্যরত কর্মকর্তা ইসরাফিল হোসেন রিয়েল-টাইম নিউজ ডটকমকে জানান, ফায়ার সার্ভিসের নয়টি ইউনিট চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে।

বস্তির একটি ঘর থেকে এ আগুন লাগে বলে পুলিশ জানিয়েছে। এখন পর্যন্ত ক্ষয়ক্ষতির মূল্য নিরুপণ করা হয়নি।

এর আগে দুপুর একটার দিকে শেরেবাংলানগর থানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছিলেন, আগুন থানার দিকে ছড়িয়ে পড়ছে।

তবে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের তেজগাঁও এবং মোহাম্মদপুর স্টেশনসহ আশেপাশের স্টেশন থেকে মোট নয়টি ইউনিট চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে দুপুর দেড়টার দিকে। ফায়ার সার্ভিসের তেজগাঁও স্টেশনের কর্তব্যরত কর্মকর্তা আলমগীর হোসেন জানান, থানা ভবনটি আগুনের ঝুঁকিতে ছিল। তবে বড় ধরণের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী ও ওই নির্বাচনী এলাকার এমপি জাহাঙ্গীর কবির নানক ক্ষতিগ্রস্ত বস্তি পরিদর্শন করেছেন, তবে তাৎক্ষণিক সহযোগিতার কোনো প্রতিশ্রুতি দেননি।

প্রসঙ্গত, সরকারি নানা গুরুত্বপূর্ণ কার্যালয় রয়েছে আগারগাঁও বস্তি সংলগ্ন এই এলাকায়। সরকারের মাস্টার প্ল্যানের অংশ হিসেবে এখানে বেশির ভাগ সরকারি ও স্বায়ত্ত্বশাসিত সংস্থার প্রধান কার্যালয় স্থানান্তর করা হচ্ছে।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।