বরিশালে ব্রজমোহন কলেজ নতুন অধ্যক্ষকে পেটাল ছাত্রলীগ

বরিশালে সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজের নবাগত অধ্যক্ষ শংকর চন্দ্র দত্ত কাজে যোগদান করতে গেলে তাকে মারধর করেছে ছাত্র সংসদের আদলে সাবকে অধ্যক্ষের গঠন করে যাওয়া অস্থায়ী কর্মপরিষদের নেতা-কর্মীরা। কলেজের আগের অধ্যক্ষ ননীগোপাল দাসের বদলি ঠেকাতে ছাত্র কর্মপরিষদের সহসভাপতি মঈন তুষার ও সাধারণ সম্পাদক নাহিদ সেরনিয়াবাতের নেতৃত্বে ১৩ দিন ধরে আন্দোলন চলছে।

গতকাল বেলা ১২টার দিকে কলেজ সংলগ্ন পেট্রোল পাম্প এলাকায় কর্মপরিষদের সভাপতি ও মাঈন তুষার এর নেতৃত্বে তার সহযোগিরা এই হামলা চালিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পেট্রোল পাম্প এলাকায় গিয়ে মঈন তাঁর সঙ্গে বাগিবতণ্ডা শুরু করেন এবং তাঁকে সেখান থেকে চলে যেতে বলেন
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শংকর চন্দ্র দত্ত নতুন অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দিতে কলেজে আসছেন—এমন খবর পেয়ে তারা কলেজ থেকে প্রায় এক কিলোমিটার দূরে অবস্থান নেন। । একপর্যায়ে মঈন ও নাহিদের সঙ্গে থাকা ২০ থেকে ২৫ জন বহিরাগত ক্যাডার শংকর চন্দ্রকে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। এতে তিনি আহত হন। পরে আশপাশের লোকজন গিয়ে তাঁকে উদ্ধার করেন।
শংকর চন্দ্র দত্ত জানান, কলেজে যোগদানের জন্য তিনি কোতোয়ালি মডেল থানায় লিখিতভাবে নিরাপত্তা চেয়েছেন। জেলা প্রশাসককেও জানিয়েছেন। তার পরও যোগদান করতে যাওয়ার পথে হামলার শিকার হলেন তিনি।
বরিশালের জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল আলম বলেন, ‘অধ্যক্ষ আমাকে আগের দিন ফোনে জানিয়েছিলেন। তবে তাঁর নিরাপত্তা বা অন্য কোনো সমস্যার কথা বলেননি। তার পরও আমি তাঁকে সাড়ে নয়টায় আমার কার্যালয়ে আসতে বলেছিলাম। কিন্তু তিনি আসেননি।’
কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাখাওয়াত অধ্যক্ষের নিরাপত্তা চাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেন।
মঈনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি দাবি করেন, ‘সাধারণ শিক্ষার্থীরা ননীগোপাল দাসের বদলির বিরুদ্ধে আন্দোলন করছেন। এ ব্যাপারে প্রশাসন কোনো উদ্যোগ নেয়নি। এ অবস্থায় নতুন অধ্যক্ষ যোগ দিতে চাইলে সাধারণ শিক্ষার্থীরাই তাঁকে প্রতিহত করেছেন।’

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।