শাহবাগ স্কয়ারের নিরাপত্তা জোরদার

শাহবাগ স্কয়ারে চলমান ১২তম দিনের আন্দোলনের চারপাশ নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে। আন্দোলনকারী ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার খুন হওয়ার পর শাহবাগ স্কয়ারের নিরাপত্তা আরো বেশি জোরদার করা হয় বলে জানা গেছে। শাহবাগ স্কয়ারে যাতে কোনো ধরনের নাশকতা না সৃষ্টি হয় সে জন্য  এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী সূত্রে জানা গেছে। শনিবার  সকাল থেকেই শাহবাগের চার প্রবেশপথে মেটাল ডিডেক্টরসহ নানা ধরনের যন্ত্র বসিয়ে সন্দেহভাজনদের দেহ ও সঙ্গে থাকা ব্যাগ তল্লাশি করা হচ্ছে। এছাড়াও শাহবাগ স্কয়ারের বিভিন্ন স্থানে বসানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা। বিপুলসংখ্যক পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে র‌্যাব, পুলিশসহ বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা শাহবাগ স্কয়ারের আশেপাশে অবস্থান করেছেন।

জানা গেছে, শুক্রবার রাতে ব্লগার রাজীব হায়দার হত্যার পরপরই রাত থেকেই নিরাপত্তা বাড়ানো হয়। শাহবাগ স্কয়ারে মোতায়েন করা হয় অতিরিক্ত পুলিশ।  শনিবার সকাল থেকেই রুপসী বাংলা হোটেল মোড় ও আজিজ সুপার মার্কেটের মোড়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার সামনের প্রবেশপথে বসানো হয়েছে আর্চওয়ে। শাহবাগ স্কয়ারে আগত নাগরিকদের লাইনে দাঁড়িয়ে সমাবেশে প্রবেশ করানো হচ্ছে।
শনিবার সকাল থেকেই বিভিন্ন শ্রেণী-পোশার নাগরিকরা শাহবাগ স্কয়ারে সমবেত হয়ে রাজীব হত্যার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছেন। রাজীব হত্যার সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবি করছেন তারা।
রমনা জোনের উপ-পুলিশ কমিশনার সৈয়দ নূরুল ইসলাম নতুন বার্তাকে বলেন, “শুক্রবার রাতে ব্লগার রাজীব হত্যাকাণ্ডের পর এই সমাবেশস্থলের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। আন্দোলন শুরুর দিন থেকেই আমরা কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েছি। বর্তমানেও পুরো চত্বর নিরাপত্তা চাদরে রয়েছে।”
বিকেল ৪টা ৫৪ মিনিটে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত রাজীবের লাশ শাহবাগ স্কয়ারে পৌঁছায়নি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।