লংমার্চে বাধা দিলে সারাদেশ থেকে রাজধানীকে বিচ্ছিন্ন করার হুমকি হেফাজত ইসলামের

বিভিন্ন ব্লগে ইসলাম ও নবী মুহাম্মদ (স) নিয়ে কটুক্তির বিরুদ্ধে  আগামী ৬ এপ্রিলের লংমার্চে বাধা দেওয়া হলে  ঢাকার সবক’টি প্রবেশমুখ বন্ধ করে সারা দেশ থেকে রাজধানী ঢাকাকে বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম। এছাড়া লংমার্চে বাধা আসলে ৭ এপ্রিল থেকে লাগাতার হরতাল চলবে বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন হেফাজতের নেতারা। বুধবার সকালে সংগঠনের লালবাগস্থ কার্যালয়ে ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগরী ও লংমার্চ সমন্বয় কমিটির আহবায়ক মাওলানা নুর হোসাইন কাসেমী এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন। তিনি বলেন, ‘বর্তমান সরকারের ইসলাম বিদ্বেষী কার্যকলাপ আমাদেরকে ভাবিয়ে তুলেছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরা ঘরে ফিরে যাবো না।’

শান্তিপূর্ণ লংমার্চ কর্মসূচিতে বাধা দিলে এর দায় দায়িত্ব সরকারকেই বহন করতে হবে বলেও জানান হেফাজতের এই নেতা।

তিনি বলেন, ‘সরকার ইসলামবিরোধী কাজ করবে না বলে ক্ষমতায় এসে প্রথমে সংবিধান থেকে আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস তুলে দিয়েছে। কোরআনবিরোধী নারী নীতি ও ইাসলামবিরোধী শিক্ষানীতি প্রণয়ন করেছে।’

লংমার্চ সমন্বয় কমিটির সদস্য মাওলানা মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী বলেন, ‘কয়েকজন ব্লগারকে গ্রেপ্তার করে মুসলানদের ধোঁকা দেওয়ার চেষ্টা মেনে নেওয়া হবে না। নাস্তিক-মুরতাদ ও ধর্মদ্রোহীদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র আইন প্রণয়ন করতে হবে।’

হেফাজত নেতা মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন, ‘দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব আজ হুমকির মুখে। এই স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষায় সকল দেশপ্রেমিক জনতাকে ঐক্যবদ্ধভাবে ময়দানে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।’

কেন্দ্রীয় নায়েবে আমির মুফতি মুহাম্মদ ওয়াক্কাস বলেন, ‘নবীপ্রেমিক মুসলমানরা জেগে উঠেছে। এবার নাস্তিক-মুরতাদদের কোনো ছাড় দেওয়া হবে না। লংমার্চ সফল করে এদেশে তাদের কবর রচনা করা হবে ইনশাআল্লাহ।’

ঢাকা মহানগর সদস্য সচিব মাওলানা জুনায়েদ আল হাবীব বলেন, ‘১৩ দফা দাবি আদায় না হলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ঢাকা শহর অচল করে দেওয়া হবে।’

সভায় আগামীকাল বৃহস্পতিবার সারা দেশের প্রতিটি জেলা ও উপজেলা সদরে লংমার্চ সফল করার লক্ষ্যে প্রচার মিছিল করার জন্য ওলামা-মাশায়েখ ও তাওহিদী জনতার প্রতি আহবান জানানো হয়।

সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা আবদুল কুদ্দুস, মাওলানা নুরুল ইসলাম, মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী, মাওলানা জাফরুল্লাহ খান, মাওলানা আহলুল্লাহ ওয়াছেলসহ সকল ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দ ও কওমী মাদরাসার প্রিন্সিপাল ও দায়িত্বশীলরা।

সম্মেলনে ঢাকা ও আশপাশের এলাকার প্রায় ৮ শতাধিক ওলামা-মাশায়েখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।