বিরোধী নেতাদের মুক্তি দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করার আহ্বান সিপিডির

সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষে ও  দেশের বর্তমান সংকট নিরসন সরকারকে রূপরেখা দিয়েছেন সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)।বিরোধী দলের নেতাদের মুক্তি দিয়ে সুষ্ঠু নির্বাচনের পরিবেশ তৈরি করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। পাশাপাশি বর্তমান রাজনীতিকে অপরিবর্তিত রেখে অর্থনীতিকে রক্ষার ব্যবস্থা, জরুরিভাবে সবধরনের নাশকতা ও ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ড বন্ধেরও আহ্বান জানান সংগঠনের নেতারা।
শনিবার গুলশানের একটি হোটেলে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)  আয়োজিত ‘বর্তমান বাংলাদেশ: রাজনৈতিক প্রেক্ষিত ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি’ শীর্ষক সংলাপে এ রূপরেখা সিপিডির সম্মানিত ফেলো ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য।
সংলাপে সভাপতিত্ব করেন সিপিডির চেয়ারম্যান ড. রেহমান সোবহান।এতে  দেশের বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ ও অর্থনীতিবিদরা অংশ নেন।

দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য তার গবেষণায় বলেন, “১৯৪৭-৯৫ পর্যন্ত অর্থাৎ স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনের সময়ে গড়ে প্রতিবছর ১৭ দিন হরতাল হয়েছে। কিন্তু আমরা  লক্ষ করছি, গণতান্ত্রিক সরকারের আমলে হরতালের গড়সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৬-এ। রাজনৈতিক দাবি আদায়ের লক্ষেই বেশি হরতাল হয়েছে। অর্থনীতি সুরক্ষাসহ অন্যান্য কারণে ৫ শতাংশেরও কম হরতাল লক্ষ করা গেছে। এ অবস্থা চলতে থাকলে বার্ষিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হবে না। বরং অর্থনৈতিক অবস্থা হ্রাস পাচ্ছে।”

তিনি বলেন, “আমাদের গবেষণা অনুযায়ী প্রবৃদ্ধি হবে ৫ দশমিক ৯ শতাংশ। যদিও অর্থমন্ত্রী বলছেন, সরকারের লক্ষ্যমাত্রা ৭ দশমিক ২ শতাংশ থাকলেও প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ৪ শতাংশ অর্জিত হবে। গত আট মাসে অর্থের তারল্য ৫০ শতাংশ বেড়েছে, যা ৬১ হাজার কোটি ৭০ লাখ টাকায় পৌঁছেছে। এ কারণে কলমানি রেটও কমেছে। ২০১২ সালে কলমানি রেটের ওপ সুদের হার যেখানে ছিল ১০ দশমিক ৬ শতাংশ সেখানে চলতি বছরে মার্চে তা নেমে হয়েছে ৭ দশমিক ৫ শতাংশ।”

দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য বলেন, “রাজনৈতিক অস্তিরতার কারণে সব সরকারের মেয়াদের শেষ সময়ে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমে যাওয়ার প্রবণতা রয়েছে। এ বছরেও ৬.৩ শতাংশ কমে যাওয়ার অশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও সরকারের শেষ বছরে অবৈধভাবে অর্থ পাচারের প্রবণতাও বেড়ে যায়। বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের শেষ সময়ে এই হার দ্বিগুণ বেড়ে গিয়েছিল।”

তিনি বলেন, “হরতালের কারণে রাজস্ব আয়ও কমে যাচ্ছে। হরতালে রফতানিও যেমন কমেছে, তেমনি আমদানি কমেছে। এছাড়া বৈদেশিক সাহায্যও কমে আসছে।”

সংলাপে উপস্থিত ছিলেন, প্রবীণ আইনজীবী ড. কামাল হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদ, বিএনপি নেতা ড. এম ওসমান ফারুক, ব্যবসায়ী নেতা একে আজাদ আব্দুল আউয়াল মিন্টু, শিক্ষাবিদ মনিরুজ্জামান মিঞা, সিপিডির নির্বাহী পরিচালক মুস্তাফিজুর রহমান, তরুণ রাজনীতিক আন্দালিব রহমান পার্থ প্রমুখ।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।