আমাকে ‘রাজাকার’ বলে আখ্যায়িত করতে পারলে আপিল করবো না: মোবারক

মুক্তিযুদ্ধকালিন মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে  আটক ব্রাক্ষণবাড়িয়ার মোবারক হোসেন ট্রাইব্যুনালে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে বলেছেন, “আমি রাজাকার নই। আমার বিরুদ্ধে যে গ্রামের হত্যার অভিযোগ আনা হয়েছে ওই গ্রামের কোনো একজন লোক আমাকে ‘রাজাকার’ বলে আখ্যায়িত করতে পারলে ইনশাআল্লাহ আপিল করবো না।” তিনি বলেন, “আমি জানতাম মুক্তিযোদ্ধারা রাজাকারদের বিরুদ্ধে  অভিযোগ করে কিন্তু আমার ক্ষেত্রে একজন রাজাকার অভিযোগ করেছে।” মঙ্গলবার বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে গঠিত তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনাল-১ তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশ দেয়ার পর তাকে দোষী না নির্দোষ প্রশ্ন করলে তিনি এ উত্তর দেন।

ট্রাইব্যুনাল মোবারকের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের আদেশটি ইংরেজিতে পড়া শেষ করে তাকে প্রশ্ন করেন- মোবারক সাহেব আমরা আপনার বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগ গঠন করেছি। আপনি তো শুনেছেন। আপনার মতামত কি?

তখন মোবারক হোসেন বলেন, “আমি ইংরেজি বুঝি না।”

এ সময় মোবারক হোসেনকে এজলাসের পেছনে থাকা আসামির কাস্টডি থেকে বিচারকদের সামনে স্থাপিত সাক্ষীদের দাঁড়ানোর জায়গায় কাঠগড়ায় নিয়ে যাওয়া হয়। পরে চেয়ারম্যান ফজলে কবীর তার বিরুদ্ধে গঠিত পাঁচটি অভিযোগ বাংলায় পড়ে শোনান।

অভিযোগ শোনার পর মোবারক হোসেন ট্রাইব্যুনালের অনুমিত নিয়ে বলেন, “আমি নির্দোষ। যদি ওই গ্রামের একজন লোকও আমাকে রাজাকার বলে সাক্ষ্য দেয় তাহলে ইনশাআল্লাহ আমি আপিল করবো না।”

এ সময় ট্রাইব্যুনাল তাকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, “ঠিক আছে, মামলার শুনানি হবে, উভয়পক্ষের স্বাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে। তারপর বিচারটা বোঝা যাবে।”

আদালত আরো বলেন, “আপনার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণ করার দায়িত্ব তো রাষ্ট্রপক্ষের।”

প্রসঙ্গত, মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে আটক মোবারক হোসেনের জামিন বাতিল করে তার বিরুদ্ধে পাঁচটি অভিযোগের ভিত্তিতে অভিযোগ গঠন করেছে ট্রাইব্যুনাল।

একই সঙ্গে আগামী ১৬ মে রাষ্ট্রপক্ষের সূচনা বক্তব্য (ওপেনিং স্টেটমেন্ট) উপস্থাপনের জন্য দিন ধার্য করা হয়েছে। ওই দিনের মধ্যে উভয়পক্ষকে তাদের ডকুমেন্ট ও সাক্ষীদের তালিকা জমা দেয়ার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
মোবারকের বিরুদ্ধে হত্যা, অপহরণ, আটক ও নির্যাতনসহ চার ধরনের পাঁচটি অভিযোগ আনা হয়েছে।


সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।