সাভারে ৮ তলা ভবন ধ্বস,৮৫জনের লাশ উদ্ধার, বহু হতাহতের আশঙ্কা

সারাজধানীর উপকন্ঠে সাভারের জামতলায় একটি বহুতল ভবন ধসের পর এ পর্যন্ত ৮৫ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে, আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে পাঁচ শতাধিক লোককে, হতাহতদের প্রায় সবাই তৈরি পোশাক কারখানার শ্রমিক। আটতলা বিশিষ্ট ওই ভবনটির প্রথম ও দ্বিতীয় তলায় বিপণী বিতান ও ব্যাংক এবং ওপরের পাঁচতলা জুড়ে তিনটি তৈরি পোশাক কারখানা ছিল। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আশঙ্কা করছেন, মৃতের সংখ্যা একশ পেরিয়ে যেতে পারে।

এর আগে সাভারের এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক মনিরুজ্জামান জানিয়েছিলেন, বেলা সাড়ে ১১টা পর্যন্ত এই হাসপাতালের মর্গে দুর্ঘটনা

74285_553476594704108_220394838_n

য় নিহত কমপক্ষে ৩০ জনের মৃতদেহ রাখা হয়েছে। এছাড়া সাভারের অন্য ক্লিনিকেও মৃতদেহ রাখা হয়েছে। ধসে পড়া ওই ভবন থেকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে কয়েকশ নারী-পুরুষকে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সেনাবাহিনী উদ্ধার কাজে অংশ নিয়েছে। এছাড়া বিজিবি, ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় জনতা উদ্ধার কাজে সহযোগিতা করছে।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বুধবার সকাল ৯টার দিকে ভবনটি ধসে পড়ে। ভবনটির নিচের তলাগুলোতে শপিং মল আর উপরে গার্মেন্ট কারখানা।

জানা যায়, মঙ্গলবার ওই ভবনের তিন ও চার তলার পিলারে ফাটল দেখা দেয়। এরপর সাভার উপজেলা নির্বাহী কমকর্তা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে নিরাপত্তার স্বার্থে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত ওই ভবনের সব ধরনের কার্যক্রম বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। ভবনটির মালিক সাভার পৌর যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সোহেল রানা।
ভবনে চারটি গার্মেন্ট সহ বহু প্রতিষ্ঠান ছিল। ভবনে ফাটল দেখা দিলে আতঙ্কে ওই ভবনের চারটি পোশাক কারখানা ও একটি বেসরকারি ব্যাংকের শাখা বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার সকালে ভবন থেকে মালামাল সরাতে যান প্রায় সবগুলো দোকান ও প্রতিষ্ঠানের লোকজন। এছাড়া গার্মেন্ট সকালে খুলে দেয়া হলে কয়েক হাজার শ্রমিক কাজে যোগ দেন।
এদিকে, ভবন ধসের খবর শুনে হাজার হাজার মানুষ ভিড় করছেন রানা প্লাজার সামনে। স্বজন হারানো কান্নায় সেখানকার বাতাস ভারি হয়ে উঠছে।

 সম্পাদনা: শামীম ইবনে মাজহার,নিউজরুম এডিটর

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।