সোমবারের মধ্যে জাবি ভিসিকে পদত্যাগের আলটিমেটাম

বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত সাধারণ শিক্ষক ফোরাম আগামী সোমবারের মধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেনকে পদত্যাগের আলটিমেটাম দিয়েছেন। এর মধ্যে পদত্যাগ না করলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তারা।

শুক্রবার দুপুর একটায় জরুরি সংবাদ সম্মেলনে তারা এ কথা বলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ‘সাধারণ শিক্ষক ফোরাম’র সদস্য সচিব অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, “ভিসি যে কুকর্ম করেছেন তা তিনি অনুধাবন করতে পারছেন না। তিনি সব সময় মিডিয়ায় মিথ্যাচার করছেন। এজন্য আমরা চাই  তার বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো আনা হয়েছে তা যেন রাষ্ট্রপতি খতিয়ে দেখেন।”

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, এখন থেকে প্রতিদিন বেলা ১১টায়, বিকেল চারটায় এবং রাত নয়টায় সংবাদ সম্মেলন করে আন্দোলনের বিষয় সাংবাদিকদের অবহিত করা হবে। এছাড়া ওই সময়গুলোতেও উপাচার্যেও সঙ্গে দেখা করতে সাংবাদিকদের অনুরোধ করেন তারা।

ভিসির বিরুদ্ধে যে অভিযোগগুলো আনা হয়েছে তা রাষ্ট্রপতিকে জানানো হয়েছে কি না সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, “এর আগে শিক্ষক সমিতি এ উদ্যোগ নিয়েছিল। কিন্তু উপাচার্য রিটের মাধ্যমে সে পথ রুদ্ধ করেছেন। তবে আচার্য যদি আমাদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চান তাহলে আমরা রাজি আছি।”

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন কলা ও মানবিকী অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক অসিত বরণ পাল, সাবেক প্রক্টর অধ্যাপক সুকল্যান কুমার কুণ্ডু, অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন, সহযোগী অধ্যাপক জামালউদ্দিন, কবিরুল বাশার, আসম ফিরোজ-উল-হাসান প্রমুখ।

এদিকে  বুধবার বেলা ১১টা থেকে ভিসিকে টানা তিন দিনের মতো অবরুদ্ধ করে রেখেছেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা। তিনিও তার অবস্থানে অনড় আছেন। তবে তিনি বলেছেন, রাষ্ট্রপতি চাইলে আমি পদত্যাগ করব।

উল্লেখ্য, শিক্ষক লাঞ্ছনার বিচার, ভর্তি পরীক্ষায় অনিয়ম, মিডিয়াতে বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে অশালীন ও আপত্তিকর বক্তব্য, জীববৈচিত্র্য ধ্বংস, অযোগ্য প্রর্থীকে শিক্ষক নিয়োগের প্রচেষ্টা, অমুক্তিযোদ্ধার সন্তানকে মুক্তিযোদ্ধার কোটায় ভর্তিসহ বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট ১২টি অভিযোগে ভিসির পদত্যাগ দাবিতে আন্দোলন করছে সাধারণ শিক্ষক ফোরাম।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।