২৬ সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী আইন মানেননি

কথা রাখেননি আওয়ামী লীগের ২৬ সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী। সর্বদলীয় সরকার গঠনে মন্ত্রিসভা পুনর্গঠনের সময় বাদপড়া আওয়ামী-লীগের ৩০ জন সাবেক মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের ২৬ জনই নির্ধারিত সময়ে সরকারি বাসা ছাড়েননি। আইন অনুসারে এক মাসের মধ্যে বাসা ছেড়ে দেয়ার কথা থাকলেও তা মানেননি তারা।

মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রীদের পারিতোষিক ও বিশেষাধিকার আইন অনুযায়ী, মন্ত্রিত্ব থেকে পদত্যাগের পর একমাস পযর্ন্ত তারা সরকারি বাসাতে থাকতে পারেন।

অন্যদিকে সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আফছারুল আমীন উত্তরার সরকারি একটি বাসা স্ত্রীর নামে লিখে নিয়েছেন বলে মন্ত্রণালয় সুত্রে জানা গেছে।

মন্ত্রীদের মধ্যে রয়েছেন, মহীউদ্দীন খান আলমগীর, দীপু মনি, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, শফিক আহমেদ, দীলিপ বড়ুয়া, রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু, সাহারা খাতুন, রেজাউল করিম হিরা, আবুল কালাম আজাদ, এনামুল হক মোস্তফা শহীদ, ফারুক খান, আব্দুর রাজ্জাক, আফসারুল আমীন, আ ফ ম রুহুল হক, আব্দুল লতিফ বিশ্বাস এবং মোস্তফা ফারুক মোহাম্মদ বাদ পড়েন।

অন্যদিকে প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে বাদ পড়েন জাহাঙ্গীর কবির নানক, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, এ বি তাজুল ইসলাম, স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, আহাদ আলী সরকার, মো. শাহজাহান মিয়া ও আব্দুল মান্নান খান, মো. মোতাহার হোসেন, মোহাম্মদ এনামুল হক, মজিবুর রহমান ফকির, ওমর ফারুক চৌধুরী, মো. মাহবুবুর রহমান, মো. আব্দুল হাই এবং মেহের আফরোজ চুমকি।

মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা ‘ভিভিআইপি’ হওয়ায় সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং পরিদপ্তর তাদের বাড়ি ছাড়তে তাগাদা দেবে না বলে জানিয়েছে।

২১ নভেম্বর মন্ত্রিসভা থেকে বাদ পড়েন ১৬ জন মন্ত্রী ও ১৪ প্রতিমন্ত্রী। এদের মধ্যে শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব চালিয়ে আসা দীলিপ বড়ুয়া ছাড়া বাকি সবাই আওয়ামী লীগের।

এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে গৃহায়ন ও গণপূর্ত সচিব খোন্দকার শওকত হোসেন নতুন বার্তা ডটকমকে বলেন, “কেউ কেউ (মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী) বাড়ি ছেড়েছেন। কেউ কেউ ছাড়ছেন, কেউ কেউ বাড়ি ছাড়ার সময় পেরিয়ে গেলেও আছেন।”

২২ ডিসেম্বর পর্ন্ত কতজন মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী বাড়ি ছেড়েছেন সে বিষয়ে কোনো তথ্য জানাননি সচিব। যেসব মন্ত্রী সরকারি বাড়ি ছাড়েননি তাদেরকে তাগাদা দেয়া হবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমার মনে হয় সেটা লাগবে না।”

প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাব অনুযায়ী নির্বাচনকালীন ‘সর্বদীয়’ সরকার গঠনে অন্য মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে গত ১১ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে এরা পদত্যাগপত্র তুলে দিয়েছিলেন। রাষ্ট্রপতি এদের পতদ্যাগপত্র গ্রহণ করলে তারা মন্ত্রিসভা বাদ পড়েন। আইন অনুযায়ী, গত ২১ নভেম্বরের (পদত্যাগের দিন থেকে এক মাস) মধ্যে পদত্যাগ করা মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের সরকারি বাড়ি ছাড়ার কথা।

সরকারি আবাসন পরিদপ্তরের পরিচালক মো. আশরাফুল ইসলাম বলেন, পদত্যাগ করা মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের মধ্যে দুই-একজন সরকারি বাড়ি ছেড়েছেন। এদের নাম না জানিয়ে তিনি বলেন, “বাকিরা বাড়ি ছাড়েননি। ছাড়বেন কি না তাও জানাননি।”

অন্যদিকে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা না প্রকাশ না করার শর্তে এক কর্মকতা বলেন, “প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আফছারুল আমীন এবং মৎস ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী আব্দুল লতিফ বিশ্বাস আইন মেনে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সরকারি বাড়ি ছেড়েছেন।”

কিন্তু সাবেক প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী আফছারুল আমীন উত্তরার একটি সরকারি বাসা তার স্ত্রীর নামে লিখে নিয়ে সেখানে বসবাস করছেন বলে জানা গেছে। এছাড়া প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোতাহার হোসেন এবং ভূমি প্রতিমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার সরকারি বাড়ি ছেড়েছেন বলে জানান ওই কর্মকর্তা।

আইন অনুযায়ী নিদির্ষ্ট সময়ের মধ্যে বাড়ি না ছাড়লেও মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের কোনো তাগাদা দেয়া হবে কিনা জানতে চাইলে আশরাফুল বলেন, “ভিভিআইপিদের রিমাইন্ডার দেয়া যায় না। রিমাইন্ডার দেয়াও হবে না।”

পদত্যাগ করা মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীরা আইন মানছেন না- এমন বক্তব্যের জবাবে তিনি বলেন, “সরকারি বাড়িতে তারা যত দিন বেশি থাকবেন ইচ্ছে করলে তাদের তত দিনের জরিমানা করা যাবে।”

তবে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বাড়ি না ছাড়া মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীদের জরিমানা করা হবে কি না সে বিষয়ে কিছু বলেননি প্রশাসন ক্যাডারের এই কর্মকর্তা।

নির্ধারিত সময়ে বাড়ি না ছাড়লে চাইলে বাড়ি ভাড়ার অতিরিক্ত ৫০ থেকে একশ’ শতাংশ পর্যন্ত জরিমানা করা যায় বলে জানান আশরাফুল।

 

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।