ধর্ম প্রতিমন্ত্রী’র এপিএস শৈলেনের বিপুল সম্পদের খোঁজ পেয়েছে দুদক

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান মিয়ার এপিএস শৌমেন্দ্র চন্দ শৈলেনের বিপুল অবৈধ সম্পদের খোঁজ পেয়েছে । তার বিরুদ্ধে ভারতে অর্থপাচারের অভিযোগও তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে দুদক সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়,  শৈলেন বিদেশে অর্থ পাচার করে তার দুই ভাই ও বোনের নামে বাড়িসহ বিপুল সম্পদ গড়েছেন। মন্ত্রীর এপিএস হওয়ার আগে তার দুই ভাই কলকাতায় চায়ের দোকানে কাজ করতেন বলে জানা গেছে। বর্তমানে  ওই দুই ভাই ও বোন কলকাতায় বিশাল বাড়ি ও ব্যবসা গড়ে তুলেছেন শৈলেনের পাচার করা টাকায়। শুধু তাই নয়, রাজনৈতিক সুবিধা নিয়ে শৈলেন পটুয়াখালী ও ঢাকায় গাড়ি-বাড়িসহ নামে-বেনামে বিপুল সম্পদ গড়ে তুলেছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

সূত্র জানায়, ভাই রবিন চন্দকে কলকাতার ৪ নম্বর সন্তোষ রায় রোড, শাখের বাজারে; আরেক ভাই শচীন চন্দকে ২৪ পরগণার ১৫৪ হাসপুকুর গ্রিনপার্ক জকায় এবং বোন নমিতা চন্দের স্বামী কিসেন্দ্র মিত্রকে কলকাতার ২১/৩ রাম গোপাল পাল মিত্র রোডে বাড়ি করে দিয়েছেন শৈলেন।

দুদক সূত্রে জানা গেছে, তদন্তের স্বার্থে শৈলেনের দুই ভাইকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে।

এদিকে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে শৌমেন্দ্র চন্দ শৈলেনকে গত ১৮ ফেব্রুয়ারি  সকাল ১০টা থেকে দুপুর সোয়া ১২টা পযর্ন্ত জিজ্ঞাসাবাদ করেন দুদকের উপপরিচালক আহসান আলী।

দুদক সূত্র জানায়, এ ব্যাপারে শিগগিরই সাবেক ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হবে।
দুদক সূত্র আরো জানায়, এপিএস শৈলেনের বিরুদ্ধে প্রায় ৫০ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ রয়েছে। পটুয়াখালীতে শৈলেনের পাঁচতলা একটি বাড়িসহ রাজধানীতে একাধিক ফ্ল্যাট রয়েছে। এ ছাড়া ভারতে অর্থপাচার ও ৫০৪টি হজ এজেন্সির কাছ থেকে কোটি কোটি টাকা অবৈধভাবে আদায়ের অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

প্রসঙ্গত,  গত ১৮ ফেব্রুয়ারি শৈলেনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নোটিশ দেয় দুদক।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।