কালবৈশাখী ঝড়ে একই পরিবারের চারজনসহ নিহত ১১

কালবৈশাখী ঝড়ে নেত্রকোনায় একই পরিবারের চারজনসহ অন্তত ৮ জন এবং সুনামগঞ্জে তিন জনসহ দুই জেলায় মোট ১১ জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

সোমবার রাত ১১টার পর দুই জেলার এসব অঞ্চলের উপর দিয়ে ঘূর্ণিঝড় বয়ে যায়।

আমাদের নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, ঘূর্ণিঝড় নেত্রকোনা সদর, কলমাকান্দা, বারহাট্টা ও মোহনগঞ্জ উপজেলায় আঘাত হেনেছে। এর মধ্যে কমলাকান্দায় ঝড়ের তাণ্ডবে একই পরিবারের চারজনসহ পাঁচ জন নিহত হয়েছেন।

উপজেলার সিদলী বিষমপুর গ্রামের নিহতরা ব্যক্তিরা হলেন- তিন ভাই সাগর (১০), রাসেল (৬) ও রানা (৪) এবং তাদের সৎ মা আফরোজা (২২)।

এছাড়া জেলা সদরের বর্ণি গ্রামের ফজর আলী মুন্সি (৮০), বারহাট্টা গাবারকান্দার এমদাদ (১৪), এবং মোহনগঞ্জ তেতুলিয়া গ্রামের সোমা (৯)। অপর একজনের পরিচয় জানা সম্ভব হয়নি।

ঝড়ে এসব উপজেলায় কমপক্ষে আরো ২৫ জন আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করেছে এলাকাবাসী।

কমলাকান্দা থানার ওসি আবদুল করিম ঘটনার সত্যতা ‍নিশ্চিত করে জানান, ঝড়ে ঘর ও গাছের চাপায় বিষমপুর গ্রামে একই পরিবারের চারজনসহ পাঁচজন নিহত হয়েছেন।

এদিকে, ঝড়ের পর থেকে জেলার ১২টি উপজেলায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। এছাড়া ফসলেরও ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সুনামগঞ্জে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি, নিহত ৩

সুনামগঞ্জে কালবৈশাখী ঝড়ে ধর্মপাশা, জামালগঞ্জ ও দিরাই উপজেলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। ঝড়ে ধর্মপাশায় তিন জন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

এদের মধ্যে উপজেলার মহদিপুরে একটি ইটভাটায় দেয়ালের নিচে চাপা পড়ে পাহারাদার শামসুল হক (৬৫) মারা যান। এছাড় সুকাইরাজাপুর গ্রামের কাচু মিয়ার (৩৫) পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে।

রবিবার রাত সাড়ে ১০টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত ঝড়ে প্রায় দেড় শতাধিক বাড়ির ছাউনি উড়ে গেছে। এসময় প্রায় ৭০টি কাঁচা বাড়িঘর বিধ্বস্ত হয়েছে।

স্থানীয়রা জানায়, ধর্মপাশা সদর ইউনিয়নে ৫০টি কাঁচা ঘড়বাড়ি বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। এছাড়া, আধাপাকা ২০টি বাড়ির টিনের ছাউনি উড়ে গেছে। উপজেলার মধ্যনগর সড়কে শতাধিক গাছ পড়ে গেছে। এত সড়ক যোগাযোগ ও বিদ্যুত বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে পুরো এলাকা।

এছাড়া, ধর্মপাশা উপজেলা পরিষদ, ডাকবাংলো ও থানা এলাকার প্রায় ২০/২৫টি বড়বড় গাছ পড়ে গেছে। এছাড়া, উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের শতাধিক বাড়িঘরের ছাউনি উড়ে গেছে।

সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. ইয়ামিন চৌধুরী জানান, রাতে কালবৈশাখী ঝড়ে ধর্মপাশা উপজেলায় তিনজন নিহত হয়েছেন।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।