মানুষের সেবা করাই আমার ধর্ম

আসন্ন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৯নং ওয়ার্ডের সম্ভাব্য কাউন্সিলর পদপার্থী মোঃ আকবর হোসেন  এক সাক্ষাৎকারে বলেন, কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মধ্যে ১৯নং ওয়ার্ড একটি ব্যতিক্রমধর্মী ওয়ার্ড। এ ওয়ার্ডের সাধারণ মানুষ যখনই কোন বিপদ-আপদে পড়ে তখন রাত ৩টা বাজলেও তারা আমাকে সাথে পায়। সর্বদা মানুষের সেবা করাই আমার লক্ষ্য। আমি মানুষের উপকার করতে পারলে শান্তি পাই।

 

আগামী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ১৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হয়ে সাধারণ মানুষের সেবা ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে চাই। এলাকার জনগনের  সার্বিক সহযোগিতার জন্য  আমাকে সাধারণ মানুষ কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের ১৯নং ওয়ার্ডের  কাউন্সিলর হিসেবে দেখতে চায়। আমি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ সমর্থিত আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবকলীগের একজন জেলা পর্যায়ের নেতা।

 

বিগত বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের আমলে আমি রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার হয়েছি। বর্তমান সংসদ সদস্য ও পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল(লোটাস কামালের) একজন বিশ্বস্থ কর্মী হিসেবে পরিচিত। বর্তমানে আমার ১৯নং ওয়ার্ডে স্কুল, কলেজ মাদ্রাসা সহ ১৫টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। তাই আমি আগামী নির্বাচনে কাউন্সিলর  নির্বাচিত হলে প্রথমে সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত করে এলাকার সকলকে সাথে নিয়ে শিক্ষার সুষ্ঠ পরিবেশ গড়ে তুলবো।

 

বিশেষ করে এই এলাকাটি ইপিজেড এলাকার কিছু অংশ থাকায় ইপিজেডের সকল বর্জ্য ১৯নং ওয়ার্ডের মধ্য দিয়ে ছাড়া হয়। যার ফলে পরিবেশ দূষণ সহ কৃষি ও মৎস্য শিল্পের ব্যাপক ক্ষতি হয়। আমি নির্বচিত হলে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মোস্তফা কামালের সহযোগীতায় পরিবেশ দূষণের স্থায়ী সমাধানের চেষ্টা করবো।

 

এই ওয়ার্ডের চারটি গ্রাম শহরের সংমিশ্রন হওয়ায় ইপিজেড এর শ্রমিকদের বাসস্থান তৈরির কারণে ঘনবসতি সৃষ্টি হয়। যার ফলে এক বাড়ির ময়লা পানি অন্য বাড়ির ঘরের মধ্যে প্রবেশ করে। প্রতিনিয়ত ঝগড়া সৃষ্টি হয়। আমি প্রত্যেক বাড়ির ড্রেনেজ ব্যবস্থা করবো।

 

রাজাপাড়া এলাকার মধ্যে ১৬০টি পরিবার নিয়ে গড়ে ওঠে আশ্রয়ন প্রকল্প, যেখানে শিক্ষা স্বাস্থ্য পরিবেশ হুমকির সম্মুখিন। আমি নির্বাচিত হলে আশ্রয়ন প্রকল্পের সকল ছেলে-মেয়ের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবার ব্যবস্থা করবো।

 

আমি নির্বাচিত হলে রাজাপাড়া, নেউরা, ঢুলিপাড়া, নোয়াপাড়া সহ সকল সমাজকর্মী ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের নিয়ে সকল সামাজিক কাজ ও মডেল ওয়ার্ড তৈরি করবো।

 

আমি নির্বাচিত হলে এই এলাকার বঞ্চিত মানুষের পাশে থাকবো। এই ওয়ার্ডে ওয়াসার পানির লাইন ও পানিক ট্যাংক স্থাপনের ব্যবস্থা করবো। নিয়মিত গ্যাস সরবরাহের চেষ্টা করবো।

 

সাক্ষাতৎকারে গ্রহণের সময় উপস্থিত ছিলেন ইসমাইল হোসেন ধনু, ১৯নং আওয়ামীলীগ নেতা আবদুল মান্নান মোহন, কাজী আওলাদ হোসেন, প্রফেসর অলি আহমেদ, কুমিল্লা কোতয়ালী থানা সাবেক যুবলীগ নেতা হুমায়ুন কবীর, এনামুল হক টিপু, প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সদস্য সংগঠনিক সম্পাদক জামাল উদ্দিন, নাট্য ব্যক্তিত ওমর ফারুক সুমন, ফাহিম চৌধুরী, যুবলীগ নেতা মোঃ হোসেন, যুবলীগ নেতা আবুল হাসান রতন,মামুন মিয়া, মাসুকুর রহমান মজুমদার।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।