সেপটিক ট্যাংকে পড়ে কুমিল্লায় শিশুর মৃত্যু

কুমিল্লার কোটবাড়ি গন্ধমতি এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনের সেপটিক ট্যাংকে পড়ে ইমরান হোসাইন নামে আড়াই বছরের এক শিশু নিহত হয়েছে। নগরীর কোটবাড়ি গন্ধমতি এলাকার দক্ষিণ বাগমারার প্রবাসী মামুন ভুঁইয়ার নির্মাণাধীন ভবনে গত কাল সোমবার এ ঘটনা ঘটে।

শিশু ইমরান হোসাইন জেলার চান্দিনা উপজেলার জিরবাইশ গ্রামের ফারুক হোসেন ছেলে। সে তার পরিবারের সাথে কোটবাড়ির দক্ষিণ বাগমারার সিটি কলেজের পিছনে ঝরিনা মঞ্জিলে ভাড়া থাকত।

নিহত ইমরানের বাবা ফারুক হোসেন জানান, তার স্ত্রী হালিমা বেগম প্রবাসী মামুন ভুঁইয়ার নির্মাণাধীন ভবনে কর্মরত শ্রমিকদের রান্নার কাজ করেন। সাথে প্রতিদিন শিশু ইমরানকেও নিয়ে যান। বিকেলে শ্রমিকদের রান্না করতে যাওয়ার সময় সাথে শিশুটিকে নিয়ে যায়। কিছুক্ষণ পর শিশু ইমরান নিখোঁজ হয়। অনেক খোঁজাখুঁজির পর ওই ভবনের সেপটিক ট্যাংক থেকে সন্ধ্যায় ইমরানের মরহেদ উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ২৪ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ফজল খান জানান, শিশুটির মরদেহ সেপটিক ট্যাংক থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। সেপটিক ট্যাংকের ডাকনা খোলা থাকায় শিশুটি পড়ে যায়।

সদর দক্ষিণ কোটবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ নাহিদ আহম্মেদ জানান, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করেছে। শরীরে কোন আঘাতের চিহ্ন না থাকায় প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে খেলতে গিয়ে সেপটিক ট্যাংকে পড়ে নিহত হয়েছে। মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ জানা যাবে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।