বরুড়ায় এক দিনে পৃথক ঘটনায় ৩ জনের অপমৃত্যু

বরুড়ায় এক দিনে পৃথক ঘটনায় ৩ জনের অপমৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে এক গৃহবধূর আত্মহত্যা, এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু ও বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে এক যুবকের মৃত্যু হয়। বরুড়া উপজেলার আদ্রা ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের দিনমজুর মোঃ বিল্লাল হোসেনের স্ত্রী নাজমা আক্তার (২৩) ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেন।

 

রবিবার (৫ আগষ্ট) দুপুর দুইটার দিকে তার ননদ মিনোয়ারা আক্তার প্রাইভেট পড়িয়ে এসে ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পায়, অনেক ডাকাডাকি করেও কোনো সাড়া না পেয়ে লোকজন ডেকে আনে মিনোয়ারা। পরে দরজা ভেঙে ঘরের ভিতর নাজমাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয় স্থানীয়রা। পুলিশ এসে লাশ নামিয়ে থানায় নিয়ে আসে।

 

এই বিষয়ে জানতে চাইলে বরুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আজম উদ্দিন মাহমুদ জানায়, ঘটনাস্থল থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ময়নাতদন্তের জন্য লাশটি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

এদিকে বরুড়া উপজেলায় এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বরুড়া পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের কসামী গ্রামে প্রবাসী ইউছুফের স্ত্রী রাহীমা বেগম (১৮) এর জুলন্ত মরদেহ রবিবার ( ৫ আগষ্ট) বেলা ১২ টার দিকে তার নিজ বসত ঘর থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। স্বামীর পরিবারের লোকজন জানায়, সে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করে।

 

নিহতের মা হুসনেয়ার বেগম অভিযোগ করে বলেন, তার মেয়ের শাশুড়ি নাজমা ও তার দেবর ইউনুছ প্রায় তাকে মানষিক নির্যাতন করতো। রাহিমা আত্মহত্যা করেনি বরং তাকে হত্যা ঝুলিয়ে রেখেছে বলে তিনি দাবী করেন । তার মৃত্যু পূর্বে একটি চিরকুট রেখে গেছে সে, কিন্তু তার মা ও বোনের দাবী এটা তার হাতের লেখা নয়।

 

খবর পেয়ে বরুড়া থানার এস আই মোশারফ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য কুমিল্লা মর্গে প্রেরণ করেন।

 

এ বিষয়ে বরুড়া থানা অফিসার ইনচার্জ আজম উদ্দিন মাহমুদ বলেন, একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

 

অপরদিকে বরুড়ার একবাড়িয়ায় রুবেল হোসেন নামক (৩৫) এক যুবক বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে নিহত হয়েছে। রবিবার (৫ আগষ্ট) দুপুর ২ টার দিকে তার মৃত্যু হয়। সে আদ্রা ইউনিয়নের গনকখুলি গ্রামের মোঃ শাহজানের সন্তান।

 

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নিহত রুবেল পেশায় একজন ইলেক্ট্রিশিয়ান । সে একবাড়িয়া বাজারের রুপালী রিয়েল স্টেট এর বসুন্ধরা বিল্ডিংয়ে বৈদ্যুতিক কাজ করছিল। রুপালী রিয়েল স্টেট এর মালিক ফরিদ উদ্দিন মিয়াজি অনুমোদনবিহীন মেলায় অবৈধ বিদ্যুতের সংযোগ নেওয়ায় ওই তারের সাথে বিদ্যুৎপৃষ্ট হয়ে নিহত হয় রুবেল।