কুমিল্লায় চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু, পুলিশ হেফাজতে হাসপাতাল মালিক

কুমিল্লার দাউদকান্দিতে চিকিৎসকের অবহেলায় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়ে নুরজাহান (২২) এক প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার উপজেলার গৌরীপুরে রংধনু হাসপাতালে সিজারিয়ান অপারেশনের পর তার অবস্থার অবনতি হলে ঢাকায় নেয়া হয়। সোমবার ঢাকার একটি স্পেশালাইজড হাসপাতালে মারা যান তিনি।

 

নুরজাহান কুমিল্লার তিতাস উপজেলার জিয়ারকান্দি ইউনিয়নের বাঘাইরামপুর গ্রামের মো. ডালিম মিয়ার স্ত্রী। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হাসপাতালের মালিককে পুলিশ হেফাজতে নেয়া হয়েছে। তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করা হয়েছে।

 

নূরজাহানের স্বামী মো. ডালিম জানান, গত ২৪ আগস্ট শুক্রবার বিকাল ৫ টায় গৌরীপুরের রংধনু হাসপাতালে আমার স্ত্রী নুরজাহানের সিজারিয়ান অপারেশন হয়। সেখানে এক পুত্র সন্তান জন্ম দেন তিনি। সিজারিয়ান অপারেশন করেন ডা. শাহনাজ পারভীন। এনেসথেসিয়া প্রয়োগ করেন ডা. মোঃ সিরাজুল ইসলাম। ২৫ আগস্ট শনিবার সকালে রোগীর পেট ফুঁলে প্রস্রাব বন্ধ হয়ে যায়।

 

পরবর্তীতে ওইদিন বিকাল ৪ টায় রোগীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। ২৬ আগস্ট রবিবার রাত ২ টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নুরজাহানের দ্বিতীয়বার পেটে অপারেশন করা হয়।

 

পরবর্তীতে রোগীর অবস্থা আরো অবনতি হলে তাকে ঢাকা পান্থপথ ইউনিহেলথ স্পেশালাইজড হাসপাতালে আইসিইউতে ভর্তি করা হয়। ২৭ আগস্ট সোমবার রাত ১২ টা ২২ মিনিটে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুরজাহানের মৃত্যু হয়।