লাকসামে তুলা তৈরির কারখানায় আগুন ।। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৮ লাখ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :
কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কে দেড় ঘন্টা যান চলাচল বন্ধ

লাকসামে তুলা তৈরির কারখানায় আগুন ।। ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৮ লাখ



নিজস্ব প্রতিনিধি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

লাকসামে আগুনে সম্পূন পুড়ে গেছে একটি তুলা তৈরির কারখানা।আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭:৪৫ মিনিটের সময় কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক মহাসড়কের পাশে লাকসাম পৌর এলাকার চিলনিয়া নামক স্থানে রেলের লীজকৃত জমির উপর নির্মিত মার্কেটের তুলা তৈরির কারখানায় এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।

 

মার্কেটের ভাড়াটে পৌরসভার গাজীমুড়া গ্রামের দেলোয়ার হোসেন দ্বীর্ঘ দিন প্রবাসে থেকে জীবনের সকল সম্ভল দিয়ে ওই মার্কেটের ৪টি রুম ভাড়া নিয়ে তুলা/ঝুট পরিশোদন কেন্দ্র ও লেপ তোষক সামগ্রী পাইকারী বিক্রির প্রতিষ্ঠান হিসাবে গড়ে তুলে। এ অগ্নিকান্ডের ঘটনায় দেলোয়ার হোসেন সম্পূর্ন নিঃস্ব হয়ে যায়।

 

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ওই দিন সন্ধ্যা পৌনে আটটার দিকে হঠাৎ ওই কারখানার ভিতর থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখে আশ-পাশের লোকজন এগিয়ে আসে। নিমিষের মধ্যেই ধাউ ধাউ করে আগুনের লেলিহান শিখা পুরো কারখানায় ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় ভয়ে আসপাশের লোকজন দ্বিগবিদ্বিগ ছুটতে থাকে। আগুন দেখে ওই সড়কে চলাচলকারী যাত্রীবাহী বাসসহ অন্যান্য যানবাহন থমকে দাড়ায়। এ সময় বাসে থাকা যাত্রীরা ভয়ে চিৎকার দিয়ে বাস থেকে নেমে পড়েন।

 

এমতাবস্থায় স্থানীয় লোকজন লাকসাম ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলে তাঁরা ঘটনাস্থলে এসে আগুন নিভাতে চেষ্টা চালায়। প্রায় দেড় ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রনে আনে। তবে পুরো দমে আগুন নিভাতে প্রায় দুই ঘন্টার অধিক সময় লাগে। অগ্নিকান্ডের সঠিক কারণ এখনো জানা যায়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট কিংম্বা অসাবধান বশত জলন্ত বিড়ি সিগারেট ফেলায় এই অগ্নিকান্ড ঘটতে পারে।

 

এ দিকে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক সড়কের পাশে তুলা তৈরির কারখানায় অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ঢাকা, কুমিল্লা থেকে নোয়াখালীগামী এবং নোয়াখালী থেকে ঢাকাগামী যাত্রীবাহী বাসসহ প্রায় দেড় শতাদিক যানবাহন আটকা পড়ে। এসময় প্রায় ৩/৪কিঃমিঃ যানজট সৃষ্টি হয়। আগুন কিছুটা নিয়ন্ত্রনে আসলে প্রায় দেড় ঘন্টা পর ওই সড়কে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায় যে, অগ্নিকান্ডের কারনে ওই কারখানার মালিক দেলোয়ার হোসেন অনেকটা বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছেন। ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ জানতে চাইলে তিনি হাউ মাউ করে কিছুই বলতে পারেননি। তবে ধারণা করা হচ্ছে ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ কমপক্ষে ৮ লাখ টাকা হবে।

 

লাকসাম ফায়ার সার্ভিসের জেষ্ঠ্য ষ্টেশন কর্মকর্তা মো. শফিকুল ইসলাম জানান, সংবাদ পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে দমকল বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে প্রায় দ্ইু ঘন্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিভাতে সক্ষম হন। এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।

 

তিনি জানান, অগ্নিকান্ডের সঠিক কারণ জানা যায়নি। তবে তদন্ত কমিটি গঠন করা হলে আশা করি অগ্নিকান্ডের প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

 


এ সম্পর্কিত আরো খবর

কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
লাকসাম এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ