নাঙ্গলকোটে ভাতিজার ঘুষিতে ফুফু নিহত, ভাতিজা আটক - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

নাঙ্গলকোটে ভাতিজার ঘুষিতে ফুফু নিহত, ভাতিজা আটক



বারী উদ্দিন আহমেদ বাবর, কুমিল্লা প্রতিনিধি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

কুমিল্লার নাঙ্গলকোটে আপন ভাতিজার ঘুষিতে অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মচারী ফুফু নিহত হয়েছে। গতকাল শনিবার বিকেলে উপজেলার বক্সগঞ্জ ইউনিয়নের বোড়রা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহতের নাম তফুরা খাতুন। তিনি ওই গ্রামের মৃত ছেরাজুল হকের মেয়ে। এ ঘটনায় নিহতের ভাতিজা আবুল কাশেমের ছেলে ঘাতক মামুন হোসেনকে আটক করেছে পুলিশ। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় রাখা হয়েছে। আগামীকাল রোববার ময়নাতদন্তের পর লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

 

নিহতের পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিহত তফুরা খাতুন পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত একজন কর্মচারী ছিলেন। তিনি নিঃসন্তান ও স্বামী পরিত্যাক্তা। দীর্ঘ কয়েক বছর ধরে বাপের বাড়ীতেই রয়েছেন তফুরা। ঘাতক মামুন হোসেন নিহতের ভাই আবুল কাশেমের ছেলে। পরিবারের দাবী মামুন বেশ কিছুদিন ধরে মানসিক রোগে ভুগছেন। শনিবার বিকেলের দিকে কৃষি জমিতে ব্যবহারের জন্য ঘরে থাকা পোকা দমনের ঔষধ নিয়ে মামুন খাওয়ার চেষ্টা করে। এসময় ফুফু তফুরা খাতুন ও মা ফিরোজা বেগম দেখে দৌঁড়ে গিয়ে তার হাত থেকে বিষের বোতল কেড়ে নেয়ার চেষ্ঠা করে। ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ভাতিজা মামুন ফুফু তফুরার গলা চেপে ধরে ও ঘুষি মারে। এতে তফুরা অজ্ঞান হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। এর কিছুক্ষন পর তফুরার মৃত্যু হয়েছে বলে তার পরিবার দাবী করেন।

এ বিষয়ে নাঙ্গলকোট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. আশ্রাফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে জানান, নিহতের ভাতিজা মামুন মানসিক ভারসাম্যহীন একজন রোগী। সে বিষ খাওয়ার চেষ্টা করলে তার মা ফিরোজা বেগম ও ফুফু তফুরা খাতুন সেটি কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করে। এসময় ধস্তাধস্তির একপর্যায়ে ফুফু তফুরার গলায় চেপে ধরলে তফুরা অজ্ঞান হয়ে পড়ে ও মারা যায়। নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে থানায় রাখা হয়েছে। আগামীকাল রোববার ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতল মর্গে পাঠানো হবে। এছাড়া ঘাতক মামুনকে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে।


এ সম্পর্কিত আরো খবর

কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
নাঙ্গলকোট এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ