কুমিল্লা সদরে সরব আ.লীগ-বিএনপি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লা-৬ সদর আসনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থীর মনোনয়নের বৈধতা ঘোষণা হয়েছে। তবে নির্বাচনের প্রচারণার আদেশ দেয়া হয়নি। কৌশলে মাঠে সরব আওয়ামী লীগ ও বিএনপির নেতারা।

উঠান বৈঠক, কুশল বিনিময়, চা চক্র নামে প্রার্থীরা প্রচারণা চালাচ্ছেন। দেশের বড় দুই দলের প্রতীক নির্ধারিত থাকায় স্ব দলের প্রতীকে ভোট চাচ্ছেন নেতাকর্মীরা। দুই দলের প্রার্থী থেকে প্রচারণা করতে ওয়ার্ড় কমিটি গঠন করা হয়েছে।

কয়েকদিন ধরে উঠান বৈঠক করছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আ.ক.ম বাহাউদ্দিন বাহার। তিনি জনবহুল স্থানে করমর্দন করে প্রচারণা চালাচ্ছেন। তার পক্ষে নেতাকর্মীরা ভোট চাইছেন। মহিলা সমাবেশ করে তরুণ ভোটারদের আকর্ষণ করার চেষ্টা চলছে। আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়ন ফিরিস্তি তুলে ধরছেন তারা।

বাহার আরো বলেন, স্বাধীনতার পরে দুই মেয়াদে আওয়ামী লীগ সরকারের মতো উন্নয়ন কেউ করেনি। মহানগরী থেকে গ্রামের রাস্তাঘাট, স্কুল-কলেজ, কালভার্ট, সেতু উন্নয়নের ছোঁয়া পায়। কুমিল্লা সদরের মাঝে প্রবাহিত গোমতী নদীর উপরে তিনটি সেতু নির্মাণ করেছি। গোমতী উত্তর জনপদের সাধারণ মানুষের চলাচলে সর্বোচ্চ সুযোগ সুবিধা তৈরি করে দিয়েছি। এলাকা থেকে ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ অপরাধ কমে গেছে।

এদিকে, বিএনপির প্রার্থী কেন্দ্রীয় বিএনপির ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক-কুমিল্লা কুমিল্লা (দ:) জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমিনুর রশিদ ইয়াছিন আসনের ওয়ার্ডে গিয়ে কুশল বিনিময়, চা চক্রসহ নানা কার্যক্রম চালাচ্ছেন। তার পক্ষে নেতাকর্মীরা মাঠে ধানের শীষের পক্ষে ভোট চাইছেন। তবে তিনি প্রতীক পাওয়ার পর প্রচারণা করবেন বলে দাবি করেন।

আমিনুর রশিদ ইয়াছিন বলেন, গণতন্ত্র, মানুষের ভোটের অধিকার, বাক স্বাধীনতার অধিকার ফিরিয়ে আনতে আমরা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছি। আশা করি অবাধ সুষ্ঠ ও নিরপক্ষ নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা একটি স্বৈরশাসকমুক্ত বাংলাদেশ উপহার দিতে পারবো।