সারাদেশের সুপরিচিত মনোহরগঞ্জের কৃতি সন্তান মোঃতাজুল ইসলাম - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

সারাদেশের সুপরিচিত মনোহরগঞ্জের কৃতি সন্তান মোঃতাজুল ইসলাম



এড. তানজিনা।, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

কুমিল্লা ৯ আসনটি (লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আজ সারাদেশের কাছে একটি সুপরিচিত মডেল। জলাঞ্চল নামে খ্যাত অজোপাড়া গাঁয়ে জন্ম নেয়া গর্বিত এক সন্তানের নাম- মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি। যিঁনি বর্তমানে স্হানীয় সরকার মন্ত্রনালয়ের সুনাম ধন্য মন্ত্রী। যাঁর অবদানে আজ লাকসাম -মনোহরগঞ্জ তথা সারাদেশ আলোয় আলোকিত। নীতিবান, নির্লোভ, অক্লান্ত পরিশ্রমী, কাজ পাগল মানুষটিকে যতই দেখছি, ততই শ্রদ্ধা আর ভালোসায় মুগ্ধ হয়েছি। যেমন এক সময়ে পানির নিছে ডুবে থাকা কাঁচা সড়ক গুলো আজ পাকা সড়কে রূপান্তরিত হয়েছে, অজোপাড়া গাঁয়ে চারদিকে বিদ্যুতের ঝলকানি বার বার জানান দিচ্ছে এই সৃষ্টির শ্রষ্ঠার নাম। এমন আরো আরো উন্নয়নের অনেক দৃষ্টান্ত……।

আমরা যাঁরা আওয়ামীলীগের অনুসারী, দেশরত্ন শেখ হাসিনা যাঁকেই নৌকার কান্ডারী করে আমাদের কাছে পাঠাবেন, তাকেই আমাদের ভোট দিতে হবে, মন না চাইলেও মেনে নিতে হবে!! কিন্তু মানুষ তাদেরকে দুই চোখে, দুই রকম ভাবে দেখে- একটি শ্রদ্ধায় আরেকটি ঘৃনায়। একজন প্রার্থীকে তৃণমূলের জনগন ছাড়া অন্য কেউ চেনার কথাওনা। আমি আমার নেতার বাস্তব সত্যটাই তুলে ধরলাম। আমি মানছি, পৃথিবীর কেহই নিখুঁত নয়; দেখতে হবে ভালোর পাল্লাটা কোন দিকে? আমি বরাবরই একজন ব্যতিক্রমী মানুষ। তাই ব্যতিক্রম কিছুতেই আমি আকৃষ্ট হই।

স্বার্থ সব সময়ই আমার কাছে তুচ্ছ। তাই আমার যাচাই করার ক্ষমতা বিদ্যমান। আমি প্রতিনিয়ত আমার নেতার একজন কর্মী হিসেবে গর্ব বোধ করি এবং তাকে অনুসরণ করি, কিভাবে নিজের কর্ম আর যোগ্যতা বলে, একটি মানুষ শূন্য থেকে বিশালতা ছূঁতে পারে? ব্যক্তি জীবন, কর্ম জীবন, রাজনৈতিক জীবন সবই যেন অপার সৌন্দর্যে একাকার। আমি তাঁর কিঞ্চিত পরিমাণ ছুঁতে পারলেও নিজকে ধন্য মনে করতাম। বর্তমানে আওয়ামীলীগের নেতাদের এত এত লুটপাটের খবরে আমরা বাকরূদ্ধ হয়ে যাই আর মনে মনে বলি আমি অন্তত এমন গর্হিত নেতার অনুসারী নই!! তাহলে হয়তবা লজ্জায় আর ঘৃনায় মাথা কাটা পড়তো। যে রক্ষক এখন সেই ভক্ষক। লাকসাম- মনোহরগঞ্জের মানুষ গর্ববোধ করা উচিৎ, এই ভেবে যে, শেখ হাসিনা আমাদের নেতার উপরই হলমার্ক কেলেঙ্কারির তদন্ত কমিটির প্রধানের দায়িত্ব অর্পন করেছিলেন,এবং তিনি সেটা সততার সাথে পালন করেছেন। পরবর্তীতে, বিদুৎ জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সংসদীয় স্হায়ী কমিটির সভাপতি এবং অর্থমন্ত্রালয় সংক্রান্ত স্হায়ী কমিটির সদস্য নিযূক্ত হয়ে সততা,নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে পরিপূর্ন দায়িত্ব পালন করে দেশরত্নের কাছে একজন পরিক্ষীত সৈনিক হিসেবে নিজের পরিচয় তুলে ধরেছিলেন বলেই, আজ তিনি এত বড় মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে। যড়যন্ত্র মানুষকে সাময়িক কষ্ট দেয় বটে কিন্তু লক্ষ্যস্হীর করে সৎ পথে কর্ম চালিয়ে গেলে, আল্লাহ তাঁকে ঠকায়না। মানুষের সাধ্য নেই দমিয়ে রাখার। নেতা” আপনার জন্য আমি অন্তত গর্বিত কারন রাজনীতিতে আমি আপনার সৃষ্টি। আমার মত তাজুল ইসলামের শুভাকাঙ্ক্ষী যারা, তারা অবশ্যই আমার সাথে একমত হবেন, আশা করি।

লেখকঃ এড. তানজিনা।

সদস্য: জেলা পরিষদ কুমিল্লা।

সভাপতিঃমনোহরগঞ্জ উপজেলা মহিলা আওয়ামীলীগ।


কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
মনোহরগঞ্জ এর অন্যান্য খবরসমূহ