"আপনার পুলিশ,আপনার দরজায়" - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :
লাকসাম থানার 'ওসির 'ব্যতিক্রম উদ্যোগ

“আপনার পুলিশ,আপনার দরজায়”



এম,এ মান্নান, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস পরিস্থিতি মোকাবিলায় মানুষের ঘরে থাকা বাধ্যতামুলক করা হয়েছে। অতিপ্রয়োজন ছাড়া বাড়ি থেকে বের হবেন না এমনকি সচেতনতা মুলক মাইকিং, লিফলেট, ও ফেজবুগের মাধ্যেমে জনসমাগম সৃষ্টি না হয়, সে জন্য মানুষদের মাঝে প্রচার করে আসছেন জেলা, উপজেলা প্রশাসন ও স্হানীয় জনপ্রতিনিধিরা। আবার কোন কোন স্থানে সড়কে গাছের খুটি পেলে ও বাঁশ দিয়ে চলাচল বন্ধ করে দিয়েছে স্হানীয় জনপ্রতিনিধিরা।


এমন পরিস্থিতিতে মানুষের ঘরে থাকা নিশ্চিত করতে ব্যতিক্রম উদ্যোগ নিয়েছেন লাকসাম থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নিজাম উদ্দিন। জেলা পুলিশ ব্যবস্হাপনায় ও লাকসাম থানা ব্যবসায়ী সমিতির সহযোগীতায়,তিনি উপজেলাবাসির জন্য চালু করেছেন আপনার পুলিশ, আপনার দরজায়! সাশ্রয়ী মূল্যে নিত্যপন্যের ভ্রাম্যমান দোকান।


যা মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে পৌছে দিচ্ছে নিজ্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী।যেখানে করে করে চাহিবা মাত্রই পৌছে যাচ্ছে প্রয়োজনীয় বাজার-সদায়।


লাকসাম করোনাভাইরাস মোকাবেলায় মানুষকে ঘরে অবস্থান ও বাজারমুখী জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতেই ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগ নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি।


দেশের চলমান পরিস্থিতিতে লাকসাম থানার পুলিশের ওসি এমন উদ্যোগ উপজেলা জুড়ে বেশ সাড়া ফেলেছে। সাধারণ মানুষ এ উদ্যোগের প্রসংশাও করেছেন।


জানাগেছে, ‘করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে মানুষের ঘরে থাকার বিষয়টি নিশ্চিত করতে নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রী গৃহস্তের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে ভ্রাম্যমাণ বাজার চালু করেছেন।


আজ সোমবার থেকে ট্রাকে এ ভ্রাম্যমাণ বাজার চালু করা হয়েছে। একটি ট্রাকে চাল, ডাল,পেয়াজসহ অন্যান্য নিত্য-ব্যবহার্য্য পণ্য ভ্রাম্যমাণ বাজারের ব্যবস্থা রয়েছে। যা সুলভমূল্যে পৌঁছে দিচ্ছে ভ্রাম্যমাণ ব্যবসায়ীরা।


উপজেলা প্রশাসন ও স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, চলমান সংকটে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও উদ্যোক্তা নানা মানুষের কাছে সহায়তা চান । এতে স্থানীয় ব্যবসায়ী, নানা সামাজিক সংগঠন, মানবিক সহায়তা নিয়ে এগিয়ে আসেন। এভাবেই ওসি চালু করেন ভ্রাম্যমাণ বাজার।ট্রাকভর্তি চাল, ডাল, চিনি, গুড়া দুধ, পেঁয়াজ, রসুন, আদাসহ নানা নিত্য-ব্যবহার্য্য মসলাদির বাজার। যান্ত্রিক বাহনে এ ভ্রাম্যমাণ বাজার ছুটছে এখন গৃহস্থ বাড়ির দোরগোড়ায়।


সুলভমূল্যে সরবরাহ করা হচ্ছে এসব পণ্য। বিক্রয়কৃত অর্থ দিয়ে আবার ক্রয় করা হচ্ছে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। করোনা-সংকটকালে লাকসাম থানা ওসি এমন ভ্রাম্যামাণ বাজার স্থানীয়দের মাঝে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। আর এ কাজে সহায়তা করছে লাকসাম বাজার কমিটি।


লাকসাম থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি নিজাম উদ্দিন বলেন, স্থানীয় বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন, ব্যবসায়ী ও মানবিক ব্যক্তিরা আমাকে সহায়তা করে চলেছেন। করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় মানুষকে নিরাপদে ঘরে থাকা জরুরী। তারা বাজারমুখী হয়ে জনসমাগম সৃষ্টি করলে সংকট মোকাবেলা কঠিন হবে।


তাই নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ভ্রাম্যমাণ বাজার চালু করা হয়েছে। মানুষ সাড়া দিচ্ছে। আমরা ভ্রাম্যমাণ বাজার ব্যবস্থাপনার পরিসর আরো বাড়ানোর চেষ্টা করছি, যাতে মানুষ ঘরে বসে নিত্য বাজার-সেবা পান।


কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
লাকসাম এর অন্যান্য খবরসমূহ