লাকসামে আউশপাড়া গ্রামের রাস্তা দীর্ঘদিনের সংস্কারের অভাবে জনচলাচলে দুর্ভোগ - খবর তরঙ্গ
শিরোনাম :

লাকসামে আউশপাড়া গ্রামের রাস্তা দীর্ঘদিনের সংস্কারের অভাবে জনচলাচলে দুর্ভোগ



এম,এ মান্নান লাকসাম (কুমিল্লা) প্রতিনিধি, (খবর তরঙ্গ ডটকম)

লাকসাম উপজেলার মুদাফরগঞ্জ ইউনিয়নের ৪ নং আউশপাড়া ওয়ার্ডের রাস্তাটি দীর্ঘদিনের সংস্কারের অভাবে জনচলাচলে দুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। হাঁটু কাদা ভেঙে চলাচলের এমন দৃশ্য এখন আর কোথাও দেখা যায় না। সংস্কারের জন্য বিভিন্ন সময়ে সরকারি টাকা বরাদ্দ হলেও যথাযথভাবে কাজ না করায় ব্যবহারে অনুপযোগী রয়েছে। সাধারন মানুষের প্রশ্ন সরকারি অর্থ তাহলে কোথায় যায়?


দীর্ঘদিন ধরে এ অবস্থা চলতে থাকায় জনপ্রতিনিধিদের ওপর চরম ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। সরকারের উন্নয়নের ছোঁয়ায় প্রত্যন্ত গ্রামেও সাধারনত ইট দিয়ে হলে ও রাস্তার পাকা করা হয়ছে। এডিপি,এলজিএসপি, টিআর-কাবিখাসহ উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদে বিভিন্ন তহবিল থেকে জনদূর্ভোগের এসব রাস্তা করার কথা। মুদাফরগঞ্জ ইউনিয়নের অবস্থা দেখে মনে হয় সেখানে সরকারের উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেই নাই।


সরেজমিন দেখা যায়, উক্ত রাস্তাটির দৈর্ঘ্য এক কিলোমিটার। মেইন সড়ক থেকে দক্ষিন দিকে চলমান রাস্তাটির সাংবাদিক বাড়ি হয়ে ব্রিটিশ বাড়ি ওপর দিয়ে ভাকড্ডা সালেহপুর সড়কে মিলিত হয়েছে। এ রাস্তা দিয়ে সালেপুর খালপাড়া অধিকাংশ ও আউশপাড়া গ্রামের কয়েকটি পাড়ার প্রায় ৪শত পরিবারের লোকজন চলাচল করে থাকেন। রাস্তাটি পূর্ব দিকে রয়েছে গ্রামিন ডাকঘর,একটি ফাজিল ডিগ্রী মাদ্রাসা, কিন্ডারগার্ডেন স্কুল,মসজিদ ও একটি বাজার। উত্তর দিকে আঞ্চলিক সড়ক। পশ্চিম দিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। রাস্তার দুই পাশে রয়েছে শত শত পরিবারের বসবাস। ওই এলাকার বাসিন্দাদের স্কুল-কলেজ, মাদ্রাসা ও উপজেলা সদরে যাতায়াতের একমাত্র রাস্তা এটি। হাটু সমান কাদা ভেঙে নারী-পুরুষ, শিশু ও অসুস্থ রোগী নিয়ে চলাচলে এলাকাবাসীর চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এ রাস্তায়। এমনকি প্রতিদিন ৫ ওয়াক্ত নামাজের আসা মুসল্লিরা মসজিদে কর্দমাক্ত রাস্তার কারনে ভোগান্তির শিকার হন। প্রতি বছরে ফসল কাটার মৌসুমে এ বেহাল রাস্তা দিয়ে বহু কষ্টে ফসলি জমি থেকে বিভিন্ন যানের মাধ্যমে কৃষক তাদের উৎপাদিত ফসল ঘরে তোলেন।


মুদাফরগঞ্জ ইউপির চেয়ারম্যান শাহিদুল ইসলাম শাহিন বলেন, এ রাস্তাটি পাকা করার জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। এ বছর না হলেও আশা করি আগামী বছর রাস্তার কাজ শুরু হবে।


লাকসাম উপজেলা প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম শওকত বলেন, উপজেলার বিভিন্ন অবকাঠামো ও রাস্তাগুলোর করার প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে এ রাস্তাটিও রয়েছে। এ বছর না হলেও আগামী বছর রাস্তার কাজ শুরু হবে।


উপজেলা এর অন্যান্য খবরসমূহ
কুমিল্লা এর অন্যান্য খবরসমূহ
লাকসাম এর অন্যান্য খবরসমূহ
পূর্বের সংবাদ